ঢাকা ০৬:১৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখতে গিয়ে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালো কচুয়ার রিয়াদ

মোঃ রাছেল : স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখতে গিয়ে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালো কচুয়ার ডুমুরিয়া গ্রামের রিয়াদ হোসেন (২৩)।

Model Hospital

গত (২৬ জুন) রবিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে মাওয়া প্রান্তে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রিয়াদ উপজেলার কড়ইয়া ইউনিয়নের ডুমুরিয়া গ্রামের আলী আহম্মেদ মেম্বার বাড়ীর দুলাল মিয়ার ছেলে। তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি ফার্মে চাকুরি করতেন। তার স্ত্রী ২ বছরের একটি পুত্র সন্তান গ্রামেই থাকতো।

নিহতের স্ত্রীর জান্নাত আক্তার জানান, রবিবার মধ্যরাতে আমার স্বামীর সাথে আমার শেষ কথা হয়। এসময় রিয়াদ বলে ছিলো ‘সে তার কয়েক বন্ধুসহ মোটরসাইকেলে করে ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু দেখতে যাচ্ছে। তারপর রাত ৩টার দিকে অপরিচিত এক নাম্বার থেকে কল দিয়ে জানায়- রিয়াদ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে।

রিয়াদের পিতা দুলাল মিয়া জানান, দুর্ঘটনায় নিহত আমার মেজো ছেলে রিয়াদ হোসেনের লাশ ঢাকার মনোয়ারা হাসপাতালে আছে। এ খবর পেয়ে মনোয়ারা হাসপাতালে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে জানতে পারি, রিয়াদ তার বন্ধুদের সাথে মোটরসাইকেলে করে পদ্মা সেতু দেখতে যায়। যাওয়ার পথে রিয়াদের মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে রেলিং এর সাথে হুমড়ে পড়ে। এসময় তার বন্ধুরা দ্রুত তাকে ঢাকার মনোয়ারা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কতর্ব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করে।

সোমবার দুপুরে রিয়াদের লাশ তার নিজ গ্রাম ডুমুরিয়ায় নিয়ে আসলে মা, বাবা, স্ত্রী ও সন্তানসহ স্বজনদের আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়ে উঠে। তার অকাল মৃত্যুতে বন্ধু বান্ধব, আত্মীয় স্বজনের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। সোমবার বিকেলে মরহুমের জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

ক্যাব চাঁদপুরের আয়োজনে বাজার পরিস্থিতি ও নিরাপদ খাদ্য বিষয়ক মত বিনিময় সভা

স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখতে গিয়ে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালো কচুয়ার রিয়াদ

আপডেট সময় : ১২:১৪:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৭ জুন ২০২২

মোঃ রাছেল : স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখতে গিয়ে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ হারালো কচুয়ার ডুমুরিয়া গ্রামের রিয়াদ হোসেন (২৩)।

Model Hospital

গত (২৬ জুন) রবিবার দিবাগত রাত আড়াইটার দিকে ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়েতে মাওয়া প্রান্তে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রিয়াদ উপজেলার কড়ইয়া ইউনিয়নের ডুমুরিয়া গ্রামের আলী আহম্মেদ মেম্বার বাড়ীর দুলাল মিয়ার ছেলে। তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি ফার্মে চাকুরি করতেন। তার স্ত্রী ২ বছরের একটি পুত্র সন্তান গ্রামেই থাকতো।

নিহতের স্ত্রীর জান্নাত আক্তার জানান, রবিবার মধ্যরাতে আমার স্বামীর সাথে আমার শেষ কথা হয়। এসময় রিয়াদ বলে ছিলো ‘সে তার কয়েক বন্ধুসহ মোটরসাইকেলে করে ঢাকা থেকে পদ্মা সেতু দেখতে যাচ্ছে। তারপর রাত ৩টার দিকে অপরিচিত এক নাম্বার থেকে কল দিয়ে জানায়- রিয়াদ সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে।

রিয়াদের পিতা দুলাল মিয়া জানান, দুর্ঘটনায় নিহত আমার মেজো ছেলে রিয়াদ হোসেনের লাশ ঢাকার মনোয়ারা হাসপাতালে আছে। এ খবর পেয়ে মনোয়ারা হাসপাতালে ছুটে যাই। সেখানে গিয়ে জানতে পারি, রিয়াদ তার বন্ধুদের সাথে মোটরসাইকেলে করে পদ্মা সেতু দেখতে যায়। যাওয়ার পথে রিয়াদের মোটরসাইকেলটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে রেলিং এর সাথে হুমড়ে পড়ে। এসময় তার বন্ধুরা দ্রুত তাকে ঢাকার মনোয়ারা হাসপাতালে নিয়ে আসলে কতর্ব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করে।

সোমবার দুপুরে রিয়াদের লাশ তার নিজ গ্রাম ডুমুরিয়ায় নিয়ে আসলে মা, বাবা, স্ত্রী ও সন্তানসহ স্বজনদের আহাজারিতে বাতাস ভারী হয়ে উঠে। তার অকাল মৃত্যুতে বন্ধু বান্ধব, আত্মীয় স্বজনের মাঝে শোকের ছায়া নেমে আসে। সোমবার বিকেলে মরহুমের জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়েছে।