ঢাকা ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

দৃশ্যমান হচ্ছে মৈশাদী ইউনিয়নের আশ্রায়ন প্রকল্প

  • সজীব খান
  • আপডেট সময় : ০৯:৩৯:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩
  • 174

চাঁদপুর সদর উপজেলার মৈশাদী ইউনিয়নে নির্মাণাধীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার খাত আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ দৃশ্যমান হচ্ছে, প্রতিনিয়তই প্রকল্পের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে।

Model Hospital

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসারের সার্বিক তত্ত্ববধায়নে নির্মাণাধীন ঘরগুলো যথানিয়মে চলছে। ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার গৃহহীনদের জমিসহ ঘর হস্তান্তরের জন্য নিরলস ভাবে তারা কাজ করছে।

সারাদেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক জমি ও গৃহ প্রদানের লক্ষে মৈশাদীতে জমি অধিগ্রহন করে বর্তমানে আশ্রয়ন প্রকল্প দৃশ্যমান হতে যাচ্ছে। চাঁদপুর সদর উপজেলায় ভূমিহীনদের জন্য বরাদ্ধকৃত ঘর নির্মান প্রক্রিয়া দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। স্বপ্নের বাড়ির অপেক্ষায় ৪৪টি পরিবার।

সদর উপজেলার ৪৪টি ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল, অসহায়, দরিদ্র পরিবারের জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে পাকা বাড়ি। দুই শতক জায়গার ওপর দুকক্ষবিশিষ্ট শয়ন কক্ষ, টয়লেট, রান্নাঘর একটি খোলা বারিন্ধা ।

মুজিব শতবর্ষে বাংলাদেশে একজন গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় উপহার পাওয়া বাড়ির সুবিধাভোগীদের আবেগঘন কথামালায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উপকার ভোগীরা বলেন, আমাদের নিজের জমি ও ঘরবাড়ি নাই, মানুষের জমিতে কোনরকম আশ্রয় নিয়ে খরকুটো দিয়ে পাখিরমত বাসা বেধে বসবাস করেছিলাম, জীবনে কখনো ভাবিনি পাকা ঘরে থাকবো। আমরা জীবনে যা কল্পনাও করিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আমাদের জন্য তা করেছে। এজন্য আমরা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানাই এবং তারজন্য দোয়া করি।

আশ্রয়ন প্রকল্প পরিচালনা কারি, মৈশাদী ২নং ওয়ার্ড মেম্বার রিয়াজ উদ্দিন রাজু বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্প সরাসরি সদর ইউএনও ও পিআইও ডিলিং করে, আমি তাদের পক্ষ থেতে দেখা শুনা করছি। এ আশ্রয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন দেশের মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসহায় গৃহহীন মানুষের কথা চিন্তা করে তাদের পুর্নবাসনের জন্য যে ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন সেই কাজগুলো যেন সঠিক নিযমে এবং সঠিক সময়ে হয় সেজন্য আমার দায়িত্ব অনুযায়ী নিয়মিত প্রতিদিন মনিটরিং করছি।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরের তিন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা কে কত ভোট পেলেন

দৃশ্যমান হচ্ছে মৈশাদী ইউনিয়নের আশ্রায়ন প্রকল্প

আপডেট সময় : ০৯:৩৯:২৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৩

চাঁদপুর সদর উপজেলার মৈশাদী ইউনিয়নে নির্মাণাধীন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার খাত আশ্রয়ণ প্রকল্পের কাজ দৃশ্যমান হচ্ছে, প্রতিনিয়তই প্রকল্পের কাজ এগিয়ে যাচ্ছে।

Model Hospital

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসারের সার্বিক তত্ত্ববধায়নে নির্মাণাধীন ঘরগুলো যথানিয়মে চলছে। ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করার জন্য প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপহার গৃহহীনদের জমিসহ ঘর হস্তান্তরের জন্য নিরলস ভাবে তারা কাজ করছে।

সারাদেশে ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবারের মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক জমি ও গৃহ প্রদানের লক্ষে মৈশাদীতে জমি অধিগ্রহন করে বর্তমানে আশ্রয়ন প্রকল্প দৃশ্যমান হতে যাচ্ছে। চাঁদপুর সদর উপজেলায় ভূমিহীনদের জন্য বরাদ্ধকৃত ঘর নির্মান প্রক্রিয়া দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলছে। স্বপ্নের বাড়ির অপেক্ষায় ৪৪টি পরিবার।

সদর উপজেলার ৪৪টি ভূমিহীন, গৃহহীন, ছিন্নমূল, অসহায়, দরিদ্র পরিবারের জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে পাকা বাড়ি। দুই শতক জায়গার ওপর দুকক্ষবিশিষ্ট শয়ন কক্ষ, টয়লেট, রান্নাঘর একটি খোলা বারিন্ধা ।

মুজিব শতবর্ষে বাংলাদেশে একজন গৃহহীন থাকবে না’ প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণায় উপহার পাওয়া বাড়ির সুবিধাভোগীদের আবেগঘন কথামালায় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উপকার ভোগীরা বলেন, আমাদের নিজের জমি ও ঘরবাড়ি নাই, মানুষের জমিতে কোনরকম আশ্রয় নিয়ে খরকুটো দিয়ে পাখিরমত বাসা বেধে বসবাস করেছিলাম, জীবনে কখনো ভাবিনি পাকা ঘরে থাকবো। আমরা জীবনে যা কল্পনাও করিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার আমাদের জন্য তা করেছে। এজন্য আমরা প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানাই এবং তারজন্য দোয়া করি।

আশ্রয়ন প্রকল্প পরিচালনা কারি, মৈশাদী ২নং ওয়ার্ড মেম্বার রিয়াজ উদ্দিন রাজু বলেন, প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন প্রকল্প সরাসরি সদর ইউএনও ও পিআইও ডিলিং করে, আমি তাদের পক্ষ থেতে দেখা শুনা করছি। এ আশ্রয়ন প্রকল্পের মাধ্যমে বর্তমান সরকারের উন্নয়ন দেশের মানুষের দোরগোড়ায় পৌছে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অসহায় গৃহহীন মানুষের কথা চিন্তা করে তাদের পুর্নবাসনের জন্য যে ঘর বরাদ্দ দিয়েছেন সেই কাজগুলো যেন সঠিক নিযমে এবং সঠিক সময়ে হয় সেজন্য আমার দায়িত্ব অনুযায়ী নিয়মিত প্রতিদিন মনিটরিং করছি।