ঢাকা ০২:২১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আশ্রাফপুর আহসানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন ও পুনর্মিলনী

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেছেন, আশ্রাফপুর গ্রামের শতবর্ষের এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এলাকার মানুষের মাঝে সু-শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়েছে। এ এলাকাকে আলোকিত করেছে। সকল মানুষের সাথে এ প্রতিষ্ঠানটি জড়িয়ে রয়েছে। এ বিদ্যালয়টি আমাদের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এ শতবর্ষের অনুষ্ঠানে আমার থাকার খুব ইচ্ছা ছিল কিন্তু বিশেষ কাজ থাকায় অনুষ্ঠানটিতে থাকতে পারিনি। আমি আপনাদের সাথে আছি ও থাকবো, সৃষ্টিকর্তা যেন আমাদের সে শক্তি ও সাহস দেন। যেন এই বিদ্যালয়টি পরবর্তী পর্যায়ে উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজে রূপান্তর করতে সক্ষম হই, সে সদইচ্ছা আমার আছে।

Model Hospital

তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে এ বিদ্যালয়ে দৃষ্টিনন্দন ছাত্রাবাস নির্মাণ করা হয়েছে। আপনাদের প্রিয় মানুষ, আপনাদের এই এলাকার নেতা সহিদ উল্লাহ’র নামে। এ এলাকাকে আলোকিত করতে আমাদের সকলের সদ ইচ্ছা আছে। আপনারা আমার জন্য ও জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করবেন। যেন আওয়ামী লীগ সরকার আবারো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হতে পারে। শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় থাকলেই আমরা আপনারা সকলেই ভালো থাকবো। আবারও জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধি হিসেবে আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন সে বিশ^াস ও আস্থা আপনাদের প্রতি আমার আছে।

শনিবার আশ্রাফপুর আহসানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন ও পুর্নমিলনী অনুষ্ঠানে টেলিকনফারেন্সে প্রধান অতিথি বক্তব্যে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

আশ্রাফপুর আহসানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠনের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে। প্রক্তন ছাত্র-ছাত্রী ফোরামের আয়োজনে শনিবার সকালে জাতীয় সংগীত পরিবেশন এর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি সহকারী পরিচালক (অবঃ) আনসার ভিডিপি মোঃ আবু তাহের। পরে প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের নিয়ে আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালির নেতৃত্ব দেন – শতবর্ষ উদযাপন কমিটির প্রাক্তন শিক্ষার্থী মোঃ সফিকুর রহমান, মাহাবুব আলম খোকন, সামছুদ্দিন সৈকত, শাহাদাত হোসেন ইতালি, আলহাজ¦ মিলন মিয়া, আমেরিকান প্রবাসী ছালেহ সিকান্দার। প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে বিদ্যালয়ের মাঠ। একে অপরের সঙ্গে গল্প ও কুশল বিনিময়ে সময় কাটালেন সাবেক শিক্ষার্থীরা। সব মিলিয়ে এক আবেগঘন মিলনমেলায় পরিনত হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি সহকারী পরিচালক (অবঃ) আনসার ভিডিপি মোঃ আবু তাহের সভাপতিত্বে ও শতবর্ষ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব মোঃ সফিকুর রহমান ও সামছুদ্দিন সৈকত এর যৌথ সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন – উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোঃ আলাউদ্দিন সোহাগ, অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন – উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাজাহান শিশির, চাঁদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার ইয়াকুব আলী মাষ্টার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম লালু, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার জাবের মিয়া, প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ৯০ ব্যাচের শিক্ষার্থী রফিকুল ইসলাম, ৯৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী মিরন হোসেন, ৯২ ব্যাচের শিক্ষার্থী জহির হোসেন, ৭৮ ব্যাচের শিক্ষার্থী আবুল কালাম আজাদ, ৯৬ ব্যাচের শিক্ষার্থী সালাউদ্দিন সুমন, অ্যাডভোকেট ইউসুফ, ৮১ ব্যাচের শিক্ষার্থী গাজী আবদুর রশিদ, স্মৃতিচারণ করেন দশম শ্রেণির ছাত্রী মারিয়া আক্তার প্রমুখ।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে লঞ্চে শুরু হয়েছে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা

আশ্রাফপুর আহসানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন ও পুনর্মিলনী

আপডেট সময় : ০৮:৪৯:২৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ নভেম্বর ২০২৩

সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেছেন, আশ্রাফপুর গ্রামের শতবর্ষের এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এলাকার মানুষের মাঝে সু-শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিয়েছে। এ এলাকাকে আলোকিত করেছে। সকল মানুষের সাথে এ প্রতিষ্ঠানটি জড়িয়ে রয়েছে। এ বিদ্যালয়টি আমাদের কাছে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। এ শতবর্ষের অনুষ্ঠানে আমার থাকার খুব ইচ্ছা ছিল কিন্তু বিশেষ কাজ থাকায় অনুষ্ঠানটিতে থাকতে পারিনি। আমি আপনাদের সাথে আছি ও থাকবো, সৃষ্টিকর্তা যেন আমাদের সে শক্তি ও সাহস দেন। যেন এই বিদ্যালয়টি পরবর্তী পর্যায়ে উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও কলেজে রূপান্তর করতে সক্ষম হই, সে সদইচ্ছা আমার আছে।

Model Hospital

তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে এ বিদ্যালয়ে দৃষ্টিনন্দন ছাত্রাবাস নির্মাণ করা হয়েছে। আপনাদের প্রিয় মানুষ, আপনাদের এই এলাকার নেতা সহিদ উল্লাহ’র নামে। এ এলাকাকে আলোকিত করতে আমাদের সকলের সদ ইচ্ছা আছে। আপনারা আমার জন্য ও জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য দোয়া করবেন। যেন আওয়ামী লীগ সরকার আবারো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত হতে পারে। শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় থাকলেই আমরা আপনারা সকলেই ভালো থাকবো। আবারও জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতিনিধি হিসেবে আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবেন সে বিশ^াস ও আস্থা আপনাদের প্রতি আমার আছে।

শনিবার আশ্রাফপুর আহসানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন ও পুর্নমিলনী অনুষ্ঠানে টেলিকনফারেন্সে প্রধান অতিথি বক্তব্যে সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীর এমপি উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

আশ্রাফপুর আহসানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উদযাপন ও পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠনের মধ্য দিয়ে উদযাপিত হয়েছে। প্রক্তন ছাত্র-ছাত্রী ফোরামের আয়োজনে শনিবার সকালে জাতীয় সংগীত পরিবেশন এর মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানটির উদ্বোধন করেন প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি সহকারী পরিচালক (অবঃ) আনসার ভিডিপি মোঃ আবু তাহের। পরে প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের নিয়ে আনন্দ র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালির নেতৃত্ব দেন – শতবর্ষ উদযাপন কমিটির প্রাক্তন শিক্ষার্থী মোঃ সফিকুর রহমান, মাহাবুব আলম খোকন, সামছুদ্দিন সৈকত, শাহাদাত হোসেন ইতালি, আলহাজ¦ মিলন মিয়া, আমেরিকান প্রবাসী ছালেহ সিকান্দার। প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে বিদ্যালয়ের মাঠ। একে অপরের সঙ্গে গল্প ও কুশল বিনিময়ে সময় কাটালেন সাবেক শিক্ষার্থীরা। সব মিলিয়ে এক আবেগঘন মিলনমেলায় পরিনত হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটির সভাপতি সহকারী পরিচালক (অবঃ) আনসার ভিডিপি মোঃ আবু তাহের সভাপতিত্বে ও শতবর্ষ উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব মোঃ সফিকুর রহমান ও সামছুদ্দিন সৈকত এর যৌথ সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন – উক্ত প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক মোঃ আলাউদ্দিন সোহাগ, অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন – উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাজাহান শিশির, চাঁদপুর জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার ইয়াকুব আলী মাষ্টার, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম লালু, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার জাবের মিয়া, প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ৯০ ব্যাচের শিক্ষার্থী রফিকুল ইসলাম, ৯৩ ব্যাচের শিক্ষার্থী মিরন হোসেন, ৯২ ব্যাচের শিক্ষার্থী জহির হোসেন, ৭৮ ব্যাচের শিক্ষার্থী আবুল কালাম আজাদ, ৯৬ ব্যাচের শিক্ষার্থী সালাউদ্দিন সুমন, অ্যাডভোকেট ইউসুফ, ৮১ ব্যাচের শিক্ষার্থী গাজী আবদুর রশিদ, স্মৃতিচারণ করেন দশম শ্রেণির ছাত্রী মারিয়া আক্তার প্রমুখ।