ঢাকা ০৭:৩৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ভার্চুয়াল নির্বাচনী জনসভায় চাঁদপুর জেলায় অংশগ্রহণ

আমরা চাই জনগণ তার ভোটের অধিকার নির্বিঘ্নে প্রয়োগ করবে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট চুরির সুযোগ পাবে না দেখে বিএনপি নির্বাচনে আসছে না ‘কোন দল আসল না আসল তাতে কিচ্ছু আসে যায় না। বিএনপি আসে না একটা কারণে যে এখানে ভোট চুরির সুযোগ নেই। ২০০৮ সালে পারে নাই, যার জন্য তারা সবসময় নির্বাচন বাতিল করতে চায়, বর্জন করতে চায়।

Model Hospital

২৮ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ টায় চাঁদপুর হাসান উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০২৪ উপলক্ষে কয়েকটি জেলায় অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল নির্বাচনী জনসভায় চাঁদপুর জেলায় অংশগ্রহণ করে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আমি বলতে চাই, সুষ্ঠুভাবে আপনারা নির্বাচন করবেন, নিজের দলের মধ্যে ঐক্য রাখবেন। যত প্রার্থী আছেন, তারা স্বাধীনমতো গণসংযোগ করুক । জনগণকে সুযোগ দিন, পছন্দমতো প্রার্থী পছন্দ করে নেবে এবং ভোট দেবে। তাতে আমাদের গণতন্ত্র আরো শক্তিশালী হবে।

সবার কাছে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা নির্বাচনে বিশ্বাস করি, জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করি। জনগণের ক্ষমতা আমরা নিশ্চিত করেছি, সেটা ধরে রেখেই আমাদের এগোতে হবে।’

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে যেন কেউ কোনো অভিযোগ আনতে না পারে; শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন করবেন। নির্বাচনে জনগণের অংশগ্রহণ এবং ভোটারের অংশগ্রহণ থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘‌উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে আওয়ামী লীগকে সরকার গঠন করে জনগণের কল্যাণ সাধন করতে হবে।’

আসন্ন নির্বাচনে জনগণ ও ভোটারদের অংশগ্রহণ অপরিহার্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোন দল নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বা নিচ্ছে না, তাতে কিছু যায় আসে না। ভোট কারচুপির কোনো নিশ্চয়তা না থাকায় বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে না।’ ‘আমরা এ দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করি আর বিএনপির জ্বালাও পোড়াও অগ্নিসন্ত্রাস, এটাই তারা ভালো বোঝে, এটাই তারা করে। এদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। কেননা সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদী সংগঠন হচ্ছে বিএনপি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন ‘এবারের নির্বাচনে আপনাদের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ করে কেউ মানুষের ক্ষতি যেন করতে না পারে। সেজন্য সবাইকেই সজাগ থাকতে হবে ‘৭ জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণ ভোট দেবে। ভোটের মালিক জনগণ, এটা তাদের সাংবিধানিক অধিকার। আমরা এটা উন্মুক্ত করেছি, আমাদের নৌকার প্রার্থীও আছে, স্বতন্ত্রও আছে এবং অন্যান্য দলও আছে।’

প্রত্যেকে জনগণের কাছে যাবেন, জনগণ যাকে ভোট দেবে, তিনি নির্বাচিত হবেন। কেউ কারো অধিকারে হস্তক্ষেপ করবেন না। এখানে কিন্তু সংঘাত-মারামারি কোনো কিছু আমি দেখতে চাই না। সংঘাত হলে আমার দলের যদি কেউ করে, তার কিন্তু রেহাই নেই। তার বিরুদ্ধে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব। ‘আমরা চাই জনগণ তার ভোটের অধিকার নির্বিঘ্নে প্রয়োগ করবে। যাকে খুশি, যাকে পছন্দ, তাকে ভোট দেবে, তিনি জয়ী হয়ে আসবেন। গণতন্ত্রকে আরো সুদৃঢ় করতে হবে। উন্নয়নের ধারাটা যদি অব্যাহত রাখতে হয়, তাহলে আওয়ামী লীগকেই সরকার গঠন করে জনগণের কল্যাণ সাধন করতে হবে। সেটা আপনাদের মাথায় রাখতে হবে। কেউ যেন কোনো অভিযোগ আনতে না পারে নির্বাচন নিয়ে।’

জনসভায় চাঁদপুরের ৫টি আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর ১ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, চাঁদপুর -২ সংসদীয় আসনের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম, চাঁদপুর- ৩ সদর ও হাইমচর আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনে জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান, চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনে মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বীর বিক্রম।

জনসভার চাঁদপুর প্রান্তে এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ওচমান গনি পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ডাঃ জে আর ওয়াদুদ টিপু, পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল, ফরিদগঞ্জ পৌর মেয়র যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটোয়ারী, অ্যাড. মজিবুর রহমান ভূইয়া, উপ দপ্তর সম্পাদক অ্যাড.রনজিত রায় চৌধুরী, মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ কুদ্দুছ, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাড, জাহিদুল ইসলাম রোমান, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড জেসমিন সুলতানা, চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারী, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি রাধা গোবিন্দ গোপ, সাধারন সম্পাদক আমিনুর রহমান বাবুল, কেন্দ্রীয় যুবলীগের কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাড জাফর ইকবাল মুন্না, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান টুটুল, মোহাম্মদ আলী মাঝি, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক অ্যাড. হেলাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফেরদাউস মোর্শেদ জুয়েল, মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য গাজী মুক্তার হোসেন, সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অ্যাড, হুমায়ুন কবির সুমন, যুগ্ম-আহ্বায়ক শিমুল হাসান সামনু, তাজুল ইসলাম মিয়াজি, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জহির উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এ প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ক্রমে ময়মনসিংহ বিভাগের জামালপুর ও শেরপুর জেলা, ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদী জেলা এবং চট্টগ্রাম বিভাগের চাঁদপুর ও বান্দরবান জেলার নির্বাচনী জনসভায় বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রার ওপর নির্মিত একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। পরে চাঁদপুরের শিল্পীদের পরিবেশনায় নাচ ও গান পরিবেশন করেন শিল্পীরা।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে মাদরাসাতু মুহাম্মদ সাঃ উদ্বোধন

ভার্চুয়াল নির্বাচনী জনসভায় চাঁদপুর জেলায় অংশগ্রহণ

আমরা চাই জনগণ তার ভোটের অধিকার নির্বিঘ্নে প্রয়োগ করবে : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আপডেট সময় : ০৯:০৬:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৮ ডিসেম্বর ২০২৩

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট চুরির সুযোগ পাবে না দেখে বিএনপি নির্বাচনে আসছে না ‘কোন দল আসল না আসল তাতে কিচ্ছু আসে যায় না। বিএনপি আসে না একটা কারণে যে এখানে ভোট চুরির সুযোগ নেই। ২০০৮ সালে পারে নাই, যার জন্য তারা সবসময় নির্বাচন বাতিল করতে চায়, বর্জন করতে চায়।

Model Hospital

২৮ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার বিকাল ৩ টায় চাঁদপুর হাসান উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে চাঁদপুর জেলা আওয়ামীলীগের আয়োজনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০২৪ উপলক্ষে কয়েকটি জেলায় অনুষ্ঠিত ভার্চুয়াল নির্বাচনী জনসভায় চাঁদপুর জেলায় অংশগ্রহণ করে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘আমি বলতে চাই, সুষ্ঠুভাবে আপনারা নির্বাচন করবেন, নিজের দলের মধ্যে ঐক্য রাখবেন। যত প্রার্থী আছেন, তারা স্বাধীনমতো গণসংযোগ করুক । জনগণকে সুযোগ দিন, পছন্দমতো প্রার্থী পছন্দ করে নেবে এবং ভোট দেবে। তাতে আমাদের গণতন্ত্র আরো শক্তিশালী হবে।

সবার কাছে নৌকা মার্কায় ভোট দিতে আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা নির্বাচনে বিশ্বাস করি, জনগণের ক্ষমতায়নে বিশ্বাস করি। জনগণের ক্ষমতা আমরা নিশ্চিত করেছি, সেটা ধরে রেখেই আমাদের এগোতে হবে।’

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, ‘নির্বাচন নিয়ে যেন কেউ কোনো অভিযোগ আনতে না পারে; শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন করবেন। নির্বাচনে জনগণের অংশগ্রহণ এবং ভোটারের অংশগ্রহণ থাকতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘‌উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে আওয়ামী লীগকে সরকার গঠন করে জনগণের কল্যাণ সাধন করতে হবে।’

আসন্ন নির্বাচনে জনগণ ও ভোটারদের অংশগ্রহণ অপরিহার্য উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কোন দল নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বা নিচ্ছে না, তাতে কিছু যায় আসে না। ভোট কারচুপির কোনো নিশ্চয়তা না থাকায় বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেবে না।’ ‘আমরা এ দেশের মানুষের কল্যাণে কাজ করি আর বিএনপির জ্বালাও পোড়াও অগ্নিসন্ত্রাস, এটাই তারা ভালো বোঝে, এটাই তারা করে। এদের হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে হবে। কেননা সন্ত্রাসী ও জঙ্গিবাদী সংগঠন হচ্ছে বিএনপি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন ‘এবারের নির্বাচনে আপনাদের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ করে কেউ মানুষের ক্ষতি যেন করতে না পারে। সেজন্য সবাইকেই সজাগ থাকতে হবে ‘৭ জানুয়ারির নির্বাচনে জনগণ ভোট দেবে। ভোটের মালিক জনগণ, এটা তাদের সাংবিধানিক অধিকার। আমরা এটা উন্মুক্ত করেছি, আমাদের নৌকার প্রার্থীও আছে, স্বতন্ত্রও আছে এবং অন্যান্য দলও আছে।’

প্রত্যেকে জনগণের কাছে যাবেন, জনগণ যাকে ভোট দেবে, তিনি নির্বাচিত হবেন। কেউ কারো অধিকারে হস্তক্ষেপ করবেন না। এখানে কিন্তু সংঘাত-মারামারি কোনো কিছু আমি দেখতে চাই না। সংঘাত হলে আমার দলের যদি কেউ করে, তার কিন্তু রেহাই নেই। তার বিরুদ্ধে আমরা যথাযথ ব্যবস্থা নেব। ‘আমরা চাই জনগণ তার ভোটের অধিকার নির্বিঘ্নে প্রয়োগ করবে। যাকে খুশি, যাকে পছন্দ, তাকে ভোট দেবে, তিনি জয়ী হয়ে আসবেন। গণতন্ত্রকে আরো সুদৃঢ় করতে হবে। উন্নয়নের ধারাটা যদি অব্যাহত রাখতে হয়, তাহলে আওয়ামী লীগকেই সরকার গঠন করে জনগণের কল্যাণ সাধন করতে হবে। সেটা আপনাদের মাথায় রাখতে হবে। কেউ যেন কোনো অভিযোগ আনতে না পারে নির্বাচন নিয়ে।’

জনসভায় চাঁদপুরের ৫টি আসনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীদের মধ্য উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুর ১ আসনে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, চাঁদপুর -২ সংসদীয় আসনের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক ত্রাণ মন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম, চাঁদপুর- ৩ সদর ও হাইমচর আসনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি, চাঁদপুর-৪ (ফরিদগঞ্জ) আসনে জাতীয় প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি মুহম্মদ শফিকুর রহমান, চাঁদপুর-৫ (হাজীগঞ্জ-শাহরাস্তি) আসনে মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বীর বিক্রম।

জনসভার চাঁদপুর প্রান্তে এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ওচমান গনি পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি ডাঃ জে আর ওয়াদুদ টিপু, পৌর মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল, ফরিদগঞ্জ পৌর মেয়র যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল খায়ের পাটওয়ারী, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটোয়ারী, অ্যাড. মজিবুর রহমান ভূইয়া, উপ দপ্তর সম্পাদক অ্যাড.রনজিত রায় চৌধুরী, মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা এম এ কুদ্দুছ, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাড, জাহিদুল ইসলাম রোমান, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামীলীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অ্যাড জেসমিন সুলতানা, চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারী, পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি রাধা গোবিন্দ গোপ, সাধারন সম্পাদক আমিনুর রহমান বাবুল, কেন্দ্রীয় যুবলীগের কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য অ্যাড জাফর ইকবাল মুন্না, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মাহফুজুর রহমান টুটুল, মোহাম্মদ আলী মাঝি, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আহ্বায়ক অ্যাড. হেলাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক ফেরদাউস মোর্শেদ জুয়েল, মতলব উত্তর উপজেলা আওয়ামীলীগের সদস্য গাজী মুক্তার হোসেন, সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক অ্যাড, হুমায়ুন কবির সুমন, যুগ্ম-আহ্বায়ক শিমুল হাসান সামনু, তাজুল ইসলাম মিয়াজি, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জহির উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেনসহ আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও অঙ্গ সহযোগি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

এ প্রধানমন্ত্রী পর্যায়ক্রমে ময়মনসিংহ বিভাগের জামালপুর ও শেরপুর জেলা, ঢাকা বিভাগের কিশোরগঞ্জ ও নরসিংদী জেলা এবং চট্টগ্রাম বিভাগের চাঁদপুর ও বান্দরবান জেলার নির্বাচনী জনসভায় বক্তব্য রাখেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে আওয়ামী লীগের উন্নয়ন-অগ্রযাত্রার ওপর নির্মিত একটি ভিডিও ডকুমেন্টারি প্রদর্শন করা হয়। পরে চাঁদপুরের শিল্পীদের পরিবেশনায় নাচ ও গান পরিবেশন করেন শিল্পীরা।