ঢাকা ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৩ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মতলবে বিষাক্ত বর্জ্যে ৮ গরু অসুস্থ, ১৭ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ চেয়ে থানায় অভিযোগ

চাঁদপুরের মতলব উত্তরে অনুমোদনহীন ব্যাটারি কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে একটি খামারের আটটি গরু অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

Model Hospital

মঙ্গলবার (২৮ মে) বিকেলে এ ঘটনায় ১৭ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ চেয়ে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত খামারি জসিম উদ্দিন লিটন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ব্যাটারি কারখানা সংলগ্ন ক্ষেত থেকে ঘাস কেটে গরুকে দেন জসিম উদ্দিন লিটন। ওই ঘাস খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে আটটি গরু। গরুর অবস্থা খারাপ দেখে খামারে তিনটি গরু জবাই করে ও পাঁচটি গরু কসাইর কাছে স্বল্পমূল্যে বিক্রি করে দেন। এর আগেও একই কারণে কয়েকটি গরু মারা যাওয়ার কারণে কারখানাটি বন্ধ করে দেয়। সম্প্রতি আবারও চালু করায় এমন ঘটনা ঘটেছে।

খামার মালিক জসিম উদ্দিন লিটন বলেন, পাঁচ বছর ধরে খামার করেছি। কোনদিন অসুবিধা হয়নি। প্রথম ব্যাটারি কারখানা সংলগ্ন ক্ষেত থেকে ঘাস খাওয়ানোর কারণে গরুগুলো অসুস্থ হয়েছে। এতে আমার ১৭ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। বাকি গরুগুলো নিয়ে চিন্তায় আছি। যদি এগুলোরও সমস্যা হয়, তাহলে পথে বসা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না।

এদিকে কারখানা মালিক সোহেল বলেন, সামান্য পরিবেশ দূষণ হলেও হতে পারে। এছাড়া পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র ছাড়া অন্য সব কাগজপত্র রয়েছে। যেহেতু মানুষের ক্ষতি হয়, সেহেতু কারখানাটি বন্ধ করে দিবো।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শ্যামল চন্দ্র দাস বলেন, খবর পাওয়া পর আমি খামারে যাই। ঘাসের মধ্যে বিষাক্ত মিশ্রিত গ্যাস ছিল। যার কারণে গরুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ে।

মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন রনি বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

গরু জবাই করার সময় হার্ট অ্যাটাকে মৃ’ত্যু

মতলবে বিষাক্ত বর্জ্যে ৮ গরু অসুস্থ, ১৭ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ চেয়ে থানায় অভিযোগ

আপডেট সময় : ১২:৩৬:০৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪

চাঁদপুরের মতলব উত্তরে অনুমোদনহীন ব্যাটারি কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যে একটি খামারের আটটি গরু অসুস্থ হয়ে পড়েছে।

Model Hospital

মঙ্গলবার (২৮ মে) বিকেলে এ ঘটনায় ১৭ লাখ টাকার ক্ষতিপূরণ চেয়ে থানায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত খামারি জসিম উদ্দিন লিটন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ব্যাটারি কারখানা সংলগ্ন ক্ষেত থেকে ঘাস কেটে গরুকে দেন জসিম উদ্দিন লিটন। ওই ঘাস খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে আটটি গরু। গরুর অবস্থা খারাপ দেখে খামারে তিনটি গরু জবাই করে ও পাঁচটি গরু কসাইর কাছে স্বল্পমূল্যে বিক্রি করে দেন। এর আগেও একই কারণে কয়েকটি গরু মারা যাওয়ার কারণে কারখানাটি বন্ধ করে দেয়। সম্প্রতি আবারও চালু করায় এমন ঘটনা ঘটেছে।

খামার মালিক জসিম উদ্দিন লিটন বলেন, পাঁচ বছর ধরে খামার করেছি। কোনদিন অসুবিধা হয়নি। প্রথম ব্যাটারি কারখানা সংলগ্ন ক্ষেত থেকে ঘাস খাওয়ানোর কারণে গরুগুলো অসুস্থ হয়েছে। এতে আমার ১৭ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। বাকি গরুগুলো নিয়ে চিন্তায় আছি। যদি এগুলোরও সমস্যা হয়, তাহলে পথে বসা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না।

এদিকে কারখানা মালিক সোহেল বলেন, সামান্য পরিবেশ দূষণ হলেও হতে পারে। এছাড়া পরিবেশ অধিদফতরের ছাড়পত্র ছাড়া অন্য সব কাগজপত্র রয়েছে। যেহেতু মানুষের ক্ষতি হয়, সেহেতু কারখানাটি বন্ধ করে দিবো।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. শ্যামল চন্দ্র দাস বলেন, খবর পাওয়া পর আমি খামারে যাই। ঘাসের মধ্যে বিষাক্ত মিশ্রিত গ্যাস ছিল। যার কারণে গরুগুলো অসুস্থ হয়ে পড়ে।

মতলব উত্তর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন রনি বলেন, এ বিষয়ে একটি অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।