ঢাকা ০৫:১৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের সমাবেশে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ

চাঁদপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে আন্দোলনকারীরা। অন্যদিকে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানো গ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এ সময় পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মী ও পথচারীসহ কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছে।

Model Hospital

৯ মার্চ বুধবার বিকেল ৪টার দিকে চাঁদপুর শহরের নতুন বাজার এলাকায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় একটি খোলা ট্রাকের উপরে অস্থায়ী প্যান্ডেল স্থাপন করে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করছিল জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার পর স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীরা এলাকা ত্যাগ করেন। পরে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন। ঘটনাস্থল থেকে রাস্তায় বের করা ট্রাক জব্দ করে পুলিশ।

খবর পেয়ে চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন,চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুর রশিদ মিয়া, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুজন কান্তি বড়ুয়া, সেকেন্ড অফিসার মোহাম্মদ লোকমান হোসেন, এস আই রাশেদুজ্জামান, এস আই আবু হানিফ, নতুন বাজার ফাঁড়ির পুলিশ সদস্য ও ডিবি পুলিশ সদস্যরাসহ প্রায় একশত পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন।

এর আগে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের আয়োজনে চাল, ডাল, তেল গ্যাস সহ বিভিন্ন দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। বিকেল ৪ টায় শহরের পৌর ঈদগাহ মাঠ থেকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক হযরত আলী ঢালী ও সদস্য সচিব কাজী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে একটি বিশাল মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের পাল বাজার এলাকা থেকে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে গিয়ে সমাবেশ শুরু করেন। সেখানে তারা একটি খোলা ট্রাকের উপরে অস্থায়ী প্যান্ডেল স্থাপন করে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

বিক্ষোভ সমাবেশটি প্রায় শেষের দিকে পুলিশের সঙ্গে স্বেচ্ছাসেবক দলের সংঘর্ষ ঘটে। প্রতিবাদ সমাবেশে বাঁধা প্রদান করায় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। কয়েক মিনিটের মধ্যে সেখানে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ সদস্যরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করেন।

এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা,পুলিশ সদস্য ও পথচারীরা দৌঁড়ে পালাতে গিয়ে অন্তত ৫০ জন কম বেশী আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। ঘটনার পরপরই ওই সড়ক দিয়ে কয়েক ঘণ্টার জন্য যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিলো। বর্তমানে ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব কাজী ইব্রাহীম জুয়েল জানান, বিনা উস্কানিতে পুলিশ আমাদের ওপর হামলা চালায়। এতে দলীয় নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ইটপাটকেল ছোড়ে। এসময় অন্তত ৫০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি জানান, বিএনপির নেতাকর্মীরা রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে সড়কের ওপর সমাবেশ করছিল। এতে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় পুলিশ বাঁধা দিলে বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। যে ট্রাকটির উপর দাঁড়িয়ে সমাবেশ করেছিল সেটি আমরা জব্দ করেছি। যাদের কারণে এই ঘটনার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও তিনি জানান।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

কি হবে আর ছবি তুলে!

চাঁদপুরে স্বেচ্ছাসেবক দলের সমাবেশে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ

আপডেট সময় : ০২:৫৬:০৪ অপরাহ্ন, বুধবার, ৯ মার্চ ২০২২

চাঁদপুরে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছুড়ে আন্দোলনকারীরা। অন্যদিকে আন্দোলনকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানো গ্যাস ও ফাঁকা গুলি ছুড়েছে পুলিশ। এ সময় পুলিশ, স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মী ও পথচারীসহ কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়েছে।

Model Hospital

৯ মার্চ বুধবার বিকেল ৪টার দিকে চাঁদপুর শহরের নতুন বাজার এলাকায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় একটি খোলা ট্রাকের উপরে অস্থায়ী প্যান্ডেল স্থাপন করে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করছিল জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল। ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার পর স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা-কর্মীরা এলাকা ত্যাগ করেন। পরে বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন। ঘটনাস্থল থেকে রাস্তায় বের করা ট্রাক জব্দ করে পুলিশ।

খবর পেয়ে চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন,চাঁদপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আব্দুর রশিদ মিয়া, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সুজন কান্তি বড়ুয়া, সেকেন্ড অফিসার মোহাম্মদ লোকমান হোসেন, এস আই রাশেদুজ্জামান, এস আই আবু হানিফ, নতুন বাজার ফাঁড়ির পুলিশ সদস্য ও ডিবি পুলিশ সদস্যরাসহ প্রায় একশত পুলিশ সদস্য ঘটনাস্থলে অবস্থান করেন।

এর আগে চাঁদপুর জেলা স্বেচ্ছাসেবকদলের আয়োজনে চাল, ডাল, তেল গ্যাস সহ বিভিন্ন দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। বিকেল ৪ টায় শহরের পৌর ঈদগাহ মাঠ থেকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক হযরত আলী ঢালী ও সদস্য সচিব কাজী মোহাম্মদ আলীর নেতৃত্বে একটি বিশাল মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি শহরের পাল বাজার এলাকা থেকে জেলা বিএনপি কার্যালয়ের সামনে গিয়ে সমাবেশ শুরু করেন। সেখানে তারা একটি খোলা ট্রাকের উপরে অস্থায়ী প্যান্ডেল স্থাপন করে দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করে।

বিক্ষোভ সমাবেশটি প্রায় শেষের দিকে পুলিশের সঙ্গে স্বেচ্ছাসেবক দলের সংঘর্ষ ঘটে। প্রতিবাদ সমাবেশে বাঁধা প্রদান করায় বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন। কয়েক মিনিটের মধ্যে সেখানে ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে পুলিশ সদস্যরা কয়েক রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও টিয়ারসেল নিক্ষেপ করেন।

এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা,পুলিশ সদস্য ও পথচারীরা দৌঁড়ে পালাতে গিয়ে অন্তত ৫০ জন কম বেশী আহত হয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। ঘটনার পরপরই ওই সড়ক দিয়ে কয়েক ঘণ্টার জন্য যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছিলো। বর্তমানে ওই এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব কাজী ইব্রাহীম জুয়েল জানান, বিনা উস্কানিতে পুলিশ আমাদের ওপর হামলা চালায়। এতে দলীয় নেতাকর্মীরা ক্ষিপ্ত হয়ে ইটপাটকেল ছোড়ে। এসময় অন্তত ৫০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

তিনি জানান, বিএনপির নেতাকর্মীরা রাস্তা বন্ধ করে দিয়ে সড়কের ওপর সমাবেশ করছিল। এতে যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটায় পুলিশ বাঁধা দিলে বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের ওপর হামলা চালায়। যে ট্রাকটির উপর দাঁড়িয়ে সমাবেশ করেছিল সেটি আমরা জব্দ করেছি। যাদের কারণে এই ঘটনার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে বলেও তিনি জানান।