ঢাকা ০৪:০৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নিষেধাজ্ঞা শেষে মধ্যরাতে পদ্মা-মেঘনায় ইলিশ শিকারে নামছেন জেলেরা

সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী : ইলিশ শিকারে টানা ২২ দিনের সরকারি নিষেধাজ্ঞার অবসান হচ্ছে আজ। আজ শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) রাত ১২ টা থেকে মাছ ধরা শুরু হবে। জেলেরা নতুন উদ্দ্যোমে নদীতে মাছ ধরার জন্য ইতিমধ্যেই সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। মৎস্য আড়ৎ গুলোতে আবার প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে পাবে। জেলেরা আশা করছে নদীতে অভিযান শেষে প্রচুর পরিমান ইলিশ পাবে।
এর আগে ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম হওয়ায় ৭ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত সাগর ও নদীতে মাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার। টানা ২২ দিন চাঁদপুরের মেঘনায়সহ ১০০ কিলোমিটার নদীতে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার। এসময় ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, মজুদ ও ক্রয়-বিক্রয় সম্পন্ন নিষিদ্ধ ঘোষণা করায় চাঁদপুর জেলার প্রায় ৪ হাজার  জেলে বেকার হয়ে পড়ে।
নিষেধাজ্ঞার সময় বিকল্প কর্মসংস্থান না থাকায় ধারদেনা করে চালিয়েছেন অনেক জেলে। জালে কাঙ্ক্ষিত ইলিশ ধরা পড়লে সেই ধারদেনা শোধ করে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী তারা।
জেলে পাড়া ঘুরে দেখা যায়, জেলেরা সাগরে নামার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তাই এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। কেউ জাল ঠিক করছেন আবার কেউ নৌকা মেরামত করছেন। মধ্যরাত হলেই সাগরে নেমে পড়বেন মাছ ধরার উদ্দেশ্যে।
জেলেরা জানান, সাগরে নামতে সবকিছুর প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। ইতিমধ্যে ইলিশ ধরার জাল সেলাই করা থেকে শুরু করে নৌকার ভাঙা অংশ মেরামত ও ইঞ্জিনসহ সকল কিছু ঠিক ঠাক করে নিয়েছেন জেলেরা। আজ নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে। রাতেই ইলিশ ধরতে নামতে পারবো। আবারও আমাদের সংসারের চাক ঘুরবে।
উল্লেখ্য নিষেধাজ্ঞা শেষে জেলেদের জালে কাঙ্খিত ইলিশ ধরা পড়লে, বিগত দিনের যে ধার-দেনা হয়েছে তা পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে আশা করছেন তারা।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

রমজানের আগেই ‘দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ কমিশন’ দাবি নতুনধারার

নিষেধাজ্ঞা শেষে মধ্যরাতে পদ্মা-মেঘনায় ইলিশ শিকারে নামছেন জেলেরা

আপডেট সময় : ০৯:৪০:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৮ অক্টোবর ২০২২
সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী : ইলিশ শিকারে টানা ২২ দিনের সরকারি নিষেধাজ্ঞার অবসান হচ্ছে আজ। আজ শুক্রবার (২৮ অক্টোবর) রাত ১২ টা থেকে মাছ ধরা শুরু হবে। জেলেরা নতুন উদ্দ্যোমে নদীতে মাছ ধরার জন্য ইতিমধ্যেই সকল ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে। মৎস্য আড়ৎ গুলোতে আবার প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে পাবে। জেলেরা আশা করছে নদীতে অভিযান শেষে প্রচুর পরিমান ইলিশ পাবে।
এর আগে ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম হওয়ায় ৭ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত সাগর ও নদীতে মাছ শিকারের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার। টানা ২২ দিন চাঁদপুরের মেঘনায়সহ ১০০ কিলোমিটার নদীতে ইলিশসহ সব ধরনের মাছ ধরায় নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে সরকার। এসময় ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরণ, মজুদ ও ক্রয়-বিক্রয় সম্পন্ন নিষিদ্ধ ঘোষণা করায় চাঁদপুর জেলার প্রায় ৪ হাজার  জেলে বেকার হয়ে পড়ে।
নিষেধাজ্ঞার সময় বিকল্প কর্মসংস্থান না থাকায় ধারদেনা করে চালিয়েছেন অনেক জেলে। জালে কাঙ্ক্ষিত ইলিশ ধরা পড়লে সেই ধারদেনা শোধ করে ঘুরে দাঁড়াতে পারবেন বলে আশাবাদী তারা।
জেলে পাড়া ঘুরে দেখা যায়, জেলেরা সাগরে নামার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তাই এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন। কেউ জাল ঠিক করছেন আবার কেউ নৌকা মেরামত করছেন। মধ্যরাত হলেই সাগরে নেমে পড়বেন মাছ ধরার উদ্দেশ্যে।
জেলেরা জানান, সাগরে নামতে সবকিছুর প্রস্তুতি শেষ পর্যায়ে। ইতিমধ্যে ইলিশ ধরার জাল সেলাই করা থেকে শুরু করে নৌকার ভাঙা অংশ মেরামত ও ইঞ্জিনসহ সকল কিছু ঠিক ঠাক করে নিয়েছেন জেলেরা। আজ নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে। রাতেই ইলিশ ধরতে নামতে পারবো। আবারও আমাদের সংসারের চাক ঘুরবে।
উল্লেখ্য নিষেধাজ্ঞা শেষে জেলেদের জালে কাঙ্খিত ইলিশ ধরা পড়লে, বিগত দিনের যে ধার-দেনা হয়েছে তা পুষিয়ে নিতে পারবেন বলে আশা করছেন তারা।