ঢাকা ১২:৫৪ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

রামগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় চাঁদপুর হাসপতালে ছাত্রলীগ সভাপতির মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার : লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় সাজ্জাদুর রহমান সজিব নামে এক ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়েছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন লক্ষ্মীপুরের পুলিশ সুপার ড. এ এইচ কামরুজ্জামান। নিহত সজিব রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ও একই ইউনিয়নের নয়নপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

Model Hospital

২৮ নভেম্বর রোববার বিকেল ৫টার দিকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এর আগে বিকেলে রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের নয়নপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের বাইরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনায় গুরুতর আহত হয় সজিব।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ জানয়, রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের পক্ষে সিলমারাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেতা সজিব মাথায় চাপাতি ও লাঠির আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হয়।

পরে এলাকাবাসী আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রায়হান মাহমুদ রুপক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সজিবেরে মাথায় গুরুতর আঘাত লাগায় প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে একটি বিশেষ দল ও প্রতিকের পক্ষে প্রকাশ্য ভোট প্রদানের অভিযোগ ও এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর গাড়ী ভাঙচুর করা হয়েছে। একই সঙ্গে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালানোর অভিযোগও পাওয়া গেছে একাধিক কেন্দ্রে। এসব কেন্দ্রের বাইরে কিছুক্ষন পর পর ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়েছে। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতায় কোনো ভোটকেন্দ্র দখলের কোন খবর পাওয়া যায়নি। এসব ঘটনায় অন্তত ২০ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

শাহরাস্তিতে নিজের পায়ুপথে ৬ ইঞ্চি ডাব প্রবেশ করিয়ে বিপাকে যুবক

রামগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় চাঁদপুর হাসপতালে ছাত্রলীগ সভাপতির মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৪:০৭:৫৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার : লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে নির্বাচনী সহিংসতায় সাজ্জাদুর রহমান সজিব নামে এক ছাত্রলীগ নেতা নিহত হয়েছে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন লক্ষ্মীপুরের পুলিশ সুপার ড. এ এইচ কামরুজ্জামান। নিহত সজিব রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি ও একই ইউনিয়নের নয়নপুর গ্রামের মৃত আব্দুস সাত্তারের ছেলে।

Model Hospital

২৮ নভেম্বর রোববার বিকেল ৫টার দিকে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নেওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। এর আগে বিকেলে রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউনিয়নের নয়নপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রের বাইরে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও স্বতন্ত্র প্রার্থী সমর্থকদের সংঘর্ষের ঘটনায় গুরুতর আহত হয় সজিব।

স্থানীয় এলাকাবাসী ও পুলিশ জানয়, রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুর ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের পক্ষে সিলমারাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে ছাত্রলীগ নেতা সজিব মাথায় চাপাতি ও লাঠির আঘাত পেয়ে গুরুতর আহত হয়।

পরে এলাকাবাসী আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রায়হান মাহমুদ রুপক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সজিবেরে মাথায় গুরুতর আঘাত লাগায় প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে একটি বিশেষ দল ও প্রতিকের পক্ষে প্রকাশ্য ভোট প্রদানের অভিযোগ ও এক স্বতন্ত্র প্রার্থীর গাড়ী ভাঙচুর করা হয়েছে। একই সঙ্গে ব্যালট পেপার ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা চালানোর অভিযোগও পাওয়া গেছে একাধিক কেন্দ্রে। এসব কেন্দ্রের বাইরে কিছুক্ষন পর পর ককটেল বিস্ফোরণ ঘটিয়ে আতঙ্ক সৃষ্টি করা হয়েছে। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের তৎপরতায় কোনো ভোটকেন্দ্র দখলের কোন খবর পাওয়া যায়নি। এসব ঘটনায় অন্তত ২০ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।