ঢাকা ০৯:০০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

রমজানে খাদ্যে ভেজাল দমনে চাঁদপুর সদরে স্যানিটারি ইন্সপেক্টরের ইফতারি দোকান পরিদর্শন

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে রোজাদারদের নিরাপদ খাদ্য ও ইফতার সরবরাহের জন্য চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারি ইন্সপেক্টর নীনা আক্তার ইফতারের দোকান পরিদর্শন অব্যাহত রেখেছেন।

Model Hospital

প্রথম রমজান থেকে তিনি শহর এবং গ্রামের দোকানগুলোর ইফতারের আইটেমগুলোর গুনগতমান দেখছেন। ইফতারের খাবারে যেন রং দেওয়া, বাসি খাবার, ফ্রিজের খাবারসহ স্বাস্থ্যর ক্ষতিকর খাবার যাতে ব্যবয়ীরা বিক্রি করতে না পারে তার জন্য তিনি কঠোর নির্দেশনা দিয়ে ব্যবসায়ীদের সচেতন করে যাচ্ছেন।

চাঁদপুর সদর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারি ইন্সপেক্টর নীনা আক্তার বলেন, আমি প্রথম রমজান থেকেই ইফতারের দোকানে পরিদর্শন করে যাচ্ছি। রমজানে যাতে রোজাদাররা নিরাপদ খাদ্য পায় তার জন্য সরকারি নিদের্শনা অনুযায়ী পরিদর্শন চলমান রাখছি। কোন ব্যবসায়ী যাতে খোলা খাবার বিক্রি না করে, খাবারে যাতে কোন প্রকার রং না মিশায়, পেড়া তেল ব্যবহার না করে, বাঁশি পচা খাবার না খাবায় তার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে, পরিদর্শন অব্যাহত রাখা হচ্ছে, ব্যবসায়ীরা যাতে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রাখে সে বিষয়ে ও বলা হচ্ছে ।

এ ছাড়া ফ্রিজে বাঁসি পঁচা খাবার আছে কিনা, সকাল এবং বিকাল দুই সময়ে আমি পরিদর্শনে যাই।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সুমন

রমজানে খাদ্যে ভেজাল দমনে চাঁদপুর সদরে স্যানিটারি ইন্সপেক্টরের ইফতারি দোকান পরিদর্শন

আপডেট সময় : ০২:০৩:১৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মার্চ ২০২৩

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে রোজাদারদের নিরাপদ খাদ্য ও ইফতার সরবরাহের জন্য চাঁদপুর সদর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারি ইন্সপেক্টর নীনা আক্তার ইফতারের দোকান পরিদর্শন অব্যাহত রেখেছেন।

Model Hospital

প্রথম রমজান থেকে তিনি শহর এবং গ্রামের দোকানগুলোর ইফতারের আইটেমগুলোর গুনগতমান দেখছেন। ইফতারের খাবারে যেন রং দেওয়া, বাসি খাবার, ফ্রিজের খাবারসহ স্বাস্থ্যর ক্ষতিকর খাবার যাতে ব্যবয়ীরা বিক্রি করতে না পারে তার জন্য তিনি কঠোর নির্দেশনা দিয়ে ব্যবসায়ীদের সচেতন করে যাচ্ছেন।

চাঁদপুর সদর উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্যানিটারি ইন্সপেক্টর নীনা আক্তার বলেন, আমি প্রথম রমজান থেকেই ইফতারের দোকানে পরিদর্শন করে যাচ্ছি। রমজানে যাতে রোজাদাররা নিরাপদ খাদ্য পায় তার জন্য সরকারি নিদের্শনা অনুযায়ী পরিদর্শন চলমান রাখছি। কোন ব্যবসায়ী যাতে খোলা খাবার বিক্রি না করে, খাবারে যাতে কোন প্রকার রং না মিশায়, পেড়া তেল ব্যবহার না করে, বাঁশি পচা খাবার না খাবায় তার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে, পরিদর্শন অব্যাহত রাখা হচ্ছে, ব্যবসায়ীরা যাতে তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রাখে সে বিষয়ে ও বলা হচ্ছে ।

এ ছাড়া ফ্রিজে বাঁসি পঁচা খাবার আছে কিনা, সকাল এবং বিকাল দুই সময়ে আমি পরিদর্শনে যাই।