ঢাকা ১০:৫০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

উৎসব মূখর পরিবেশে চাঁদপুর সরকারি কলেজে বর্ষবরণ

 চাঁসক : মেঘনা পাড়ের বাতিঘর বলে খ্যাত চাঁদপুর সরকারি কলেজে পবিত্র রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করে উৎসব মূখর পরিবেশে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ তথা বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নেয়া হয়।

Model Hospital

বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) সকাল আটটায় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষক-কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থী, বিএনসিসি, রেভার স্কাউটস এবং রেড-ক্রিসেন্ট সদস্যদের নানা রঙ-ঢঙে সাজানো মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রধান গেইট দিয়ে বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার কলেজ ক্যাম্পাসে শেষ হয়। সকাল ১০ টায় রাজু ভবনের সামনে অস্থায়ীভাবে নির্মিত প্যান্ডেলে শুরু হয় বর্ষবরণের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা সমবেত সংগীত দিয়ে শুরু হয় বর্ষবরণের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের ভাটিয়ালী, পল্লীগীতি, ভাওয়াইয়া, কবিতা আবৃত্তিতে মুখরিত ছিল কলেজ ক্যাম্পাস। কলেজ শিক্ষকদের মধ্যে পদার্থবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আহবায়ক মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন বাহার, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও সহকারী অধ্যাপক মোঃ খালেদ ইকবাল এবং উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক মোঃ শেখ সাদী সংগীত পরিবেশন করেন। বেলা ১২ টা পর্যন্ত চলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পরিবারের ছোট ছোট সদস্যদের নিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

বাংলা নববর্ষ ১৪২৯ উপলক্ষে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ এবং উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ আবুল খায়ের সরকার, বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজনে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। তাঁরা কলেজ পরিবারের শিক্ষক-কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থী, বিএনসিসি ক্যাডেটবৃন্দ, রোভারের সদস্যবৃন্দসহ চাঁদপুর বাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানান। সবার জন্য মঙ্গল বয়ে আনুক, ভাল কাটুক নতুন বছর এই প্রত্যাশা করে সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

নিজের বলার মতো একটা গল্প ফাউন্ডেশন’র চাঁদপুর জেলা শাখার উদ্যোক্তা মিটআপ

উৎসব মূখর পরিবেশে চাঁদপুর সরকারি কলেজে বর্ষবরণ

আপডেট সময় : ০৭:২৬:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২২

 চাঁসক : মেঘনা পাড়ের বাতিঘর বলে খ্যাত চাঁদপুর সরকারি কলেজে পবিত্র রমজানের পবিত্রতা রক্ষা করে উৎসব মূখর পরিবেশে বাঙালির প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ তথা বাংলা নববর্ষকে বরণ করে নেয়া হয়।

Model Hospital

বৃহস্পতিবার (১৪ এপ্রিল) সকাল আটটায় কলেজ ক্যাম্পাস থেকে শিক্ষক-কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থী, বিএনসিসি, রেভার স্কাউটস এবং রেড-ক্রিসেন্ট সদস্যদের নানা রঙ-ঢঙে সাজানো মঙ্গল শোভাযাত্রা প্রধান গেইট দিয়ে বের হয়ে শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার কলেজ ক্যাম্পাসে শেষ হয়। সকাল ১০ টায় রাজু ভবনের সামনে অস্থায়ীভাবে নির্মিত প্যান্ডেলে শুরু হয় বর্ষবরণের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা, অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা সমবেত সংগীত দিয়ে শুরু হয় বর্ষবরণের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষার্থীদের ভাটিয়ালী, পল্লীগীতি, ভাওয়াইয়া, কবিতা আবৃত্তিতে মুখরিত ছিল কলেজ ক্যাম্পাস। কলেজ শিক্ষকদের মধ্যে পদার্থবিদ্যা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের আহবায়ক মোহাম্মদ আলমগীর হোসেন বাহার, ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ও সহকারী অধ্যাপক মোঃ খালেদ ইকবাল এবং উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের প্রভাষক মোঃ শেখ সাদী সংগীত পরিবেশন করেন। বেলা ১২ টা পর্যন্ত চলে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা পরিবারের ছোট ছোট সদস্যদের নিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠান উপভোগ করেন।

বাংলা নববর্ষ ১৪২৯ উপলক্ষে কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর অসিত বরণ দাশ এবং উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোঃ আবুল খায়ের সরকার, বর্ষবরণ অনুষ্ঠান আয়োজনে সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান। তাঁরা কলেজ পরিবারের শিক্ষক-কর্মকর্তা, কর্মচারী, শিক্ষার্থী, বিএনসিসি ক্যাডেটবৃন্দ, রোভারের সদস্যবৃন্দসহ চাঁদপুর বাসীকে বাংলা নববর্ষের শুভেচ্ছা জানান। সবার জন্য মঙ্গল বয়ে আনুক, ভাল কাটুক নতুন বছর এই প্রত্যাশা করে সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষনা করা হয়।