ঢাকা ০২:২০ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আবু বকর মানিকের বদলি জনিত বিদায়ে যা বললেন মনিরুজ্জামান মানিক

চাঁদপুর সদর উপজেলার মৈশাদী ইউনিয়নের সদ্য বদলিকৃত ইউপি সচিব আবু বকর মানিকের বদলি জনিত বিদায়ে সাবেক জেলার শ্রেষ্ঠ, মৈশাদী ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিক তার ফেজবুকে তার কর্মদক্ষতা নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। লিখতে তিনি কার্পণ্য করেনি, সত্য অবিচল  সত্য।
একজন কর্মবান্ধব ইউপি সচিব হিসেবে ৬বছর তাকে সঙ্গ দিয়েছেন, জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হতে আবু বক্কর মানিক সব সময় থাকে বুদ্ধি পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন। নিচে মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিকের হুবাহুব স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো।
ইউপি সচিব মানিকের বদলি জনিত বিদায় মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক তালুকদার (মানিক)।নিঃসন্দেহে বলতে পারি একজন দক্ষ ও ভালোমানের জনবান্ধন ইউপি সচিব। মৈশাদী ইউনিয়নে (০৭) সাতবছর দায়িত্ব ও কর্তব্য নিষ্ঠার সাথে পালন করেছেন। সরকারি নির্দেশনায় গত (২৪/০৪/২০২২)ইং তারিখ বদলি হয়ে আশিকাটি ইউনিয়ন পরিষদ এ নিযুক্ত হয়েছেন। আমি প্রায় ৬ বছর চেয়ারম্যান থাকাকালিন তাকে কাছ থেকে দেখেছি। যখন যে দায়িত্ব দিয়েছি তা হাসিমুখে সুন্দর ও সঠিকভাবে পালন করেছেন। আমাদের ভিতর ভালো বুঝাপড়া ছিল। আসলে ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনা করতে চেয়ারম্যান, সচিব, মেম্বার ও তথ্য সেবার সাথে সমন্বয় ও ভালো সম্পর্ক তৈরি করতে না পারলে সে ইউনিয়নের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয় না। এ ক্ষেত্রে ইউপি সচিব মানিক ভালো দায়িত্ব পালন করে গেছেন। সরকারি এজেন্ডা বাস্তবায়নে ছিলেন সিদ্ধ হস্ত।
মৈশাদী ইউনিয়ন বিভিন্ন ক্ষেত্রে জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে তার ভুমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। সে আমাকে বিভিন্ন আইডিয়া দিতো আমি শুধু বাস্তবায়ন করে দিতাম। ইনোভেশন সফটওয়্যার তৈরি থেকে শুরু করে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের যে স্বপ্ন তা বাংলাদেশের মধ্যে সর্বপ্রথম মৈশাদী ইউনিয়ন ই বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আর সে কাজে মানিকের ভুমিকা ছিল যথেষ্ট।
আমার মরহুম আম্মা তাকে সন্তান তুল্য স্নেহ করতেন।
এই চৌকস ইউপি সচিবের জন্য মৈশাদী ইউনিয়ন বাসীর দোয়া থাকবে। আমারও তার প্রতি ও তার পরিবারের সকলের প্রতি সালাম ও দোয়া থাকবে।
যেখানে একজন চেয়ারম্যান সচিবের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও বাকবির্তক প্রায় সময় হয়ে থাকে, সেখানে চেয়ারম্যান যখন সচিবের বদলি জনিত বিদায়ে স্ট্যাটাস লিখে তখন করো বুঝার বাকী থাকেনা, কত ভাল মনে একজন সচিব হলে চেয়ারম্যান সচিবকে নিয়ে লিখে, ভাল থাকার প্রত্যাশা করে। মনিরুজ্জামান মানিকের ভাষ্যমতে সচিব আবু বকর মানিক একজন সৎ কর্মবান্ধব হিবেসে সচিবের দায়িত্ব পালন করেছে। রাষ্ট্রের সকল কর্মকান্ড যথাযথ ভাবে পালন করেছে।
সম্পাদনায় : সজীব খান
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

প্রধানমন্ত্রীর বিজয়ের গান গাইলেন সুনামগঞ্জের সাংবাদিক রাজু

আবু বকর মানিকের বদলি জনিত বিদায়ে যা বললেন মনিরুজ্জামান মানিক

আপডেট সময় : ০৩:৪৬:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ এপ্রিল ২০২২
চাঁদপুর সদর উপজেলার মৈশাদী ইউনিয়নের সদ্য বদলিকৃত ইউপি সচিব আবু বকর মানিকের বদলি জনিত বিদায়ে সাবেক জেলার শ্রেষ্ঠ, মৈশাদী ইউপি চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিক তার ফেজবুকে তার কর্মদক্ষতা নিয়ে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন। লিখতে তিনি কার্পণ্য করেনি, সত্য অবিচল  সত্য।
একজন কর্মবান্ধব ইউপি সচিব হিসেবে ৬বছর তাকে সঙ্গ দিয়েছেন, জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হতে আবু বক্কর মানিক সব সময় থাকে বুদ্ধি পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করেছেন। নিচে মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান মানিকের হুবাহুব স্ট্যাটাসটি তুলে ধরা হলো।
ইউপি সচিব মানিকের বদলি জনিত বিদায় মোহাম্মদ আবু বকর সিদ্দিক তালুকদার (মানিক)।নিঃসন্দেহে বলতে পারি একজন দক্ষ ও ভালোমানের জনবান্ধন ইউপি সচিব। মৈশাদী ইউনিয়নে (০৭) সাতবছর দায়িত্ব ও কর্তব্য নিষ্ঠার সাথে পালন করেছেন। সরকারি নির্দেশনায় গত (২৪/০৪/২০২২)ইং তারিখ বদলি হয়ে আশিকাটি ইউনিয়ন পরিষদ এ নিযুক্ত হয়েছেন। আমি প্রায় ৬ বছর চেয়ারম্যান থাকাকালিন তাকে কাছ থেকে দেখেছি। যখন যে দায়িত্ব দিয়েছি তা হাসিমুখে সুন্দর ও সঠিকভাবে পালন করেছেন। আমাদের ভিতর ভালো বুঝাপড়া ছিল। আসলে ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনা করতে চেয়ারম্যান, সচিব, মেম্বার ও তথ্য সেবার সাথে সমন্বয় ও ভালো সম্পর্ক তৈরি করতে না পারলে সে ইউনিয়নের উন্নয়ন ত্বরান্বিত হয় না। এ ক্ষেত্রে ইউপি সচিব মানিক ভালো দায়িত্ব পালন করে গেছেন। সরকারি এজেন্ডা বাস্তবায়নে ছিলেন সিদ্ধ হস্ত।
মৈশাদী ইউনিয়ন বিভিন্ন ক্ষেত্রে জেলার মধ্যে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে তার ভুমিকা ছিল উল্লেখযোগ্য। সে আমাকে বিভিন্ন আইডিয়া দিতো আমি শুধু বাস্তবায়ন করে দিতাম। ইনোভেশন সফটওয়্যার তৈরি থেকে শুরু করে গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানের যে স্বপ্ন তা বাংলাদেশের মধ্যে সর্বপ্রথম মৈশাদী ইউনিয়ন ই বাস্তবায়ন করা হয়েছে। আর সে কাজে মানিকের ভুমিকা ছিল যথেষ্ট।
আমার মরহুম আম্মা তাকে সন্তান তুল্য স্নেহ করতেন।
এই চৌকস ইউপি সচিবের জন্য মৈশাদী ইউনিয়ন বাসীর দোয়া থাকবে। আমারও তার প্রতি ও তার পরিবারের সকলের প্রতি সালাম ও দোয়া থাকবে।
যেখানে একজন চেয়ারম্যান সচিবের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও বাকবির্তক প্রায় সময় হয়ে থাকে, সেখানে চেয়ারম্যান যখন সচিবের বদলি জনিত বিদায়ে স্ট্যাটাস লিখে তখন করো বুঝার বাকী থাকেনা, কত ভাল মনে একজন সচিব হলে চেয়ারম্যান সচিবকে নিয়ে লিখে, ভাল থাকার প্রত্যাশা করে। মনিরুজ্জামান মানিকের ভাষ্যমতে সচিব আবু বকর মানিক একজন সৎ কর্মবান্ধব হিবেসে সচিবের দায়িত্ব পালন করেছে। রাষ্ট্রের সকল কর্মকান্ড যথাযথ ভাবে পালন করেছে।
সম্পাদনায় : সজীব খান