ঢাকা ১১:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফরিদগঞ্জে বেদম প্রহারে শিক্ষার্থী হাসপাতালে, লিখিত অভিযোগ

এস এম ইকবাল : স্কুল ব্যাগে শার্ট থাকায় শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন পাবেলকে বেত দিয়ে বেদম প্রহার করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান।

Model Hospital

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে স্কুল প্রধান শিক্ষকের বেদম প্রহারে এক শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছে। পরে আহতবস্থায় ওই শিক্ষার্থীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

৩১ অক্টোবর রবিবার উপজেলার বালিথুবা পূর্ব ইউনিয়নের দেইচর মডেল একাডেমিতে এ ঘটনা ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিউলী হরি।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন পাবেল (১৫) দেইচর মডেল একাডেমির দশম শ্রেণির মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী এবং একই এলাকার সর্বদা বাড়ির ছলেমান সর্দারের ছেলে।

আহত শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন পাবেল জানায়, আমি সকালে প্রাইভেট পড়তে স্কুল ড্রেস ব্যতীত একটি শার্ট গায় দিয়ে প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিলাম, যাওয়ার সময় স্কুল ড্রেসের শার্টটি ব্যাগে করে নিয়ে গিয়েছি, প্রাইভেট পড়ে আমি সরাসরি স্কুলে চলে আসি এবং স্কুল ড্রেসের শার্টটি গায় দিয়ে অন্য শার্টটি খুলে ব্যাগে রেখে দেই। প্রধান শিক্ষক আমার ব্যাগ তল্লাশী করে শার্টটি দেখতে পেয়ে আমাকে বেদম প্রহার করতে থাকে।

অভিযোগের কথা প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান স্বীকার করে বলেন, আমি তাকে মেরেছি, তবে এতটুকু আহত হবে, আমি বুঝতে পারিনি।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহ্ আলী রেজা আশ্রাফি জানান, আমি ঘটনা সম্পর্কে জেনেছি, এখন পর্যন্ত অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. কামরুল হাছান বলেন, অতিরিক্ত মারধরের কারণে ওই শিক্ষার্থীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়ে গেছে। জখম হয়ে যাওয়া স্থানগুলো ফুলে উঠেছে। ওই শিক্ষার্থীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিউলী হরি জানান, “আমি ঘটনাটি শুনেছি এবং লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

ট্যাগস :

ফরিদগঞ্জে বেদম প্রহারে শিক্ষার্থী হাসপাতালে, লিখিত অভিযোগ

আপডেট সময় : ০৩:২৬:২৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২১

এস এম ইকবাল : স্কুল ব্যাগে শার্ট থাকায় শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন পাবেলকে বেত দিয়ে বেদম প্রহার করেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান।

Model Hospital

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে স্কুল প্রধান শিক্ষকের বেদম প্রহারে এক শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছে। পরে আহতবস্থায় ওই শিক্ষার্থীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

৩১ অক্টোবর রবিবার উপজেলার বালিথুবা পূর্ব ইউনিয়নের দেইচর মডেল একাডেমিতে এ ঘটনা ঘটে বলে নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শিউলী হরি।

ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন পাবেল (১৫) দেইচর মডেল একাডেমির দশম শ্রেণির মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী এবং একই এলাকার সর্বদা বাড়ির ছলেমান সর্দারের ছেলে।

আহত শিক্ষার্থী সাব্বির হোসেন পাবেল জানায়, আমি সকালে প্রাইভেট পড়তে স্কুল ড্রেস ব্যতীত একটি শার্ট গায় দিয়ে প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিলাম, যাওয়ার সময় স্কুল ড্রেসের শার্টটি ব্যাগে করে নিয়ে গিয়েছি, প্রাইভেট পড়ে আমি সরাসরি স্কুলে চলে আসি এবং স্কুল ড্রেসের শার্টটি গায় দিয়ে অন্য শার্টটি খুলে ব্যাগে রেখে দেই। প্রধান শিক্ষক আমার ব্যাগ তল্লাশী করে শার্টটি দেখতে পেয়ে আমাকে বেদম প্রহার করতে থাকে।

অভিযোগের কথা প্রথমে অস্বীকার করলেও পরে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মিজানুর রহমান স্বীকার করে বলেন, আমি তাকে মেরেছি, তবে এতটুকু আহত হবে, আমি বুঝতে পারিনি।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহ্ আলী রেজা আশ্রাফি জানান, আমি ঘটনা সম্পর্কে জেনেছি, এখন পর্যন্ত অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ফরিদগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. কামরুল হাছান বলেন, অতিরিক্ত মারধরের কারণে ওই শিক্ষার্থীর শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম হয়ে গেছে। জখম হয়ে যাওয়া স্থানগুলো ফুলে উঠেছে। ওই শিক্ষার্থীকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার শিউলী হরি জানান, “আমি ঘটনাটি শুনেছি এবং লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”