ঢাকা ১১:৫২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১৭ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কচুয়ায় ১৪ বছর বয়সী কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টায় ধর্ষক শ্রীঘরে

মোঃ রাছেল : কচুয়ায় উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের হারিচাইল গ্রামে ১৪ বছর বয়সি এক কিশোরীকে জোর পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ধর্ষক মফিজুল ইসলাম (৬৪) কে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

Model Hospital

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগীর চাচী বাদী হয়ে কচুয়ায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী কিশোরীর মাকে পারিবারিক কলহের জেরধরে প্রায় ১০ বছর পূর্বে তালাক দেয় পিতা জামাল হোসেন । সেই থেকে ভুক্তভোগী মায়ের অবর্তমানে চাচী নাছিমার তত্বাবধানে লালিত পালিত হয়ে আসছে।

গত ৬ নভেম্বর নাছিমা ও তার চাচী শ্বাশুড়ী রোকসানা বেগম ফজরের নামাজ পড়া শেষে বাড়ির পাশে বাগানে পার্শ্ববর্তী প্রধানীয়া বাড়ির মফিজুল ইসলাম ও ভুক্তভোগী কিশোরীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে বাড়ির ও আশপাশের অন্যান্য লোকজনদেরকে তাৎক্ষনিত খবর দিয়ে ঘটনাস্থলে নিয়ে আসে।

এসময় ধর্ষক মফিজুল ইসলাম তড়িঘড়ি করে ঘটনাস্থল থেকে কেটে পড়ে। এ নিয়ে সুরাহ করার জন্য স্থানীয় লোকজনরা চেষ্টা নিয়ে ব্যর্থ হওয়ায় গতকাল ৭ নভেম্বর সোমবার কিশোরীর চাচী নাছিমা বেগম বাদী হয়ে কচুয়া থানায় একটি মামলা করেন । মামলা নং ৪।

এব্যাপরে কচুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল জানান, ভূক্তভোগী কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে থানায় মামলা রুজ হওয়ার সত্যতা স্বীকার করে জানান ধর্ষক মফিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করে গতকাল সোমবারই কোর্টে সোপর্দ করার মধ্যে দিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

শাহমাহমুদপুরে আ.লীগ নেতৃবৃন্দের সাথে ভাইস চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী এবিএম রেজওয়ানের মতবিনিময়

কচুয়ায় ১৪ বছর বয়সী কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টায় ধর্ষক শ্রীঘরে

আপডেট সময় : ১২:০৮:১৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ৭ নভেম্বর ২০২২

মোঃ রাছেল : কচুয়ায় উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের হারিচাইল গ্রামে ১৪ বছর বয়সি এক কিশোরীকে জোর পূর্বক ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে ধর্ষক মফিজুল ইসলাম (৬৪) কে গ্রেফতার করেছে থানা পুলিশ।

Model Hospital

এ ব্যাপারে ভুক্তভোগীর চাচী বাদী হয়ে কচুয়ায় থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।
মামলা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ভুক্তভোগী কিশোরীর মাকে পারিবারিক কলহের জেরধরে প্রায় ১০ বছর পূর্বে তালাক দেয় পিতা জামাল হোসেন । সেই থেকে ভুক্তভোগী মায়ের অবর্তমানে চাচী নাছিমার তত্বাবধানে লালিত পালিত হয়ে আসছে।

গত ৬ নভেম্বর নাছিমা ও তার চাচী শ্বাশুড়ী রোকসানা বেগম ফজরের নামাজ পড়া শেষে বাড়ির পাশে বাগানে পার্শ্ববর্তী প্রধানীয়া বাড়ির মফিজুল ইসলাম ও ভুক্তভোগী কিশোরীকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখতে পেয়ে বাড়ির ও আশপাশের অন্যান্য লোকজনদেরকে তাৎক্ষনিত খবর দিয়ে ঘটনাস্থলে নিয়ে আসে।

এসময় ধর্ষক মফিজুল ইসলাম তড়িঘড়ি করে ঘটনাস্থল থেকে কেটে পড়ে। এ নিয়ে সুরাহ করার জন্য স্থানীয় লোকজনরা চেষ্টা নিয়ে ব্যর্থ হওয়ায় গতকাল ৭ নভেম্বর সোমবার কিশোরীর চাচী নাছিমা বেগম বাদী হয়ে কচুয়া থানায় একটি মামলা করেন । মামলা নং ৪।

এব্যাপরে কচুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ ইব্রাহিম খলিল জানান, ভূক্তভোগী কিশোরীকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে থানায় মামলা রুজ হওয়ার সত্যতা স্বীকার করে জানান ধর্ষক মফিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করে গতকাল সোমবারই কোর্টে সোপর্দ করার মধ্যে দিয়ে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।