ঢাকা ০৫:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
মতলব উত্তরে বাবার কবর জিয়ারত শেষে নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময়

এখন থেকে আমরা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করব না : তানভীর হুদা

বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতা ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তানভীর হুদা বলেছেন, গত তিন-সাড়ে তিন বছর থেকেই আমরা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করছি। এখন থেকে আমরা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করব না। এখন থেকে শেখ হাসিনার পতনের আন্দোলন করব। কারণ খালেদা জিয়ার মুক্তির পূর্ব শর্ত হলো শেখ হাসিনার পতন। আমাদের নেত্রীর মুক্তি মানেই গোটা জাতির মুক্তি।

Model Hospital

সোমবার বিকেলে মতলব উত্তর উপজেলার খন্দকারকান্দি নিজ বাড়ীতে বাবা সাবেক মন্ত্রী নুরুল হুদার কবর জিয়ারত শেশে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে মত বিনিময় কালে তিনি এ কথা বলেন।

তানভীর হুদা জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভা থেকে নেতৃবৃন্দ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে গেলে তিনি শুভেচ্ছা গ্রহন করেন কিন্তু ফুল ধরেননি। এ ব্যাপারে তানভীর হুদা বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমান দেশে ফিরে না আসা পর্যন্ত তিনি কোন ফুলের শুভেচ্ছা গ্রহন ও কাউকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছাও জানাবেন না। নেতাকর্মীদের কষ্ট না নিতে অনুরোধ করেন।

জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তানভীর হুদা বলেন, আওয়ামী লীগ কোনো কিছুই তোয়াক্কা করে না। দেশের মানুষের অধিকার বঞ্চিত করে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করা এবং দেশের সম্পদ লুটপাট করে বিদেশে পাচার করা, এ ধারাবাহিকতা থাকলে একটা সময় দেখা যাবে এ দেশটাই থাকবে না। সেজন্য আমাদের একটাই শর্ত শেখ হাসিনার পতন চাই, স্বৈরতন্ত্রের পতন চাই, গণতন্ত্রের মুক্তি চাই। গণতন্ত্রের মুক্তি মানেই খালেদা জিয়ার মুক্তি। কারণ, সারা বিশ্বের মানুষ বিশ্বাস করে বেগম খালেদা জিয়া মাদার অব ডেমোক্রেসি।

বিএনপির এ নেতা বলেন, আমরা সবাই একমত পোষণ করেছি মাঠের আন্দোলনের। এখন শুধু একটি ডাকের অপেক্ষা। অর্থাৎ গণতন্ত্র মুক্তি মাঠের আন্দোলনের জন্য যে কাউকে একটা ডাক দিতে হবে।

তানভীর হুদা বলেন, সবারই একটা শেষ আছে। প্রশাসনের যারা দালালি করে তাদের একটা শেষ আছে। যারা দালালি করে তারা কখনো মর্যাদা পায় না। বর্তমানে প্রশাসনের অনেকেই ক্লান্ত যে দেশে কী হচ্ছে। এখন একটা আন্দোলন দরকার, তাহলেই দেখবেন প্রশাসন ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর জেলা বিএনপির সহ-কোষাধ্যক্ষ বশির আহমেদ, জেলা বিএনপি সদস্য আবদুল মান্নান লস্কর, উপজেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু।

সঞ্চালনা করেন, উপজেলা যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কবির হোসেন মজুমদার।

১৪ ইউনিয়নের ও ১টি পৌরসভার বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, তাঁতীদল, মৎসজীবী দল, ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

মতলব উত্তরে বাবার কবর জিয়ারত শেষে নেতাকর্মীদের সাথে মতবিনিময়

এখন থেকে আমরা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করব না : তানভীর হুদা

আপডেট সময় : ০৯:৫১:০৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৬ জুন ২০২৩

বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতা ও জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তানভীর হুদা বলেছেন, গত তিন-সাড়ে তিন বছর থেকেই আমরা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করছি। এখন থেকে আমরা বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করব না। এখন থেকে শেখ হাসিনার পতনের আন্দোলন করব। কারণ খালেদা জিয়ার মুক্তির পূর্ব শর্ত হলো শেখ হাসিনার পতন। আমাদের নেত্রীর মুক্তি মানেই গোটা জাতির মুক্তি।

Model Hospital

সোমবার বিকেলে মতলব উত্তর উপজেলার খন্দকারকান্দি নিজ বাড়ীতে বাবা সাবেক মন্ত্রী নুরুল হুদার কবর জিয়ারত শেশে দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে মত বিনিময় কালে তিনি এ কথা বলেন।

তানভীর হুদা জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হওয়ায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ও পৌরসভা থেকে নেতৃবৃন্দ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানাতে গেলে তিনি শুভেচ্ছা গ্রহন করেন কিন্তু ফুল ধরেননি। এ ব্যাপারে তানভীর হুদা বলেন, দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি ও তারেক রহমান দেশে ফিরে না আসা পর্যন্ত তিনি কোন ফুলের শুভেচ্ছা গ্রহন ও কাউকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছাও জানাবেন না। নেতাকর্মীদের কষ্ট না নিতে অনুরোধ করেন।

জেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তানভীর হুদা বলেন, আওয়ামী লীগ কোনো কিছুই তোয়াক্কা করে না। দেশের মানুষের অধিকার বঞ্চিত করে ক্ষমতা চিরস্থায়ী করা এবং দেশের সম্পদ লুটপাট করে বিদেশে পাচার করা, এ ধারাবাহিকতা থাকলে একটা সময় দেখা যাবে এ দেশটাই থাকবে না। সেজন্য আমাদের একটাই শর্ত শেখ হাসিনার পতন চাই, স্বৈরতন্ত্রের পতন চাই, গণতন্ত্রের মুক্তি চাই। গণতন্ত্রের মুক্তি মানেই খালেদা জিয়ার মুক্তি। কারণ, সারা বিশ্বের মানুষ বিশ্বাস করে বেগম খালেদা জিয়া মাদার অব ডেমোক্রেসি।

বিএনপির এ নেতা বলেন, আমরা সবাই একমত পোষণ করেছি মাঠের আন্দোলনের। এখন শুধু একটি ডাকের অপেক্ষা। অর্থাৎ গণতন্ত্র মুক্তি মাঠের আন্দোলনের জন্য যে কাউকে একটা ডাক দিতে হবে।

তানভীর হুদা বলেন, সবারই একটা শেষ আছে। প্রশাসনের যারা দালালি করে তাদের একটা শেষ আছে। যারা দালালি করে তারা কখনো মর্যাদা পায় না। বর্তমানে প্রশাসনের অনেকেই ক্লান্ত যে দেশে কী হচ্ছে। এখন একটা আন্দোলন দরকার, তাহলেই দেখবেন প্রশাসন ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

এ সময় বক্তব্য রাখেন, চাঁদপুর জেলা বিএনপির সহ-কোষাধ্যক্ষ বশির আহমেদ, জেলা বিএনপি সদস্য আবদুল মান্নান লস্কর, উপজেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু।

সঞ্চালনা করেন, উপজেলা যুবদলের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কবির হোসেন মজুমদার।

১৪ ইউনিয়নের ও ১টি পৌরসভার বিএনপি, যুবদল, স্বেচ্ছাসেবক দল, তাঁতীদল, মৎসজীবী দল, ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।