ঢাকা ০১:৪২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুর ৩ আসনে তৃণমূল নেতাকর্মীদের আস্থার প্রতীক জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ

চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, প্রবীণ রাজনীতিবিদ নাছির উদ্দিন আহমেদ চাঁদপুর ৩ সদর ও হাইমচর আসনে দলের নেতাকর্মীদের সুশৃঙ্খল রেখে অত্যান্ত বিচক্ষণতার সাথে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত রয়েছেন।
যার নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগ অতীতের তুলনায় অনেক বেশি শক্তিশালী। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নাছির উদ্দিন আহমেদ এর প্রতি আস্থা রেখে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করেন।
চাঁদপুর পৌরসভার ১শ’ ১৩ বছরের ইতিহাসে জনগণের ভোটে এখন পর্যন্ত মোট ২ বার মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়ে দীর্ঘ ১৫ বছর সততা, ন্যায়পরায়নতা, উন্নয়ন ও সেবামূলক কাজের মাধ্যমে জেলার সর্বসাধারণের নিকট ইতোমধ্যে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন নাছির উদ্দিন আহমেদ। সাধারণত মেয়রদের বিরুদ্ধে পৌরবাসীর অভিযোগের অন্ত থাকে না। তবে এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম মেয়র ছিলেন নাছির উদ্দিন আহমেদ। সাধারণ মানুষের মতোই জীবনযাপন করেন তিনি। এছাড়া সমাজের সাধারণ মানুষ খুব সহজেই তার কাছে পৌঁছে নিজেদের সুবিধা অসুবিধার কথা বলতে পারেন। দলীয় ব্যক্তিবর্গ থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ তার নিকট এসে কখনও আশাহত হন না। তিনি একজন কর্মীবান্ধব দেশপ্রেমিক ও দলকে তার জীবনের চেয়েও বেশি ভালবাসেন।
সম্প্রতি সময়ে বিএনপি বিভিন্ন জেলায় আন্দোলন সংগ্রাম করার চেষ্টা চালালেও চাঁদপুরে তেমন কোন কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেনি। বিভিন্ন রাজনৈতিক মহল মনে করেন এ জেলা আওয়ামী লীগের শক্তিশালী দূর্গ হবার কারণেই বিএনপি আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ নেই।
জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতৃবৃন্দের সাথে কথা হলে তারা বলেন, নাছির উদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগের শক্তিশালী ও সুসংগঠিত।
স্থানীয় একাধিক নেতাকর্মীরা জানান, নাছির উদ্দিন আহমেদ ৫৩ বছর আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। উনার রাজনৈতি বিচক্ষণ শক্তি প্রবল। তিনি দক্ষতার সাথে জেলার রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছেন। সন্তানের মতো তিনি দলের নেতাকর্মীদের আগলে রেখেছেন। এছড়াও একে একে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের খবর নেন তিনি। কেউ অসুস্থ হলে ছুটে যান তার বাড়িতে। কারো স্বজন মারা গেলে, বিয়ে শাদী ও দোয়া মাহফিল থেকে শুরু করে পারিবারিক বিভিন্ন অনুষ্টানে যোগ দিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশে গিয়ে দাঁড়ান কর্মীবান্ধব এই নেতা। অসচ্ছল নেতাকর্মীদের আর্থিক সহায়তাসহ ও বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন তিনি। সমস্যাগ্রস্ত নেতাকর্মীদের প্রতি ভালোবাসা রেখে এভাবেই কেটে যাচ্ছে প্রবীণ রাজনীতিবিদ নাছির উদ্দিন আহমেদের রাজনীতি। তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে বইছে আলোচনার ঝড়। প্রতিনিয়তই বৃদ্ধি পাচ্ছে তার জনপ্রিয়তা ও সমর্থন। সৎ ও যোগ্যতার মাপকাঠিতে নাছির উদ্দিন আহমেদ দলমত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে নেতাকর্মীদের মনে ঠাঁই করে নিয়েছেন।
নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগই একমাত্র দল যারা বাংলাদেশের কল্যাণের কথা চিন্ত করে।’ আওয়ামী লীগ দেশের জনগণের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠেছে এবং এই দলটির মাধ্যমেই দেশের প্রতিটি অর্জন এসেছে।
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণের সংগঠন এবং এটি জনগণের জন্য কাজ করবে, এটাই আমাদের একমাত্র অঙ্গীকার।’ দেশে আওয়ামী লীগই একমাত্র দল-যারা স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স প্রবর্তন ও ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা প্রস্তুত করার মাধ্যমে ভোটের অধিকার নিশ্চিত করে মানুষের আস্থা অর্জন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রত্যন্ত গ্রামবাসীদের প্রায় সকল নাগরিক সুযোগ-সুবিধা পৌঁছে দিয়েছে। যেকোন দুর্যোগে সব সময়ই মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে আর এভাবেই দলটি মানুষের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করেছে।
তিনি আরও বলেন, ‘দুখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাব এবং জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ কাজ করছে। বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। আর এই উন্নয়নশীল দেশের অবস্থান ধরে রাখতে আমাদের আরো সামনে এগিয়ে যেতে হবে।’
উল্লেখ্য, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান থেকে নাছির উদ্দিন আহমেদ রাজনীতির সাথে জড়িত, তিনি চাঁদপুর পৌরসভার দুইবারের সফল মেয়র ও ২৪ বছর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ৮ বছর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

মতলব উত্তরে কাপ-পিরিচ প্রতীকে উঠান বৈঠক ও ব্যাপক গণসংযোগ

চাঁদপুর ৩ আসনে তৃণমূল নেতাকর্মীদের আস্থার প্রতীক জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ

আপডেট সময় : ১০:৩৮:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ নভেম্বর ২০২৩
চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, প্রবীণ রাজনীতিবিদ নাছির উদ্দিন আহমেদ চাঁদপুর ৩ সদর ও হাইমচর আসনে দলের নেতাকর্মীদের সুশৃঙ্খল রেখে অত্যান্ত বিচক্ষণতার সাথে রাজনীতিতে সম্পৃক্ত রয়েছেন।
যার নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগ অতীতের তুলনায় অনেক বেশি শক্তিশালী। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা নাছির উদ্দিন আহমেদ এর প্রতি আস্থা রেখে চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করেন।
চাঁদপুর পৌরসভার ১শ’ ১৩ বছরের ইতিহাসে জনগণের ভোটে এখন পর্যন্ত মোট ২ বার মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হয়ে দীর্ঘ ১৫ বছর সততা, ন্যায়পরায়নতা, উন্নয়ন ও সেবামূলক কাজের মাধ্যমে জেলার সর্বসাধারণের নিকট ইতোমধ্যে ব্যাপক সুনাম অর্জন করেছেন নাছির উদ্দিন আহমেদ। সাধারণত মেয়রদের বিরুদ্ধে পৌরবাসীর অভিযোগের অন্ত থাকে না। তবে এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম মেয়র ছিলেন নাছির উদ্দিন আহমেদ। সাধারণ মানুষের মতোই জীবনযাপন করেন তিনি। এছাড়া সমাজের সাধারণ মানুষ খুব সহজেই তার কাছে পৌঁছে নিজেদের সুবিধা অসুবিধার কথা বলতে পারেন। দলীয় ব্যক্তিবর্গ থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষ তার নিকট এসে কখনও আশাহত হন না। তিনি একজন কর্মীবান্ধব দেশপ্রেমিক ও দলকে তার জীবনের চেয়েও বেশি ভালবাসেন।
সম্প্রতি সময়ে বিএনপি বিভিন্ন জেলায় আন্দোলন সংগ্রাম করার চেষ্টা চালালেও চাঁদপুরে তেমন কোন কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারেনি। বিভিন্ন রাজনৈতিক মহল মনে করেন এ জেলা আওয়ামী লীগের শক্তিশালী দূর্গ হবার কারণেই বিএনপি আন্দোলনে সক্রিয় অংশগ্রহণ নেই।
জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতৃবৃন্দের সাথে কথা হলে তারা বলেন, নাছির উদ্দিন আহমেদের নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগের শক্তিশালী ও সুসংগঠিত।
স্থানীয় একাধিক নেতাকর্মীরা জানান, নাছির উদ্দিন আহমেদ ৫৩ বছর আওয়ামী লীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত। উনার রাজনৈতি বিচক্ষণ শক্তি প্রবল। তিনি দক্ষতার সাথে জেলার রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রেখেছেন। সন্তানের মতো তিনি দলের নেতাকর্মীদের আগলে রেখেছেন। এছড়াও একে একে তৃণমূলের নেতাকর্মীদের খবর নেন তিনি। কেউ অসুস্থ হলে ছুটে যান তার বাড়িতে। কারো স্বজন মারা গেলে, বিয়ে শাদী ও দোয়া মাহফিল থেকে শুরু করে পারিবারিক বিভিন্ন অনুষ্টানে যোগ দিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের পাশে গিয়ে দাঁড়ান কর্মীবান্ধব এই নেতা। অসচ্ছল নেতাকর্মীদের আর্থিক সহায়তাসহ ও বিভিন্ন ভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন তিনি। সমস্যাগ্রস্ত নেতাকর্মীদের প্রতি ভালোবাসা রেখে এভাবেই কেটে যাচ্ছে প্রবীণ রাজনীতিবিদ নাছির উদ্দিন আহমেদের রাজনীতি। তৃণমূল নেতাকর্মীদের মাঝে বইছে আলোচনার ঝড়। প্রতিনিয়তই বৃদ্ধি পাচ্ছে তার জনপ্রিয়তা ও সমর্থন। সৎ ও যোগ্যতার মাপকাঠিতে নাছির উদ্দিন আহমেদ দলমত ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে নেতাকর্মীদের মনে ঠাঁই করে নিয়েছেন।
নাছির উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘আওয়ামী লীগই একমাত্র দল যারা বাংলাদেশের কল্যাণের কথা চিন্ত করে।’ আওয়ামী লীগ দেশের জনগণের মধ্য দিয়ে গড়ে উঠেছে এবং এই দলটির মাধ্যমেই দেশের প্রতিটি অর্জন এসেছে।
তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ জনগণের সংগঠন এবং এটি জনগণের জন্য কাজ করবে, এটাই আমাদের একমাত্র অঙ্গীকার।’ দেশে আওয়ামী লীগই একমাত্র দল-যারা স্বচ্ছ ব্যালট বাক্স প্রবর্তন ও ছবিযুক্ত ভোটার তালিকা প্রস্তুত করার মাধ্যমে ভোটের অধিকার নিশ্চিত করে মানুষের আস্থা অর্জন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রত্যন্ত গ্রামবাসীদের প্রায় সকল নাগরিক সুযোগ-সুবিধা পৌঁছে দিয়েছে। যেকোন দুর্যোগে সব সময়ই মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে আর এভাবেই দলটি মানুষের বিশ্বাস ও আস্থা অর্জন করেছে।
তিনি আরও বলেন, ‘দুখী মানুষের মুখে হাসি ফোটাব এবং জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামীলীগ কাজ করছে। বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। আর এই উন্নয়নশীল দেশের অবস্থান ধরে রাখতে আমাদের আরো সামনে এগিয়ে যেতে হবে।’
উল্লেখ্য, ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান থেকে নাছির উদ্দিন আহমেদ রাজনীতির সাথে জড়িত, তিনি চাঁদপুর পৌরসভার দুইবারের সফল মেয়র ও ২৪ বছর পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ৮ বছর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।