ঢাকা ০৭:৩৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

জয় বাংলা মিছিলে এক সাহসী কর্মীর নাম অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন

জামাত বিএনপির দুঃশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রামে একটি ত্যাগী ও আদর্শিক কর্মী, বারবার পুলিশ ও বিএনপি হাতে নির্যাতনের স্বীকার হওয়া থেকে শুরু করে আজ অবধি ছাত্র রাজনীতি থেকে আওয়ামী লীগের সকল আন্দোলন সংগ্রামে জয় বাংলা মিছিলে এক সাহসী কর্মীর নাম অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন।

Model Hospital

যিনি চাঁদপুরের কৃতী সন্তান, ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী, বর্তমান চাঁদপুর সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক।

দলের দুঃসময়সহ প্রতিক্ষণেই তিনি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার অগ্রগামী সকল বাণী নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সবার কাছে পৌঁছে দেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে হুমায়ুন কবির সুমন জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন। ব্যক্তি পরোপকারী এই মানুষটি নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হলেও দলের হয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে সর্বত্র ছুটে চলেছেন মাঠে ময়দানে। আর তাই যোগ্য ও পরীক্ষিত নেতা হিসেবেই তিনি ছাত্রনেতা হতে এখন নেতৃত্ব দিচ্ছেন যুবলীগের।

হুমায়ুন কবির সুমনের চাঁদপুর জেলা, উপজেলা এবং পাশ্ববর্তী এলাকাগুলোতে রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি ও ভাবমূর্তি। তিনি এলাকার মানবসেবার এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। এলাকায় দলীয় লোকজন ছাড়াও জনসাধারণ, শিক্ষক, ছাত্র ও সাধারণ মানুষসহ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি। হুমায়ুন কবির সুমন অত্যন্ত নম্রভদ্র বিনয়ী ও সেবাকর্মী বান্ধব নেতা।

আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীরা জানান, তার মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য রয়েছে অফুরন্ত ভালোবাসা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে দলের পক্ষে ব্যক্তিগত উদ্যোগে মহামারি করোনায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন। এমনকি করোনায় মৃতরোগীর দাফন ও সৎকারে অনেকে এগিয়ে না এলেও তিনি সক্রিয়ভাবে ভূমিকা রেখেছেন।

হুমায়ুন কবির সুমন খালেদা জিয়ার দুঃশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে অগণিত বার পুলিশ ও বিএনপির হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। মামলা হামলা নির্যাতন সত্ত্বেও এ সাহসী যোদ্ধা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করার তিনি প্রতিনিয়ত রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। হুমায়ুন কবির সুমন দলের সাংগঠনিক দায়িত্ব পালনে সব সময়ই ছুটে গেছেন। নানা গ্রুপিং হটিয়ে তৃণমূলে সম্মেলনের মাধ্যমে তুলে এনেছেন বিতর্কমুক্ত নেতৃত্ব। দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় সর্বোচ্চ সজাগ ছিলেন।

দৈনিক বাংলাদেশের আলোর সঙ্গে আলাপকালে হুমায়ুন কবির সুমন বলেন, আমি একজন রাজনৈতিক কর্মী। ১৯৯৫ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির মধ্য দিয়ে আমার রাজনৈতিক পথচলা শুরু হয়। পারিবারিকভাবেই মানুষের সেবা করার শিক্ষা পেয়েছি।

তিনি আরো বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে ও বর্তমান আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। রাজনীতিতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে মানুষের বিপদে আপদে আমার প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী বর্তমান সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি’র কর্মী হিসেবে পাশে থেকেছি। কখনো নিজেকে নেতা হিসেবে মনে করিনি। কখনো ক্ষমতার অপব্যবহার করিনি।

আওয়ামী লীগ মানেই অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটানো, আওয়ামী লীগ মানেই আর্ত-মানবতার সেবায় সকলের পাশে থেকে কাজ করা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মানেই দেশপ্রেম। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল একটি উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু আজ সেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে বেঁচে নেই। কিন্তু তার সুযোগ্য কন্যা উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে গৃহীত পদক্ষেপগুলো বাস্তব করে যাচ্ছে। আমি একজন কর্মী হিসেবে আমার প্রিয় নেত্রীর নির্দেশনা ও চাহিদা অনুযায়ী আমার কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছি।

জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতেই উন্নয়ন, অগ্রগতি, সমৃদ্ধি দেশ ও দেশের সার্বভৌমত্ত নিরাপদ।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

ঈদে স্ত্রীকে মাংস কিনে খাওয়াতে না পেরে চিরকুট লিখে আত্মহত্যা

জয় বাংলা মিছিলে এক সাহসী কর্মীর নাম অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন

আপডেট সময় : ০৮:২৮:৪১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

জামাত বিএনপির দুঃশাসনের বিরুদ্ধে লড়াই সংগ্রামে একটি ত্যাগী ও আদর্শিক কর্মী, বারবার পুলিশ ও বিএনপি হাতে নির্যাতনের স্বীকার হওয়া থেকে শুরু করে আজ অবধি ছাত্র রাজনীতি থেকে আওয়ামী লীগের সকল আন্দোলন সংগ্রামে জয় বাংলা মিছিলে এক সাহসী কর্মীর নাম অ্যাড. হুমায়ুন কবির সুমন।

Model Hospital

যিনি চাঁদপুরের কৃতী সন্তান, ছাত্রলীগের সাবেক নেতা ও চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী, বর্তমান চাঁদপুর সদর উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক।

দলের দুঃসময়সহ প্রতিক্ষণেই তিনি সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার অগ্রগামী সকল বাণী নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে সবার কাছে পৌঁছে দেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মাণে হুমায়ুন কবির সুমন জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন। ব্যক্তি পরোপকারী এই মানুষটি নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে হলেও দলের হয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে সর্বত্র ছুটে চলেছেন মাঠে ময়দানে। আর তাই যোগ্য ও পরীক্ষিত নেতা হিসেবেই তিনি ছাত্রনেতা হতে এখন নেতৃত্ব দিচ্ছেন যুবলীগের।

হুমায়ুন কবির সুমনের চাঁদপুর জেলা, উপজেলা এবং পাশ্ববর্তী এলাকাগুলোতে রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি ও ভাবমূর্তি। তিনি এলাকার মানবসেবার এক উজ্জ্বল নক্ষত্র। এলাকায় দলীয় লোকজন ছাড়াও জনসাধারণ, শিক্ষক, ছাত্র ও সাধারণ মানুষসহ সবার কাছে গ্রহণযোগ্য ব্যক্তি। হুমায়ুন কবির সুমন অত্যন্ত নম্রভদ্র বিনয়ী ও সেবাকর্মী বান্ধব নেতা।

আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতা কর্মীরা জানান, তার মধ্যে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্য রয়েছে অফুরন্ত ভালোবাসা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে দলের পক্ষে ব্যক্তিগত উদ্যোগে মহামারি করোনায় খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করে অসহায় মানুষের পাশে দাড়িয়েছেন। এমনকি করোনায় মৃতরোগীর দাফন ও সৎকারে অনেকে এগিয়ে না এলেও তিনি সক্রিয়ভাবে ভূমিকা রেখেছেন।

হুমায়ুন কবির সুমন খালেদা জিয়ার দুঃশাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন করতে গিয়ে অগণিত বার পুলিশ ও বিএনপির হাতে নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। মামলা হামলা নির্যাতন সত্ত্বেও এ সাহসী যোদ্ধা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক হিসেবে দলীয় সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করার তিনি প্রতিনিয়ত রাজনৈতিক কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। হুমায়ুন কবির সুমন দলের সাংগঠনিক দায়িত্ব পালনে সব সময়ই ছুটে গেছেন। নানা গ্রুপিং হটিয়ে তৃণমূলে সম্মেলনের মাধ্যমে তুলে এনেছেন বিতর্কমুক্ত নেতৃত্ব। দলীয় শৃঙ্খলা রক্ষায় সর্বোচ্চ সজাগ ছিলেন।

দৈনিক বাংলাদেশের আলোর সঙ্গে আলাপকালে হুমায়ুন কবির সুমন বলেন, আমি একজন রাজনৈতিক কর্মী। ১৯৯৫ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির মধ্য দিয়ে আমার রাজনৈতিক পথচলা শুরু হয়। পারিবারিকভাবেই মানুষের সেবা করার শিক্ষা পেয়েছি।

তিনি আরো বলেন, আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে বুকে ধারণ করে ও বর্তমান আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে দলের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। রাজনীতিতে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে ধারণ করে মানুষের বিপদে আপদে আমার প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী বর্তমান সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি এমপি’র কর্মী হিসেবে পাশে থেকেছি। কখনো নিজেকে নেতা হিসেবে মনে করিনি। কখনো ক্ষমতার অপব্যবহার করিনি।

আওয়ামী লীগ মানেই অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটানো, আওয়ামী লীগ মানেই আর্ত-মানবতার সেবায় সকলের পাশে থেকে কাজ করা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ মানেই দেশপ্রেম। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিল একটি উন্নত সমৃদ্ধ সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা করা। কিন্তু আজ সেই মহান নেতা বঙ্গবন্ধু আমাদের মাঝে বেঁচে নেই। কিন্তু তার সুযোগ্য কন্যা উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে গৃহীত পদক্ষেপগুলো বাস্তব করে যাচ্ছে। আমি একজন কর্মী হিসেবে আমার প্রিয় নেত্রীর নির্দেশনা ও চাহিদা অনুযায়ী আমার কার্যক্রম পরিচালনা করে যাচ্ছি।

জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতেই উন্নয়ন, অগ্রগতি, সমৃদ্ধি দেশ ও দেশের সার্বভৌমত্ত নিরাপদ।