ঢাকা ০৯:০০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মিজানুর রহমান রানার মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস : রক্তে রঞ্জিত ধূসর পদচিহ্ন

এবারের বইমেলার শেষ দিকে প্রকাশিত হয়েছে মিজানুর রহমান রানার মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস : রক্তে রঞ্জিত ধূসর পদচিহ্ন। বইটি প্রিয় বাংলার প্রকাশনীর ‘প্রিয় চয়েস’ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার অর্জন করে সম্পূর্ণ বিনাখরচে প্রকাশিত হয়।

Model Hospital

কেন পড়বেন এই উপন্যাস?

চাঁদপুর ও কুমিল্লা অঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ঐতিহ্য’র একাংশ নিয়ে রচিত। মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশাজীবী মানুষের সাহসী ও করুণ ইতিহাস এবং বর্তমান অবস্থান।

হাজীগঞ্জের রাজাকার বাচ্চুর মুক্তিযুদ্ধকালীন বিতর্কিত কর্মকাণ্ড এবং তার প্রতিশোধ। রুশো নামের একজন সাংবাদিকের দেশের জন্যে কাজ করতে গিয়ে যুদ্ধকালীন সময়ের নির্মম প্রাণদান। এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক বীরাঙ্গনাদের জন্যে নানা উদারতার কথা। দেশের জন্যে কীভাবে কোন প্রতিজ্ঞায় মুক্তিযোদ্ধাদের অক্লান্ত জীবন বাজি রেখে কঠিন যুদ্ধ এছাড়াও আরো নানা কাহিনী রয়েছে উপন্যাসটিতে।

ফরিদগঞ্জের একজন মুক্তিযোদ্ধার পিতাকে কীভাবে রাজাকাররা নির্মমভাবে হত্যা করেছিল সেটা জানতে পারবেন। চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেডে কীভাবে মুক্তিযোদ্ধা, সাধারণ মানুষ ও নারীদেরকে নির্মমভাবে নির্যাতন করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হতো তা জানতে পারবেন। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধকালীন চাঁদপুরের একজন মহীয়সী নারী চিকিৎসকের মুক্তিযুদ্ধের অবদান সম্পর্কিত কাহিনী আছে।

সর্বোপরি চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের বিষয়ে জানতে হলে এই বইটি পড়তে পারেন। আশা করছি অবশ্যই বইটি পড়ে তৃপ্ত হবেন।

বইটি পাওয়া যাচ্ছে রকমারী ডটকম, প্রিয় বাংলা ডট নেট, দারাজ ডট কম, ইত্যাদি শপ ডট কম, বই বাজার ডট কম ও বই পূরণ ডট কমে।

ট্যাগস :

মিজানুর রহমান রানার মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস : রক্তে রঞ্জিত ধূসর পদচিহ্ন

আপডেট সময় : ০৭:০৬:০১ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ মার্চ ২০২৪

এবারের বইমেলার শেষ দিকে প্রকাশিত হয়েছে মিজানুর রহমান রানার মুক্তিযুদ্ধের উপন্যাস : রক্তে রঞ্জিত ধূসর পদচিহ্ন। বইটি প্রিয় বাংলার প্রকাশনীর ‘প্রিয় চয়েস’ পাণ্ডুলিপি পুরস্কার অর্জন করে সম্পূর্ণ বিনাখরচে প্রকাশিত হয়।

Model Hospital

কেন পড়বেন এই উপন্যাস?

চাঁদপুর ও কুমিল্লা অঞ্চলের মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ঐতিহ্য’র একাংশ নিয়ে রচিত। মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন শ্রেণি ও পেশাজীবী মানুষের সাহসী ও করুণ ইতিহাস এবং বর্তমান অবস্থান।

হাজীগঞ্জের রাজাকার বাচ্চুর মুক্তিযুদ্ধকালীন বিতর্কিত কর্মকাণ্ড এবং তার প্রতিশোধ। রুশো নামের একজন সাংবাদিকের দেশের জন্যে কাজ করতে গিয়ে যুদ্ধকালীন সময়ের নির্মম প্রাণদান। এছাড়াও মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু এবং মুক্তিযুদ্ধের পরবর্তী সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কর্তৃক বীরাঙ্গনাদের জন্যে নানা উদারতার কথা। দেশের জন্যে কীভাবে কোন প্রতিজ্ঞায় মুক্তিযোদ্ধাদের অক্লান্ত জীবন বাজি রেখে কঠিন যুদ্ধ এছাড়াও আরো নানা কাহিনী রয়েছে উপন্যাসটিতে।

ফরিদগঞ্জের একজন মুক্তিযোদ্ধার পিতাকে কীভাবে রাজাকাররা নির্মমভাবে হত্যা করেছিল সেটা জানতে পারবেন। চাঁদপুর বড় স্টেশন মোলহেডে কীভাবে মুক্তিযোদ্ধা, সাধারণ মানুষ ও নারীদেরকে নির্মমভাবে নির্যাতন করে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হতো তা জানতে পারবেন। এছাড়া মুক্তিযুদ্ধকালীন চাঁদপুরের একজন মহীয়সী নারী চিকিৎসকের মুক্তিযুদ্ধের অবদান সম্পর্কিত কাহিনী আছে।

সর্বোপরি চাঁদপুরের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের বিষয়ে জানতে হলে এই বইটি পড়তে পারেন। আশা করছি অবশ্যই বইটি পড়ে তৃপ্ত হবেন।

বইটি পাওয়া যাচ্ছে রকমারী ডটকম, প্রিয় বাংলা ডট নেট, দারাজ ডট কম, ইত্যাদি শপ ডট কম, বই বাজার ডট কম ও বই পূরণ ডট কমে।