ঢাকা ০৩:৫৮ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ফরিদগঞ্জে ইউপি সদস্যের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া করতে গিয়ে নেতা ধরাশায়ী!

নিজস্ব প্রতিনিধি : ফরিদগঞ্জের ৩ নং সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মনির হোসেন তেলিসাইর গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য প্রবাসী হাবিবের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া করতে গিয়ে রাতের আধাঁরে ধরাশায়ীর অভিযোগ পাওয়া যায়।
এই ঘটনায় সোমবার বিকেলে স্থানীয় এলাকাবাসী অভিযুক্ত ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি মনির হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

Model Hospital

ঘটনাটি গত ২৩ জুলাই শনিবার রাত ১০ টার দিকে মোল্লা বাড়ীর প্রবাসী হাবিব মেম্বারের ঘরে ঘটেছে।

ঘটনার বিবরনে জানাযায়, তেলিসাইর মিজি বাড়ীর হাজী আবিদ মিয়ার ছেলে বিএনপি নেতা মো. মনির হোসেন গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য হাবিব মেম্বারের স্ত্রীর সাথে প্রায় রাতে দেখা করতে যায়। তাদের পরকীয়ার বিষয়টি বাড়ী ও এলাকার লোকমুখে কানাঘোষা শুরু হলে জোট বাদে কয়েকজন সচেতন যুবক। ঘটনার দিন রাত ১০ টার দিকে সংগোপনে বিএনপি নেতা মনির হোসেন তার সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবের ঘরে প্রবেশ করলে এর প্রায় ২০ মিনিট পর বাড়ীর সাখাওয়াত হোসেন, আব্দুল কাদের, ইয়ানবীসহ কয়েকজন যুবক তাকে হাতেনাতে আটক করতে সক্ষম হয়।

বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার স্থানীয় মুকলেছুর রহমান মোল্লা, আব্দুল মমিন ও রাশেদ পাটোয়ারী তাৎক্ষণিক বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করে।

জানাযায়, সাবেক ইউপি সদস্য হাবিব বর্তমানে প্রবাসে আছে। বিএনপি নেতা মনির হোসেন এরই মধ্যে সৌদিআরব থেকে দেশে আসলে মেম্বারের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া সম্পর্ক জোরদার হয়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরের দিন পরকীয়ায় ধরাশায়ী বিএনপি নেতা মনির হোসেন দলবল নিয়ে রাতে আটকৃতদের হুমকি ধমকি অব্যাহত রাখে। এ ঘটনাকে কেন্দ্রকরে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানাযায়।

গত কিছুদিন পূর্বে এ বিএনপি নেতা মনির হোসেন একই এলাকার ইউনিয়ন ছাত্রদলের যুগ্ন-সাধারন সম্পাদ মামুন হোসেনকে সন্ত্রাসী কায়দা তুলে নিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। বছরে কয়েকবার দেশে আসা যাওয়ায় মধ্যে বিএনপি নেতা মনির হোসেন দলের বাহিরেও বিভিন্ন শ্রেণীর লোকজনকে নগদ অর্থের লোভ দেখিয়ে এলাকায় আদিপত্য বিস্তার করে আসছে। যে কারনে তার অর্থের ভয়ে কেউ তার সামনে এসে অন্যায়কর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। তাই এ গ্রামের সচেতনমহলেরর দাবি প্রশাসন যেন বিএনপি নেতা মনির হোসেনের এসব অসামাজিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করে।

পরকীয়ার ঘটনায় আটককারী মুকলেছুর রহমান মোল্লা ও আব্দুল মমিন বলেন, আমাদের কাছে সকল প্রমাণ আছে। বিএনপি নেতা মনির সবাইকে টাকা দিয়ে কিনতে চায়। আমরা সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে তাদের অবৈধ কার্যকালাপ হাতেনাতে ধরেছি। বাকিটা সমাজ ও আইন বিচার করবে। তবে আমাদেরকে বিভিন্নভাবে মনির হোসেন হুমকি ধমকি দিয়ে আসছে।

ধরাশায়ীর বিষয়ে সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মনির হোসেন বলেন, আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার স্বীকার। সেই রাতে আমি আমার বন্ধু ও আত্মীয় সম্পর্ক হাবিব মেম্বারের ঘরে প্রবেশ করিনাই। জানালা দিয়ে ভাবি ও বাচ্ছাদের সাথে কথা বলা অবস্থায় অন্যায় ভাবে কয়েকজন যুবক আমাকে চার্জ করে বসে। এতে আমার মানহানি হয়েছে। কাউকে কোন হুমকি ধমকি দেইনি। আমি ও মেম্বারের স্ত্রী তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলার প্রস্ততি নিচ্ছি।

তেলিসাইর গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য জাকির হোসেন বলেন, সেই দিন রাতের বেলায় আমার কাছে ফোন এসেছে। আমি পরে জানতে পেরেছি বিষয়টি সমাধান হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

শহীদ মিনারে শিশু-কিশোরা, শহীদদের ফুলেল শ্রদ্ধায় হৃদয়ে জাগরন সৃষ্টি

ফরিদগঞ্জে ইউপি সদস্যের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া করতে গিয়ে নেতা ধরাশায়ী!

আপডেট সময় : ০১:২৭:৪১ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৫ জুলাই ২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধি : ফরিদগঞ্জের ৩ নং সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মনির হোসেন তেলিসাইর গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য প্রবাসী হাবিবের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া করতে গিয়ে রাতের আধাঁরে ধরাশায়ীর অভিযোগ পাওয়া যায়।
এই ঘটনায় সোমবার বিকেলে স্থানীয় এলাকাবাসী অভিযুক্ত ওয়ার্ড বিএনপি সভাপতি মনির হোসেনের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন।

Model Hospital

ঘটনাটি গত ২৩ জুলাই শনিবার রাত ১০ টার দিকে মোল্লা বাড়ীর প্রবাসী হাবিব মেম্বারের ঘরে ঘটেছে।

ঘটনার বিবরনে জানাযায়, তেলিসাইর মিজি বাড়ীর হাজী আবিদ মিয়ার ছেলে বিএনপি নেতা মো. মনির হোসেন গ্রামের সাবেক ইউপি সদস্য হাবিব মেম্বারের স্ত্রীর সাথে প্রায় রাতে দেখা করতে যায়। তাদের পরকীয়ার বিষয়টি বাড়ী ও এলাকার লোকমুখে কানাঘোষা শুরু হলে জোট বাদে কয়েকজন সচেতন যুবক। ঘটনার দিন রাত ১০ টার দিকে সংগোপনে বিএনপি নেতা মনির হোসেন তার সাবেক ইউপি সদস্য হাবিবের ঘরে প্রবেশ করলে এর প্রায় ২০ মিনিট পর বাড়ীর সাখাওয়াত হোসেন, আব্দুল কাদের, ইয়ানবীসহ কয়েকজন যুবক তাকে হাতেনাতে আটক করতে সক্ষম হয়।

বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকার স্থানীয় মুকলেছুর রহমান মোল্লা, আব্দুল মমিন ও রাশেদ পাটোয়ারী তাৎক্ষণিক বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করে।

জানাযায়, সাবেক ইউপি সদস্য হাবিব বর্তমানে প্রবাসে আছে। বিএনপি নেতা মনির হোসেন এরই মধ্যে সৌদিআরব থেকে দেশে আসলে মেম্বারের স্ত্রীর সাথে পরকীয়া সম্পর্ক জোরদার হয়।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরের দিন পরকীয়ায় ধরাশায়ী বিএনপি নেতা মনির হোসেন দলবল নিয়ে রাতে আটকৃতদের হুমকি ধমকি অব্যাহত রাখে। এ ঘটনাকে কেন্দ্রকরে এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানাযায়।

গত কিছুদিন পূর্বে এ বিএনপি নেতা মনির হোসেন একই এলাকার ইউনিয়ন ছাত্রদলের যুগ্ন-সাধারন সম্পাদ মামুন হোসেনকে সন্ত্রাসী কায়দা তুলে নিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। বছরে কয়েকবার দেশে আসা যাওয়ায় মধ্যে বিএনপি নেতা মনির হোসেন দলের বাহিরেও বিভিন্ন শ্রেণীর লোকজনকে নগদ অর্থের লোভ দেখিয়ে এলাকায় আদিপত্য বিস্তার করে আসছে। যে কারনে তার অর্থের ভয়ে কেউ তার সামনে এসে অন্যায়কর্মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না। তাই এ গ্রামের সচেতনমহলেরর দাবি প্রশাসন যেন বিএনপি নেতা মনির হোসেনের এসব অসামাজিক কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করে।

পরকীয়ার ঘটনায় আটককারী মুকলেছুর রহমান মোল্লা ও আব্দুল মমিন বলেন, আমাদের কাছে সকল প্রমাণ আছে। বিএনপি নেতা মনির সবাইকে টাকা দিয়ে কিনতে চায়। আমরা সামাজিক দায়বদ্ধতা থেকে তাদের অবৈধ কার্যকালাপ হাতেনাতে ধরেছি। বাকিটা সমাজ ও আইন বিচার করবে। তবে আমাদেরকে বিভিন্নভাবে মনির হোসেন হুমকি ধমকি দিয়ে আসছে।

ধরাশায়ীর বিষয়ে সুবিদপুর পূর্ব ইউনিয়ন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মনির হোসেন বলেন, আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার স্বীকার। সেই রাতে আমি আমার বন্ধু ও আত্মীয় সম্পর্ক হাবিব মেম্বারের ঘরে প্রবেশ করিনাই। জানালা দিয়ে ভাবি ও বাচ্ছাদের সাথে কথা বলা অবস্থায় অন্যায় ভাবে কয়েকজন যুবক আমাকে চার্জ করে বসে। এতে আমার মানহানি হয়েছে। কাউকে কোন হুমকি ধমকি দেইনি। আমি ও মেম্বারের স্ত্রী তাদের বিরুদ্ধে থানায় মামলার প্রস্ততি নিচ্ছি।

তেলিসাইর গ্রামের বর্তমান ইউপি সদস্য জাকির হোসেন বলেন, সেই দিন রাতের বেলায় আমার কাছে ফোন এসেছে। আমি পরে জানতে পেরেছি বিষয়টি সমাধান হয়েছে।