ঢাকা ০৮:১৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

হলো না ভারতের রান উৎসব, গুটিয়ে গেল ২৪০ রানে

পুরো আসরজুড়ে দাপুটে ব্যাটিং করে গেছে ভারত। বোলিংটাও হয়েছে তাদের দুর্দান্ত। ব্যাট-বলের দুর্বার পারফরম্যান্সে অপরাজিত থেকে ফাইনালে নাম লেখে রোহিত শর্মারা। ক্রিকেট অনুরাগীদের প্রত্যাশা ছিল শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচেও ব্যাটিং তাণ্ডব চালাবে ভারতীয় ব্যাটাররা। কিন্তু সেই প্রত্যাশাটা স্বপ্ন হয়েই রয়ে গেল। হলো না রান উৎসব। অস্ট্রেলিয়ান পেস ঝড়ে অল্প রানেই গুটিয়ে গেল আয়োজকদের ইনিংস। মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স ও জশ হ্যাজলউডের পেস বোলিং ঝড়ে সবকটি উইকেট হারিয়ে কোনোমতে ২৪০ রানের পুঁজি গড়ল ভারত। ব্যাট হাতে লড়লেন কেবল লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি আর রোহিত শর্মা। ত্রয়ী তারকা ব্যাট হাতে দৃঢ়তা না দেখালে লজ্জাজনক স্কোরেই থামতে হতো তাদের। ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জিততে অজিদের দরকার এখন ২৪১।

Model Hospital

অস্ট্রেলিয়ানদের বোলিং তোপের মাঝে আলো ছড়িয়ে গেছেন বিরাট কোহলি। আদায় করে নিয়েছেন দারুণ এক ফিফটি। তবে হাফ-সেঞ্চুরিকে জাদুকরী তিন অঙ্কে রূপ দিতে পারেননি ভারতের সাবেক এ ক্যাপ্টেন। তবে লোকেশ রাহুল পঞ্চাশ ছোঁয়া ইনিংস খেলে ছুটে চলছিলেন সেঞ্চুরির পানে। কিন্তু নাহ! দুর্ভাগ্য! তিনিও পারেননি। ফিফটিতেই সন্তুষ্ট থাকলেন রাহুল। ৬৬ রানের দুর্বার এক ইনিংস খেলে মিচেল স্টার্কের আগুন বোলিংয়ে সাজঘরের পথ ধরেন তারকা এ ব্যাটার।

অজিদের বোলিং তোপে শুরুতেই তিন উইকেট হারিয়ে বিপদেই পড়ে গিয়েছিল ভারত। তবে বিরাট কোহলির ব্যাটিং দৃঢ়তায় সেই বিপদ কাটিয়ে উঠার সাহস দেখিয়ে যাচ্ছিল স্বাগতিকরা। লোকেশ রাহুলের সঙ্গে বড় জুটি গড়ার আভাস দিচ্ছিলেন। কিন্তু নিজের ইনিংসটি বড় করতে পারেননি ভারতের সাবেক অধিনায়ক কোহলি। ফিফটি হাঁকিয়েই প্যাট কামিন্সের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে ৬৩ বলে ৪ বাউন্ডারিতে দলের প্রয়োজনে খেলেন ৫৪ রানের দাপুটে এক ইনিংস। কোহলির বিদায়ে ফের চাপটা বেড়ে যায় ভারতের। যেটা আর কেউ সামাল দিতে পারেনি।

অজিদের দুরন্ত বোলিংয়ের জবাবে ভারতীয়দের ব্যাটিংও হচ্ছে দুর্দান্ত। তবে শুরুর তোপে ভারত হারিয়ে ফেলে তিন উইকেট। তাতেই পড়ে যায় চাপে। সেখান থেকেই ভারতীয় ইনিংসের গড়বড়ের শুরু। প্রথম তোপটা দাগান মিচের স্টার্ক। ৪ রান নিয়ে অ্যাডাম জাম্পার হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে যান গিল। দারুণ ব্যাটিং করেও ফিফটি মিস করেন রোহিত শর্মা। ৪৭ রানে সন্তুষ্ট থেকে ভারতীয় ক্যাপ্টেন ফিরেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বলে ট্রাভিস হেডের তালুবন্দি হয়ে। আর শ্রেয়াস আইয়ারকে ব্যক্তিগত ৪ রানে হতাশ করেন প্যাট কামিন্স।

বিশ্বকাপের শুরুটা ভালো কাটেনি। উইকেট পেতেই বেগ পেতে হয়েছে মিচেল স্টার্কের। কিন্তু আসরের শেষ দিকে ফর্মে ফেরেন মিচেল স্টার্ক। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সেমিফাইনালে নেন তিন উইকেট। আজ ভারতের বিপক্ষে ফাইনালেও তারকা এ অজি পেসার পেলেন ৩ উইকেট। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে দুটি করে উইকেট নেন জশ হ্যাজলউড ও প্যাট কামিন্স। একটি করে উইকেট পেয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও অ্যাডাম জাম্পা।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

উদয়ন প্রিমিয়ার লীগ ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা ও পুরস্কার বিতরণ সম্পূর্ণ

হলো না ভারতের রান উৎসব, গুটিয়ে গেল ২৪০ রানে

আপডেট সময় : ০৬:৫৪:২৮ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০২৩

পুরো আসরজুড়ে দাপুটে ব্যাটিং করে গেছে ভারত। বোলিংটাও হয়েছে তাদের দুর্দান্ত। ব্যাট-বলের দুর্বার পারফরম্যান্সে অপরাজিত থেকে ফাইনালে নাম লেখে রোহিত শর্মারা। ক্রিকেট অনুরাগীদের প্রত্যাশা ছিল শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচেও ব্যাটিং তাণ্ডব চালাবে ভারতীয় ব্যাটাররা। কিন্তু সেই প্রত্যাশাটা স্বপ্ন হয়েই রয়ে গেল। হলো না রান উৎসব। অস্ট্রেলিয়ান পেস ঝড়ে অল্প রানেই গুটিয়ে গেল আয়োজকদের ইনিংস। মিচেল স্টার্ক, প্যাট কামিন্স ও জশ হ্যাজলউডের পেস বোলিং ঝড়ে সবকটি উইকেট হারিয়ে কোনোমতে ২৪০ রানের পুঁজি গড়ল ভারত। ব্যাট হাতে লড়লেন কেবল লোকেশ রাহুল, বিরাট কোহলি আর রোহিত শর্মা। ত্রয়ী তারকা ব্যাট হাতে দৃঢ়তা না দেখালে লজ্জাজনক স্কোরেই থামতে হতো তাদের। ষষ্ঠ বিশ্বকাপ জিততে অজিদের দরকার এখন ২৪১।

Model Hospital

অস্ট্রেলিয়ানদের বোলিং তোপের মাঝে আলো ছড়িয়ে গেছেন বিরাট কোহলি। আদায় করে নিয়েছেন দারুণ এক ফিফটি। তবে হাফ-সেঞ্চুরিকে জাদুকরী তিন অঙ্কে রূপ দিতে পারেননি ভারতের সাবেক এ ক্যাপ্টেন। তবে লোকেশ রাহুল পঞ্চাশ ছোঁয়া ইনিংস খেলে ছুটে চলছিলেন সেঞ্চুরির পানে। কিন্তু নাহ! দুর্ভাগ্য! তিনিও পারেননি। ফিফটিতেই সন্তুষ্ট থাকলেন রাহুল। ৬৬ রানের দুর্বার এক ইনিংস খেলে মিচেল স্টার্কের আগুন বোলিংয়ে সাজঘরের পথ ধরেন তারকা এ ব্যাটার।

অজিদের বোলিং তোপে শুরুতেই তিন উইকেট হারিয়ে বিপদেই পড়ে গিয়েছিল ভারত। তবে বিরাট কোহলির ব্যাটিং দৃঢ়তায় সেই বিপদ কাটিয়ে উঠার সাহস দেখিয়ে যাচ্ছিল স্বাগতিকরা। লোকেশ রাহুলের সঙ্গে বড় জুটি গড়ার আভাস দিচ্ছিলেন। কিন্তু নিজের ইনিংসটি বড় করতে পারেননি ভারতের সাবেক অধিনায়ক কোহলি। ফিফটি হাঁকিয়েই প্যাট কামিন্সের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন তিনি। ফেরার আগে ৬৩ বলে ৪ বাউন্ডারিতে দলের প্রয়োজনে খেলেন ৫৪ রানের দাপুটে এক ইনিংস। কোহলির বিদায়ে ফের চাপটা বেড়ে যায় ভারতের। যেটা আর কেউ সামাল দিতে পারেনি।

অজিদের দুরন্ত বোলিংয়ের জবাবে ভারতীয়দের ব্যাটিংও হচ্ছে দুর্দান্ত। তবে শুরুর তোপে ভারত হারিয়ে ফেলে তিন উইকেট। তাতেই পড়ে যায় চাপে। সেখান থেকেই ভারতীয় ইনিংসের গড়বড়ের শুরু। প্রথম তোপটা দাগান মিচের স্টার্ক। ৪ রান নিয়ে অ্যাডাম জাম্পার হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফিরে যান গিল। দারুণ ব্যাটিং করেও ফিফটি মিস করেন রোহিত শর্মা। ৪৭ রানে সন্তুষ্ট থেকে ভারতীয় ক্যাপ্টেন ফিরেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের বলে ট্রাভিস হেডের তালুবন্দি হয়ে। আর শ্রেয়াস আইয়ারকে ব্যক্তিগত ৪ রানে হতাশ করেন প্যাট কামিন্স।

বিশ্বকাপের শুরুটা ভালো কাটেনি। উইকেট পেতেই বেগ পেতে হয়েছে মিচেল স্টার্কের। কিন্তু আসরের শেষ দিকে ফর্মে ফেরেন মিচেল স্টার্ক। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সেমিফাইনালে নেন তিন উইকেট। আজ ভারতের বিপক্ষে ফাইনালেও তারকা এ অজি পেসার পেলেন ৩ উইকেট। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে দুটি করে উইকেট নেন জশ হ্যাজলউড ও প্যাট কামিন্স। একটি করে উইকেট পেয়েছেন গ্লেন ম্যাক্সওয়েল ও অ্যাডাম জাম্পা।