ঢাকা ০১:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ১১ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখায়

চাঁদপুরে শ্রেষ্ঠ জয়িতা হলেন নাজমা আলম

প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে সামাজিক উন্নয়ন অবকাঠামো ঘটনের লক্ষে সমাজ উন্নয়নে ভূমিকা রাখায় চাঁদপুর জেলায় শ্রেষ্ঠ জয়িতা সম্মাননা পেয়েছেন চাঁদপুর উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক, জেলা যুব মহিলা লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর সংগঠনের আপ্যায়ন সম্পাদক
নাজমা আলম।
শনিবার (৯ ডিসেম্বর) জেলা প্রসাশকের সম্মেলন কক্ষে জয়িতা অন্বেষনে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় পাঁচ জয়িতাদের সম্মাননা প্রদান করেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। তারমধ্যে সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখা শ্রেষ্ঠ নারী জয়িতা হিসেবে নাজমা আলম জেলার শ্রেষ্ঠ ৫ জন জয়িতার মধ্যে একজন নির্বাচিত হন।
নাজমা আলমের জন্ম ও বেড়ে ওঠা চাঁদপুরে। পেশাগত দায়িত্বের জায়গা থেকে তিনি সমাজিক এমন কিছু কাজ করেছেন, যা সমাজের উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছেন। বাল্য বিবাহ নিরোধ, যৌতুক প্রথা নির্মূল, বিবাহ বিচ্ছেদ বন্ধের পাশাপাশি নারী সমাজের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান, সমাজে চরমভাবে অবহেলিত, নানা ধরনের নিপীড়নের শিকার ও পিছিয়ে থাকা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নিয়ে তিনি নিয়মিত কাজ করেন। তার এই কাজগুলো দেখে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সহযোগিতা পেয়েছেন সমাজের অবহেলিত মানুষ।
সম্মাননা প্রাপ্ত নাজমা আলম বলেন, আমি মনে করি সমাজ উন্নয়নে কাজ করতে হলে নিজের সদ্বিচ্ছা প্রয়োজন। তাহলে যে কেউ যার যার পেশাগত জায়গা থেকে সমাজ উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারবেন। উন্নত বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে একজন নারী শুধু গৃহিণী নয়, নিজের সাহসী চেষ্টায় একজন সফল উদ্যোক্তা হয়ে নিজের ও অন্যের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।
আমি চেষ্টা করেছি সামাজিকভাবে মানুষজনকে সাহায্য করতে। বিভিন্ন সময় আমার সেই চেষ্টায় সফলতা পেয়েছি। আমার কাজে অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সমাজে চরমভাবে অবহেলিত, নানা ধরনের নিপীড়নের শিকার মানুষদের। এটাই আমার বড় প্রাপ্তি।
এসময়পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বশির আহমেদ, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, জাতীয় মহিলা সংস্থা চাঁদপুর জেলা শাখার চেয়ারম্যান অধ্যাপিকা মাসুদা নূর খান। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর চাঁদপুর জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নাছিমা আক্তার, চাঁদপুর জেলা হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেল (ওসিসি)-এর প্রোগ্রাম অফিসার এসএম তানভীর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

মতলব উত্তরে কাপ-পিরিচ প্রতীকে উঠান বৈঠক ও ব্যাপক গণসংযোগ

সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখায়

চাঁদপুরে শ্রেষ্ঠ জয়িতা হলেন নাজমা আলম

আপডেট সময় : ০৮:০৪:৪১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী ২০২৪
প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে সামাজিক উন্নয়ন অবকাঠামো ঘটনের লক্ষে সমাজ উন্নয়নে ভূমিকা রাখায় চাঁদপুর জেলায় শ্রেষ্ঠ জয়িতা সম্মাননা পেয়েছেন চাঁদপুর উইমেন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক, জেলা যুব মহিলা লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর সংগঠনের আপ্যায়ন সম্পাদক
নাজমা আলম।
শনিবার (৯ ডিসেম্বর) জেলা প্রসাশকের সম্মেলন কক্ষে জয়িতা অন্বেষনে বাংলাদেশ’ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় পাঁচ জয়িতাদের সম্মাননা প্রদান করেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান। তারমধ্যে সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখা শ্রেষ্ঠ নারী জয়িতা হিসেবে নাজমা আলম জেলার শ্রেষ্ঠ ৫ জন জয়িতার মধ্যে একজন নির্বাচিত হন।
নাজমা আলমের জন্ম ও বেড়ে ওঠা চাঁদপুরে। পেশাগত দায়িত্বের জায়গা থেকে তিনি সমাজিক এমন কিছু কাজ করেছেন, যা সমাজের উন্নয়নে ভূমিকা রেখেছেন। বাল্য বিবাহ নিরোধ, যৌতুক প্রথা নির্মূল, বিবাহ বিচ্ছেদ বন্ধের পাশাপাশি নারী সমাজের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান, সমাজে চরমভাবে অবহেলিত, নানা ধরনের নিপীড়নের শিকার ও পিছিয়ে থাকা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের নিয়ে তিনি নিয়মিত কাজ করেন। তার এই কাজগুলো দেখে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সহযোগিতা পেয়েছেন সমাজের অবহেলিত মানুষ।
সম্মাননা প্রাপ্ত নাজমা আলম বলেন, আমি মনে করি সমাজ উন্নয়নে কাজ করতে হলে নিজের সদ্বিচ্ছা প্রয়োজন। তাহলে যে কেউ যার যার পেশাগত জায়গা থেকে সমাজ উন্নয়নে ভূমিকা রাখতে পারবেন। উন্নত বাংলাদেশের আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে একজন নারী শুধু গৃহিণী নয়, নিজের সাহসী চেষ্টায় একজন সফল উদ্যোক্তা হয়ে নিজের ও অন্যের কর্মসংস্থান সৃষ্টিতেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।
আমি চেষ্টা করেছি সামাজিকভাবে মানুষজনকে সাহায্য করতে। বিভিন্ন সময় আমার সেই চেষ্টায় সফলতা পেয়েছি। আমার কাজে অনেকেই সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন সমাজে চরমভাবে অবহেলিত, নানা ধরনের নিপীড়নের শিকার মানুষদের। এটাই আমার বড় প্রাপ্তি।
এসময়পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বশির আহমেদ, স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত নারী মুক্তিযোদ্ধা ডাঃ সৈয়দা বদরুন নাহার চৌধুরী, জাতীয় মহিলা সংস্থা চাঁদপুর জেলা শাখার চেয়ারম্যান অধ্যাপিকা মাসুদা নূর খান। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর চাঁদপুর জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নাছিমা আক্তার, চাঁদপুর জেলা হাসপাতালের ওয়ান-স্টপ ক্রাইসিস সেল (ওসিসি)-এর প্রোগ্রাম অফিসার এসএম তানভীর রশিদ উপস্থিত ছিলেন।