ঢাকা ০৬:২৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কচুয়ায় অগ্নিকাণ্ডে ২০ দোকান ভূস্মীভূত, কোটি টাকার ক্ষতি

চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার আলিয়ারা বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ছোটবড় ২০টি দোকান পুড়ে গেছে। এতে প্রায় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীরা।

Model Hospital

বুধবার ২৩ মে রাত ১০ টার আলিয়ারা বাজারে অখিল চন্দ্রের লন্ড্রী দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষ দর্শীরা।

খবর পেয়ে কচুয়া এবং মতলব দক্ষিন উপজেলার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের দুটি টীমসহ স্থানীয়রা মিলে প্রায় ১ ঘন্টা ব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। তৎক্ষনে ব্যবসায়ীদের ২০টি দোকান পুড়ে যায়। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে দোকানের মালামালসহ প্রায় কোটি টাকা ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেন ব্যবসায়ীরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আলিয়ারা বাজারের অখিল চন্দ্রের লন্ড্রী দোকান থেকে আগুনের লেলিহান শিখা দেখতে পাওয়া যায়।

মুহুর্তের মধ্যে আশে পাশের দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। এতে পরিমল ও সুভাস দেবনাথের ২টি ফার্মেসী,আ: মালেকের ১টি মুরগীর দোকান, গিয়াস উদ্দিনের ১টি মুদি দোকান , চন্দন, কামাল ও লিটনের মালামালের ৩টি মনোহরী দোকান ও মালামাল রাখার ৩টি গোডাউন, ধরেন্দ্র নাথের ১টি সেলুন, কামালের ১টি গ্যাস সিলিন্ডার দোকান , কামাল হোসেনের ১টি ফাস্ট ফুড দোকান, কাজলের ১টি ডেকোরেশনের দোকান ও কয়েকটি খালী দোকা ঘরসহ ছোট বড় ২০টি দোকান পুড়ে যায়।

সংবাদ পেয়ে রাতেই কচুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এহসান মুরাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীদের সহযোগীতা আশ্বাস দেন।

এসময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, ইউপি সদস্য সুজন উপস্থিত ছিলেন।

কচুয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মাহাতব মন্ডল জানান, ধারণা করা হচ্ছে, শর্ট-সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

গরু জবাই করার সময় হার্ট অ্যাটাকে মৃ’ত্যু

কচুয়ায় অগ্নিকাণ্ডে ২০ দোকান ভূস্মীভূত, কোটি টাকার ক্ষতি

আপডেট সময় : ০৯:৩৮:১২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার আলিয়ারা বাজারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ছোটবড় ২০টি দোকান পুড়ে গেছে। এতে প্রায় কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেছেন ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীরা।

Model Hospital

বুধবার ২৩ মে রাত ১০ টার আলিয়ারা বাজারে অখিল চন্দ্রের লন্ড্রী দোকান থেকে আগুনের সূত্রপাত হয় বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষ দর্শীরা।

খবর পেয়ে কচুয়া এবং মতলব দক্ষিন উপজেলার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের দুটি টীমসহ স্থানীয়রা মিলে প্রায় ১ ঘন্টা ব্যাপী চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। তৎক্ষনে ব্যবসায়ীদের ২০টি দোকান পুড়ে যায়। ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে দোকানের মালামালসহ প্রায় কোটি টাকা ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেন ব্যবসায়ীরা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আলিয়ারা বাজারের অখিল চন্দ্রের লন্ড্রী দোকান থেকে আগুনের লেলিহান শিখা দেখতে পাওয়া যায়।

মুহুর্তের মধ্যে আশে পাশের দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। এতে পরিমল ও সুভাস দেবনাথের ২টি ফার্মেসী,আ: মালেকের ১টি মুরগীর দোকান, গিয়াস উদ্দিনের ১টি মুদি দোকান , চন্দন, কামাল ও লিটনের মালামালের ৩টি মনোহরী দোকান ও মালামাল রাখার ৩টি গোডাউন, ধরেন্দ্র নাথের ১টি সেলুন, কামালের ১টি গ্যাস সিলিন্ডার দোকান , কামাল হোসেনের ১টি ফাস্ট ফুড দোকান, কাজলের ১টি ডেকোরেশনের দোকান ও কয়েকটি খালী দোকা ঘরসহ ছোট বড় ২০টি দোকান পুড়ে যায়।

সংবাদ পেয়ে রাতেই কচুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এহসান মুরাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং ক্ষতিগ্রস্থ ব্যবসায়ীদের সহযোগীতা আশ্বাস দেন।

এসময় স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন, ইউপি সদস্য সুজন উপস্থিত ছিলেন।

কচুয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মাহাতব মন্ডল জানান, ধারণা করা হচ্ছে, শর্ট-সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে।