ঢাকা ১১:৪২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

নৌকা প্রার্থীকে সমর্থন নয়, জনগণের স্বার্থে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিনিধি : চাঁদপুর সদর উপজেলার ২নং আশিকাটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে সহিংসতা রোধে জনগণের স্বার্থে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন মাস্টার।

Model Hospital

নৌকা মার্কার প্রার্থীকে সমর্থন নয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের লক্ষ্যে মেম্বার প্রার্থীদের কথা চিন্তা করে ও নির্বাচনে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হামলা ও খুন রাহাজানি যাতে না হয় সেদিকে চিন্তা করে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বলে জানিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মাস্টার।

৩ নভেম্বর বুৃধবার বিকেলে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে ইউনিয়ন পরিষদে সকল প্রার্থীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সম্প্রীতির সভায় তিনি নিজের প্রর্থীতা প্রত্যাহার করার ঘোষণা দেন।

এর আগে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী বিলাল হোসেন পাটোয়ারি তার বক্তব্যে নির্বাচনে সহিংসতা যাতে না হয় সেই লক্ষ্যে এবারের নির্বাচন থেকে চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন মাস্টার এবং ইসলামী আন্দোলন সমর্থিত হাত পাখা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদ গাজীকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ জানান।

তারপরেই চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. জেআর ওয়াদুদ টিপু শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দেওয়া ও কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি যাতে না হয় সেই লক্ষ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে এবার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ করেন। অবশেষে অনুষ্ঠান চলাকালে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন মাস্টার তার দলের নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা করে উন্নয়নের নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন।

ডা. জে আর ওয়াদুদ টিপু বলেন, ‘চাঁদপুরের সদরের প্রতিটি ইউনিয়নে নির্বাচন সুষ্ঠ হবে, এতে কোন সন্দেহ নেই। আর নির্বাচনে যে কোন একজন নির্বাচিত হবেন। তাই মারামারি হানাহানি করে লাভ নেই। দিনশেষে আমরা সবাই চাঁদপুরে বসবাস করবো। আজকে দেলোয়ার হোসেন মাস্টার নিজের এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে জনগণের কথা চিন্তা করে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। এটি সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে। আমরা আওয়ামী পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।’

চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মাস্টার বলেন, ‘আমি এর আগেও এই ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলাম। আমি আমার সর্বোচ্চ দিয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করেছি। এবছর বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও এলাকাবাসীর অনুরোধে আমি প্রার্থী হয়েছি।

এলাকার ভোটারদের বিশাল একটি অংশ আমার জন্য কাজ করেছে। আজকের এই সম্প্রীতি সমাবেশ এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আমাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। যদিও এই ঘোষণা আমার জন্য খুবই কষ্ট এবং বেদনাদায়ক। তবুও এলাকাবাসীর স্বার্থে, নির্বাচনে কোনো ধরনের সহিংসতা ও খুনাকুনি যাতে না হয় এবং এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আমি এই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।’

বিল্লাল হোসেন মাস্টার বলেন,আমি কখনোই বিএনপির সাথে দুর্ব্যাহার করিনি। তাদের মামলা হামলা করে হয়রানি করিনি। বিএনপি মেম্বারদের বেশি কাজ দিয়েছি। দলমত নির্বিশেষে ইউনিয়নবাসীর উন্নয়নে কাজ করেছি। এই বারের নির্বাচনে কোনো ধরনের সহিংসতা যাতে না হয় এলাকার মানুষের স্বার্থে স্বতন্ত্র প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মাস্টার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। তার এই উদারতা ইউনিয়নবাসী মনে রাখবে। আমি তাকে আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা জানাই।’

এদিকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেওয়ার পর বর্তমান চেয়ারম্যান বিল্লাল মাস্টার স্বতন্ত্র প্রার্থী দেলোয়ার মাস্টারের হাত ধরে তাকে বুকে টেনে জড়িয়ে ধরেন।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

নৌকা প্রার্থীকে সমর্থন নয়, জনগণের স্বার্থে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী

আপডেট সময় : ০৪:৫২:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ নভেম্বর ২০২১

নিজস্ব প্রতিনিধি : চাঁদপুর সদর উপজেলার ২নং আশিকাটি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে সহিংসতা রোধে জনগণের স্বার্থে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালেন চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন মাস্টার।

Model Hospital

নৌকা মার্কার প্রার্থীকে সমর্থন নয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের লক্ষ্যে মেম্বার প্রার্থীদের কথা চিন্তা করে ও নির্বাচনে কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হামলা ও খুন রাহাজানি যাতে না হয় সেদিকে চিন্তা করে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন বলে জানিয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মাস্টার।

৩ নভেম্বর বুৃধবার বিকেলে নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার লক্ষে ইউনিয়ন পরিষদে সকল প্রার্থীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত সম্প্রীতির সভায় তিনি নিজের প্রর্থীতা প্রত্যাহার করার ঘোষণা দেন।

এর আগে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী বিলাল হোসেন পাটোয়ারি তার বক্তব্যে নির্বাচনে সহিংসতা যাতে না হয় সেই লক্ষ্যে এবারের নির্বাচন থেকে চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন মাস্টার এবং ইসলামী আন্দোলন সমর্থিত হাত পাখা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদ গাজীকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ জানান।

তারপরেই চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ডা. জেআর ওয়াদুদ টিপু শান্তিপূর্ণ নির্বাচন উপহার দেওয়া ও কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি যাতে না হয় সেই লক্ষ্যে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে এবার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর অনুরোধ করেন। অবশেষে অনুষ্ঠান চলাকালে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. দেলোয়ার হোসেন মাস্টার তার দলের নেতাকর্মীদের সাথে আলোচনা করে উন্নয়নের নির্বাচন থেকে সড়ে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেন।

ডা. জে আর ওয়াদুদ টিপু বলেন, ‘চাঁদপুরের সদরের প্রতিটি ইউনিয়নে নির্বাচন সুষ্ঠ হবে, এতে কোন সন্দেহ নেই। আর নির্বাচনে যে কোন একজন নির্বাচিত হবেন। তাই মারামারি হানাহানি করে লাভ নেই। দিনশেষে আমরা সবাই চাঁদপুরে বসবাস করবো। আজকে দেলোয়ার হোসেন মাস্টার নিজের এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে জনগণের কথা চিন্তা করে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। এটি সম্প্রীতির অনন্য উদাহরণ হয়ে থাকবে। আমরা আওয়ামী পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই।’

চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মাস্টার বলেন, ‘আমি এর আগেও এই ইউনিয়নের নির্বাচিত চেয়ারম্যান ছিলাম। আমি আমার সর্বোচ্চ দিয়ে এলাকার উন্নয়নে কাজ করেছি। এবছর বিএনপি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করলেও এলাকাবাসীর অনুরোধে আমি প্রার্থী হয়েছি।

এলাকার ভোটারদের বিশাল একটি অংশ আমার জন্য কাজ করেছে। আজকের এই সম্প্রীতি সমাবেশ এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আমাকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িতে অনুরোধ জানানো হয়েছে। যদিও এই ঘোষণা আমার জন্য খুবই কষ্ট এবং বেদনাদায়ক। তবুও এলাকাবাসীর স্বার্থে, নির্বাচনে কোনো ধরনের সহিংসতা ও খুনাকুনি যাতে না হয় এবং এলাকার উন্নয়নের স্বার্থে আমি এই নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ালাম।’

বিল্লাল হোসেন মাস্টার বলেন,আমি কখনোই বিএনপির সাথে দুর্ব্যাহার করিনি। তাদের মামলা হামলা করে হয়রানি করিনি। বিএনপি মেম্বারদের বেশি কাজ দিয়েছি। দলমত নির্বিশেষে ইউনিয়নবাসীর উন্নয়নে কাজ করেছি। এই বারের নির্বাচনে কোনো ধরনের সহিংসতা যাতে না হয় এলাকার মানুষের স্বার্থে স্বতন্ত্র প্রার্থী দেলোয়ার হোসেন মাস্টার নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। তার এই উদারতা ইউনিয়নবাসী মনে রাখবে। আমি তাকে আন্তরিকভাবে কৃতজ্ঞতা জানাই।’

এদিকে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর ঘোষণা দেওয়ার পর বর্তমান চেয়ারম্যান বিল্লাল মাস্টার স্বতন্ত্র প্রার্থী দেলোয়ার মাস্টারের হাত ধরে তাকে বুকে টেনে জড়িয়ে ধরেন।