ঢাকা ০৪:৩৯ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৩ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফরিদগঞ্জে তিন ইভটিজারের ঠিকানা হলো শ্রীঘরে

এস. এম ইকবাল : চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে মাদ্রাসায় পড়ুয়া এক ছাত্রীকে ইভটিজিং, শ্লীলতাহানী ও নির্যাতনের এর অপরাধে ফয়সাল, মারুফ হোসেন ও রবিন নামের তিন বখাটেকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছেন স্থানীয়রা৷ মঙ্গলবার (২৭ মার্চ) উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিন ইউনিয়নের আনন্দ বাজার সংলগ্ন মাদ্রাসার রাস্তায় এই ঘটনা ঘটে।

Model Hospital

জানাযায়, ইভটিজিং এর শিকার ওই শিক্ষার্থী রামদাসেরবাগ সিনিয়র আলিম মাদ্রাসায় ১০ দশম শ্রেণিতে অধ্যয়ন করছেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের সহায়তায় অভিযুক্তদের আটকের পর পুলিশি হেফাজতে দিয়েছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয় আরিফ হোসেন, সজিব হোসেনসহ অনেকে জানান, ওই শিক্ষার্থী প্রতিদিনের ন্যায় মাদ্রাসায় যাওয়ার প্রতিমধ্যে ইউনিয়নের গ্রামীনবাজার এলাকায় গেলে ওৎ পেতে থাকা ৩ বখাটে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে ইভটিজিংয়ের পর শ্লীলতাহানী এবং ডাক-চিৎকার দেওয়ায় শারীরিক ভাবে নির্যাতন করে। পরে স্থানীয়রা ছাত্রীকে উদ্ধার করে এবং বখাটেদের আটক করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরেরপর মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ পুলিশে সোপর্দ করে।

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য আতিক খান জানান, আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। স্থানীয়দের সহযোগীতায় আমরা শিক্ষার্থী ও বখাটেদের মাদরাসায় নিয়ে থানা পুলিশে খবর দিলে এস.আই. রুবেল ফরাজিসহ সঙ্গীয় ফোর্স মাদ্রাসায় এসে ভূক্তভোগী শিক্ষার্থীর বক্তব্য শুনেন এবং অভিযুক্তরা অপরাধ স্বীকার করলে পুলিশ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যান।

ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে তিন জনকে আটক করা হয়েছে৷ আইনী ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

স্কুলের শ্রেণিকক্ষে ‘আপত্তিকর’ অবস্থায় ছাত্রীসহ প্রধান শিক্ষক আটক

ফরিদগঞ্জে তিন ইভটিজারের ঠিকানা হলো শ্রীঘরে

আপডেট সময় : ১২:৩৯:২২ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ মার্চ ২০২২

এস. এম ইকবাল : চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে মাদ্রাসায় পড়ুয়া এক ছাত্রীকে ইভটিজিং, শ্লীলতাহানী ও নির্যাতনের এর অপরাধে ফয়সাল, মারুফ হোসেন ও রবিন নামের তিন বখাটেকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছেন স্থানীয়রা৷ মঙ্গলবার (২৭ মার্চ) উপজেলার পাইকপাড়া দক্ষিন ইউনিয়নের আনন্দ বাজার সংলগ্ন মাদ্রাসার রাস্তায় এই ঘটনা ঘটে।

Model Hospital

জানাযায়, ইভটিজিং এর শিকার ওই শিক্ষার্থী রামদাসেরবাগ সিনিয়র আলিম মাদ্রাসায় ১০ দশম শ্রেণিতে অধ্যয়ন করছেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের সহায়তায় অভিযুক্তদের আটকের পর পুলিশি হেফাজতে দিয়েছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয় আরিফ হোসেন, সজিব হোসেনসহ অনেকে জানান, ওই শিক্ষার্থী প্রতিদিনের ন্যায় মাদ্রাসায় যাওয়ার প্রতিমধ্যে ইউনিয়নের গ্রামীনবাজার এলাকায় গেলে ওৎ পেতে থাকা ৩ বখাটে ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীকে ইভটিজিংয়ের পর শ্লীলতাহানী এবং ডাক-চিৎকার দেওয়ায় শারীরিক ভাবে নির্যাতন করে। পরে স্থানীয়রা ছাত্রীকে উদ্ধার করে এবং বখাটেদের আটক করে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছে হস্তান্তরেরপর মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ পুলিশে সোপর্দ করে।

মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান, ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য আতিক খান জানান, আমরা খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। স্থানীয়দের সহযোগীতায় আমরা শিক্ষার্থী ও বখাটেদের মাদরাসায় নিয়ে থানা পুলিশে খবর দিলে এস.আই. রুবেল ফরাজিসহ সঙ্গীয় ফোর্স মাদ্রাসায় এসে ভূক্তভোগী শিক্ষার্থীর বক্তব্য শুনেন এবং অভিযুক্তরা অপরাধ স্বীকার করলে পুলিশ তাদের আটক করে থানায় নিয়ে যান।

ফরিদগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদ হোসেন বলেন, ঘটনাস্থল থেকে তিন জনকে আটক করা হয়েছে৷ আইনী ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।