ঢাকা ০৭:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ক্যান্টেনমেন্টে গঠিত দল তো আর গনতান্ত্রিক দল হতে পারে না

২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে খরিপ-১/২০২৩-২৪ মৌসুমে উফশী আউশ ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে-বীজ ও সার এবং ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের আওতায় সুফলভোগী জেলেদের মাঝে বিকল্প কর্মসংস্থানের উপকরণ (বকনা বাছুর) ও বাংলাদেশ জাতীয় সমাজ কল্যাণ পরিষদ হতে প্রাপ্ত অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
৩০ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেলে হাইমচর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মৎস্য অধিদপ্তর, সমাজসেবা অধিদপ্তর বাস্তবায়নে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহবুবুর রশিদের পরিচালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এম.পি.।
এসময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু তিনি সারা বিশ্ব থেকে সাহায্য সহযোগীতা নিয়ে আসতে পেরেছিলেন, আমরা তখন ঘুরে দাড়িয়ে ছিলাম। তখন দেশে চাউলের দাম সবছেয়ে কম পর্যায়ে নেমে এসেছিল। তখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে যাহারা অবৈধ ভাবে ক্ষমতায় এসেছিল তারা শিক্ষা স্বাস্থ উন্নয়নের কোন সুযোগ সে ভাবে তৈরি করতে পারেনি।
বঙ্গবন্ধু কন্যা যখন বঙ্গবন্ধুর হত্যার ছয় বছর পর দেশে ফিরে এসেছিলেন তিননি পনেরো বছর দেশে থেকে একটানা আন্দোলন সংগ্রাম করে প্রথম বার ১৯৯৬  সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বাংলাদেশ স্বাধীনতার সেই চেতনায় ফিরে গেলো। এই চেতনা কিছিল আমরা একটি অসম্প্রদায়িক গনতান্ত্রিক একটা শোষন বৈষম্যহীন একটা সমাজ তৈরি করবো। যেখানে মানুষ সুখে থাকবে শান্তিতে নিরাপদে থাকবে।
মর্যাদা নিয়ে বসবাস করবে। বঙ্গবন্ধু তার অর্থনীতিটাকে খুব সহজ ভাষায় বলেছিলেন, আমি দুখি মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চাই।
যখন একজন দুখি মানুষ কখন হাসে? যখন তার পেটে ভাত থাকে, গায়ে কাপড় থাকে, মাথা গোজার ঠাই থাকে, তার ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার ব্যবস্থা থাকে, আয় রোজগারের ব্যবস্থা ও তার চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকে। তখনই সত্যিকার অর্থে দুখি মানুষের মুখে হাসি ফোটে উঠতে পারে। কিন্তু তার পরে যারা সামরিক আধাসামরিক  নানান চেহারার সৈরা শাষক যারা এসেছে, জিয়াউর রহমান অবৈধ ক্ষমতা দখল করে একটি দল গঠন করলেন। ক্যান্টেন্টমেন্ট থেকে যে দল হয় সে দল তো আর গনতান্ত্রিক দল হতে পারে না। এই দল তো সাধারণ মানুষের দুঃখ কস্ট লাগবের জন্য কাজ করে না। তারা নিজেদের আখের গোছানোর জন্য কাজ করেছে। এর পরে এরশাদ তার পরে বেগম জিয়া। এবং আমরা কি দেখেছি হাওয়া ভবন, খোঁয়াব ভবন দেখেছি, লুটপাট দেখেছি।
আমরা দেখেছি সেই ৭৫ এর হত্যাকারীদের যেমন তাঁরা পুরস্কিত করেছিলো। হত্যা কারির বিচার না করে তারা পুরস্কার দিয়েছিলো। বিচার বন্ধ ছিলো জিয়াউর রহমান। একাত্তরের হত্যাকারিদের ক্ষমতায় বসিয়েছিলো। তাদের বিচার না করে এবং তাদের কে ক্ষমতায় বসিয়ে ৩০ লক্ষ শহীদের সাথে বেইমানি করেছিলো, লক্ষ লক্ষ ধসিতাম নারীর সাথে বেইমানি করেছিলো। সারাদেশে সাথে স্বাধীনতার সাথে বেইমানী করেছিলো।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি জে আর ওয়াদুদ টিপু, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মেহেদী হাসান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাই থোয়াইহলা চৌধুরী, চাঁদপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল ইয়াছিন আরাফাত।
এসময় উপস্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির প্রধানীয়া, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন বেপারী, উপজেলা কৃষি অফিসার মোতাহার হোসেরসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সুমন

ক্যান্টেনমেন্টে গঠিত দল তো আর গনতান্ত্রিক দল হতে পারে না

আপডেট সময় : ০৪:১৯:৪২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মার্চ ২০২৩
২০২২-২০২৩ অর্থ বছরে খরিপ-১/২০২৩-২৪ মৌসুমে উফশী আউশ ধানের উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক কৃষকের মাঝে বিনামূল্যে-বীজ ও সার এবং ২০২২-২০২৩ অর্থবছরে ইলিশ সম্পদ উন্নয়ন ও ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের আওতায় সুফলভোগী জেলেদের মাঝে বিকল্প কর্মসংস্থানের উপকরণ (বকনা বাছুর) ও বাংলাদেশ জাতীয় সমাজ কল্যাণ পরিষদ হতে প্রাপ্ত অনুদানের চেক বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
৩০ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেলে হাইমচর উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গণ উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মৎস্য অধিদপ্তর, সমাজসেবা অধিদপ্তর বাস্তবায়নে উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মাহবুবুর রশিদের পরিচালায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এম.পি.।
এসময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু তিনি সারা বিশ্ব থেকে সাহায্য সহযোগীতা নিয়ে আসতে পেরেছিলেন, আমরা তখন ঘুরে দাড়িয়ে ছিলাম। তখন দেশে চাউলের দাম সবছেয়ে কম পর্যায়ে নেমে এসেছিল। তখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে যাহারা অবৈধ ভাবে ক্ষমতায় এসেছিল তারা শিক্ষা স্বাস্থ উন্নয়নের কোন সুযোগ সে ভাবে তৈরি করতে পারেনি।
বঙ্গবন্ধু কন্যা যখন বঙ্গবন্ধুর হত্যার ছয় বছর পর দেশে ফিরে এসেছিলেন তিননি পনেরো বছর দেশে থেকে একটানা আন্দোলন সংগ্রাম করে প্রথম বার ১৯৯৬  সালে প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পর বাংলাদেশ স্বাধীনতার সেই চেতনায় ফিরে গেলো। এই চেতনা কিছিল আমরা একটি অসম্প্রদায়িক গনতান্ত্রিক একটা শোষন বৈষম্যহীন একটা সমাজ তৈরি করবো। যেখানে মানুষ সুখে থাকবে শান্তিতে নিরাপদে থাকবে।
মর্যাদা নিয়ে বসবাস করবে। বঙ্গবন্ধু তার অর্থনীতিটাকে খুব সহজ ভাষায় বলেছিলেন, আমি দুখি মানুষের মুখে হাসি ফোটাতে চাই।
যখন একজন দুখি মানুষ কখন হাসে? যখন তার পেটে ভাত থাকে, গায়ে কাপড় থাকে, মাথা গোজার ঠাই থাকে, তার ছেলে মেয়ের লেখা পড়ার ব্যবস্থা থাকে, আয় রোজগারের ব্যবস্থা ও তার চিকিৎসার ব্যবস্থা থাকে। তখনই সত্যিকার অর্থে দুখি মানুষের মুখে হাসি ফোটে উঠতে পারে। কিন্তু তার পরে যারা সামরিক আধাসামরিক  নানান চেহারার সৈরা শাষক যারা এসেছে, জিয়াউর রহমান অবৈধ ক্ষমতা দখল করে একটি দল গঠন করলেন। ক্যান্টেন্টমেন্ট থেকে যে দল হয় সে দল তো আর গনতান্ত্রিক দল হতে পারে না। এই দল তো সাধারণ মানুষের দুঃখ কস্ট লাগবের জন্য কাজ করে না। তারা নিজেদের আখের গোছানোর জন্য কাজ করেছে। এর পরে এরশাদ তার পরে বেগম জিয়া। এবং আমরা কি দেখেছি হাওয়া ভবন, খোঁয়াব ভবন দেখেছি, লুটপাট দেখেছি।
আমরা দেখেছি সেই ৭৫ এর হত্যাকারীদের যেমন তাঁরা পুরস্কিত করেছিলো। হত্যা কারির বিচার না করে তারা পুরস্কার দিয়েছিলো। বিচার বন্ধ ছিলো জিয়াউর রহমান। একাত্তরের হত্যাকারিদের ক্ষমতায় বসিয়েছিলো। তাদের বিচার না করে এবং তাদের কে ক্ষমতায় বসিয়ে ৩০ লক্ষ শহীদের সাথে বেইমানি করেছিলো, লক্ষ লক্ষ ধসিতাম নারীর সাথে বেইমানি করেছিলো। সারাদেশে সাথে স্বাধীনতার সাথে বেইমানী করেছিলো।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি জে আর ওয়াদুদ টিপু, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নূর হোসেন পাটোয়ারী, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা গোলাম মেহেদী হাসান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা চাই থোয়াইহলা চৌধুরী, চাঁদপুর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর সার্কেল ইয়াছিন আরাফাত।
এসময় উপস্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হুমায়ুন কবির প্রধানীয়া, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর হোসেন বেপারী, উপজেলা কৃষি অফিসার মোতাহার হোসেরসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানগন।