ঢাকা ১১:৪১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শাহরাস্তিতে নারীর ক্ষমতায়নে এসি ল্যান্ড রেজওয়ানা চৌধুরীর উঠোন বৈঠক

নারীর ক্ষমতায়নে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিসেট্রট এসি ল্যান্ড রেজওয়ানা চৌধুরীর একটি উঠোন বৈঠক করেছেন।

Model Hospital

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহিলা, শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও জাতীয় মহিলা সংস্থার আয়োজনে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন প্রকল্প (২য় পর্যায়ে অধীনে এটি অনুষ্ঠিত হয়।

বুধবার উপজেলা তথ্য সেবা কেন্দ্রের আয়োজনে মেহের দক্ষিণ ইউপির দেবকরা গ্রামের ভোডকাপাড়া মহল্লায় এটি অনুষ্ঠিত হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,ওইদিন শাহরাস্তি উপজেলা তথ্য কর্মকর্তা রোজিয়ারা খাতুনের সঞ্চালনায় উক্ত উঠোন বৈঠকে প্রধান ও রিসোর্স পারসন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিসেট্রট এসি ল্যান্ড রেজওয়ানা চৌধুরীর।

তিনি “পৈত্রিক সম্পত্তিতে পুরুষের পাশাপাশি নারীর অধিকার” বিষয়ে মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

আলোচনার এক পর্যায়ে ওই উঠান বৈঠকে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একজন নারী মা শুধু হাত তুললে জানান, তার পৈত্রিক সম্পত্তি ভাইয়েরা বুঝিয়ে দিয়েছেন। বাকীরা বললেন, তারা বঞ্চিত।

পরে রিসোর্স পারসন রেজওয়ানা চৌধুরী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভূমি আইনের আলোকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভূমি বিষয়ে নির্দেশিত আইনের তথ্য-উপাত্ত অনুসারে পৈত্রিক সম্পত্তিতে নারীর অধিকার বিষয়ক বিস্তর আলোকপাত করেন।

ফারায়েজ মতে, উত্তরাধিকারের ক্ষেত্রে কন্যারা তিনভাবে মাতাপিতার সম্পত্তি পেতে পারে। একমাত্র কন্যা হলে তিনি রেখে যাওয়া সম্পত্তির দুই ভাগের এক ভাগ বা (১/২) অংশ পাবে। একাধিক মেয়ে হলে সবাই মিলে সমানভাগে তিন ভাগের দুই ভাগ বা (২/৩) অংশ পাবে।

যদি পুত্র থাকে তবে পুত্র ও কন্যার সম্পত্তির অনুপাত হবে ২:১ অর্থাৎ এক মেয়ে এক ছেলের অর্ধেক অংশ পাবে ।কন্যা কখনো মাতাপিতার সম্পত্তি হতে বঞ্চিত হয় না। অর্থ্যাৎ, কন্যা ১/২ পাবে যখন একজন যাত্র কন্যা থাকে এবং পুত্র না থাকে। কন্যা ২/৩ পাবে যখন দুই বা ততধিক কন্যা থাকে এবং পুত্র না থাকে।

কন্যা অবশিষ্ট ভোগী হিসাবে পাবেন যখন এক বা একের অধিক পুত্ৰ ন থাকে । মৃত ব্যক্তির-স্ত্রী ১/৮ পাবে যখন সন্তান বা পুত্রের সন্তান থাকে। স্ত্রী ১/৪ পাবে যখন সন্তান বা পুত্রের সন্তান না থাকে। পরে উপজেলা তথ্যসেবা কেন্দ্রের উদ্যোগে উপস্থিত নারীদের ডায়বেটিস,উচ্চ রক্তচাপ, শরীরের ওজন এবং উচ্চতা পরীক্ষা করে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করা হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, চলমান এ উঠোন বৈঠকটি জনগুরুত্বপূর্ণ আরেকটি বিষয় নিয়ে পর্যায়ক্রমে অত্র উপজেলার অন্য জনপদে চলমান থাকবে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরের তিন উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীরা কে কত ভোট পেলেন

শাহরাস্তিতে নারীর ক্ষমতায়নে এসি ল্যান্ড রেজওয়ানা চৌধুরীর উঠোন বৈঠক

আপডেট সময় : ১১:৪৮:১৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১ জুন ২০২৩

নারীর ক্ষমতায়নে উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিসেট্রট এসি ল্যান্ড রেজওয়ানা চৌধুরীর একটি উঠোন বৈঠক করেছেন।

Model Hospital

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মহিলা, শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয় ও জাতীয় মহিলা সংস্থার আয়োজনে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তির মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়ন প্রকল্প (২য় পর্যায়ে অধীনে এটি অনুষ্ঠিত হয়।

বুধবার উপজেলা তথ্য সেবা কেন্দ্রের আয়োজনে মেহের দক্ষিণ ইউপির দেবকরা গ্রামের ভোডকাপাড়া মহল্লায় এটি অনুষ্ঠিত হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়,ওইদিন শাহরাস্তি উপজেলা তথ্য কর্মকর্তা রোজিয়ারা খাতুনের সঞ্চালনায় উক্ত উঠোন বৈঠকে প্রধান ও রিসোর্স পারসন হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিসেট্রট এসি ল্যান্ড রেজওয়ানা চৌধুরীর।

তিনি “পৈত্রিক সম্পত্তিতে পুরুষের পাশাপাশি নারীর অধিকার” বিষয়ে মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন।

আলোচনার এক পর্যায়ে ওই উঠান বৈঠকে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে একজন নারী মা শুধু হাত তুললে জানান, তার পৈত্রিক সম্পত্তি ভাইয়েরা বুঝিয়ে দিয়েছেন। বাকীরা বললেন, তারা বঞ্চিত।

পরে রিসোর্স পারসন রেজওয়ানা চৌধুরী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভূমি আইনের আলোকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের ভূমি বিষয়ে নির্দেশিত আইনের তথ্য-উপাত্ত অনুসারে পৈত্রিক সম্পত্তিতে নারীর অধিকার বিষয়ক বিস্তর আলোকপাত করেন।

ফারায়েজ মতে, উত্তরাধিকারের ক্ষেত্রে কন্যারা তিনভাবে মাতাপিতার সম্পত্তি পেতে পারে। একমাত্র কন্যা হলে তিনি রেখে যাওয়া সম্পত্তির দুই ভাগের এক ভাগ বা (১/২) অংশ পাবে। একাধিক মেয়ে হলে সবাই মিলে সমানভাগে তিন ভাগের দুই ভাগ বা (২/৩) অংশ পাবে।

যদি পুত্র থাকে তবে পুত্র ও কন্যার সম্পত্তির অনুপাত হবে ২:১ অর্থাৎ এক মেয়ে এক ছেলের অর্ধেক অংশ পাবে ।কন্যা কখনো মাতাপিতার সম্পত্তি হতে বঞ্চিত হয় না। অর্থ্যাৎ, কন্যা ১/২ পাবে যখন একজন যাত্র কন্যা থাকে এবং পুত্র না থাকে। কন্যা ২/৩ পাবে যখন দুই বা ততধিক কন্যা থাকে এবং পুত্র না থাকে।

কন্যা অবশিষ্ট ভোগী হিসাবে পাবেন যখন এক বা একের অধিক পুত্ৰ ন থাকে । মৃত ব্যক্তির-স্ত্রী ১/৮ পাবে যখন সন্তান বা পুত্রের সন্তান থাকে। স্ত্রী ১/৪ পাবে যখন সন্তান বা পুত্রের সন্তান না থাকে। পরে উপজেলা তথ্যসেবা কেন্দ্রের উদ্যোগে উপস্থিত নারীদের ডায়বেটিস,উচ্চ রক্তচাপ, শরীরের ওজন এবং উচ্চতা পরীক্ষা করে প্রয়োজনীয় পরামর্শ প্রদান করা হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানান, চলমান এ উঠোন বৈঠকটি জনগুরুত্বপূর্ণ আরেকটি বিষয় নিয়ে পর্যায়ক্রমে অত্র উপজেলার অন্য জনপদে চলমান থাকবে।