ঢাকা ০৮:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মতলব উত্তরে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ

বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে চাঁদপুরের মতলব উত্তরে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮ আগস্ট মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাড.  নুরুল আমিন রুহুল।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা দেন মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল এমরান খান এর সভাপতিত্বে এবং উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও গজরা ইউপি চেয়ারম্যান শহীদ উল্লাহ প্রধান, ছেংগারচর পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র মোঃ আরিফ উল্লাহ সরকার, মতলব উত্তর থানার ওসি মোঃ মহিউদ্দিন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আসাদুজ্জামান, উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মনির হোসেন, মহিলা নেত্রী স্নেহলতা কানন প্রমুখ।
আলোচনা সভা শুরু হওয়ার আগে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন নেতৃবৃন্দ। সভা শেষে অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। সভায় সকল দপ্তরের কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আলহাজ্ব অ্যাড. নুরুল আমিন রুহুল বলেন, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা ছিলেন একজন মহিয়ষী নারী। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন। তার অনুপ্রেরণার কারণেই বঙ্গবন্ধু এগিয়ে চলেছিলেন এবং বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ৭১ এর ১৫ আগস্ট কালো রাতে যদি ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা না করতো, তাহলে বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব বেঁচে যেতেন। আর আমরা স্বাধীনতার পূর্ণ স্বাদ পেতাম। তবে তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব আজ আমরা পৌছে যাচ্ছি স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে। তিনি একজন নারী হয়েও দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি নারীদের সমান অধিকার নিশ্চিত করেছেন।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সুমন

মতলব উত্তরে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ

আপডেট সময় : ০৯:১৭:৩০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৮ অগাস্ট ২০২৩
বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে চাঁদপুরের মতলব উত্তরে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৮ আগস্ট মঙ্গলবার বিকালে উপজেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উদ্যোগে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব এর ৯৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে উপজেলা পরিষদের সভাকক্ষে আলোচনা সভা ও সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব অ্যাড.  নুরুল আমিন রুহুল।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা দেন মতলব উত্তর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা এমএ কুদ্দুস।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) আল এমরান খান এর সভাপতিত্বে এবং উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার পরিচালনায় আরো বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও গজরা ইউপি চেয়ারম্যান শহীদ উল্লাহ প্রধান, ছেংগারচর পৌরসভার নবনির্বাচিত মেয়র মোঃ আরিফ উল্লাহ সরকার, মতলব উত্তর থানার ওসি মোঃ মহিউদ্দিন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃ আসাদুজ্জামান, উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মনির হোসেন, মহিলা নেত্রী স্নেহলতা কানন প্রমুখ।
আলোচনা সভা শুরু হওয়ার আগে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিবের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন নেতৃবৃন্দ। সভা শেষে অসহায় নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়েছে। সভায় সকল দপ্তরের কর্মকর্তা এবং রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আলহাজ্ব অ্যাড. নুরুল আমিন রুহুল বলেন, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন নেছা ছিলেন একজন মহিয়ষী নারী। তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন। তার অনুপ্রেরণার কারণেই বঙ্গবন্ধু এগিয়ে চলেছিলেন এবং বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে।
তিনি আরও বলেন, ৭১ এর ১৫ আগস্ট কালো রাতে যদি ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা না করতো, তাহলে বেগম ফজিলাতুন নেছা মুজিব বেঁচে যেতেন। আর আমরা স্বাধীনতার পূর্ণ স্বাদ পেতাম। তবে তারই সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্ব আজ আমরা পৌছে যাচ্ছি স্মার্ট বাংলাদেশের দিকে। তিনি একজন নারী হয়েও দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি নারীদের সমান অধিকার নিশ্চিত করেছেন।