ঢাকা ১০:৫৭ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
ফরিদগঞ্জে

বিএনপি’র কারামুক্ত নেতাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশৃংখলা, হট্টগোল

  • এস এম ইকবাল
  • আপডেট সময় : ১০:০৭:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৪
  • 183

ফরিদগঞ্জে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের কারামুক্ত নেতাদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।

Model Hospital

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ফুলের মালা পড়ানোর সময় হুড়োহুড়ি ও বিশৃংখলার সৃষ্টি হয়। উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক শরীফ মোহাম্মসদ ইউনুছ বক্তব্য রাখার সময় “ভুয়া ভুয়া” ধ্বনি দেয় কয়েকজন। ওই সময় উত্তেজনা দেখা দেয়।

সোমবার বিকাল সাড়ে চার ঘটিকায় ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় সুবিদপুর (পঃ) ইউনিয়নে এম.এ. হান্নানের প্রতিষ্ঠিত শোল্লা আশেক আলী স্কুল এন্ড কলেজের একটি কক্ষে।

দলীয় সূত্র দাবী করেছে, ২৮-এ অক্টোবর ঢাকার পল্টনে বিএনপি মহাসমাবেশ এর আয়োজন করে। সমাবেশের ওপর পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের হামলা হয়। এতে, পল্টনের চতুর্দিকে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। ওইদিন বিকাল হতে নির্বাচনের পূর্ব পর্যন্ত ঢাকাসহগ সারা দেশে বিএনপি’র বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ঢাকা ও ফরিদগঞ্জ এর ৪০ জন রয়েছেন।

সোমবার বিকালে, গ্রেফতারকৃত সকলকে গণ সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

সংবর্ধিতরা হলেন, বিএনপি, ফরিদগঞ্জ উপজেলা আহ্বায়ক এম.এ. হান্নান, যুগ্ম আহ্বায়ক যথাক্রমে মজিবুর রহমান দুলাল, মঞ্জিল হোসেন, আবু জাফর খসরু মোল্লা, নজরুল ইসলাম নজু, মাসুদ আলম, সুবিদপুর ইউনিয়ন সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন নয়ন, বিএনপি নেতা আজাদ পাটওয়ারী, খোকন, মোহাম্মদ শরীফ, মাজবুব আলম, মামুন মিজি, শহীদুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক আক্তার হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক নাজিম উদ্দিন সুমন, উপজেলা তাঁতী দলের আহ্বায়ক জামাল সওদাগর, হেলাল সরকার, এমরান হোসেন বেপারী। এরা গ্রেফতার হন ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে।

আহ্বায়ক, পৌর বিএনপি, আমানত গাজী, উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল খালেক পাটওয়ারী, পৌর শ্রমিক দলের সভাপতি পিংকু গাজী, উপজেলা ছাত্রদরের যুগ্ম আহ্বায়ক মহিন ভুইয়া, ১৪ নং ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি মিরাজ, রাশেদ, পৌর ওয়ার্ড সেক্রেটারি এমরান, সাবেক সদস্য সচিব উপজেলা যুবদল আবদুল মতিন, ১নং ইউনিয়ন কৃষকদল সভাপতি ওবায়দুল্লাহ খান, যুবদরের সদস্য সচিব জহিরুল ইসলাম, জিকির হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দল হেলাল গাজী, সোহেল মিজি, হারুন বেপারী, খোরশেদ আলম, গিয়াস উদ্দিন মিজি, ১৪নং ইউনিয়ন যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক এমরান হোসেন, হাসান পাটওয়ারী, আমিসর হোসেন, ইসমাইল হোসেন। এরা গ্রেফতার হয়েছেন ফরিদগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে।

বিএনপি দাবী করেছে, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করতে গিয়ে ঢাকা এবং ফরিদগঞ্জ থেকে ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক এম.এ. হান্নানসহ বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ গ্রেফতার হন। গ্রেফতারকৃতরা সম্প্রতি জামিনে কারামুক্ত হন। তাদের গণ সংবর্ধনা দেওয়ার আয়োজন করে ফরিদগঞ্জ উপজেলা, পৌর বিএনপি ও সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠন। দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ কারামুক্তদের ফুলের মালা পড়িয়ে দেন। এরপর, নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এম. এ. হান্নান তার বক্তব্যে বলেন, জেলা বিএনপির দায়িত্ব মানিক সাহেবের। ফরিদগঞ্জের দায়িত্ব আমার। আমি প্রয়োজনে দলের পদ ছেড়ে সামাজিক কাজ করবো। তবে, দল ছেড়ে যাবো না। তিনি বলেন, দলের ভেতরে আওয়ামী লীগের দালাল আছে। তাদের সম্পর্কে দলের নেতৃবৃন্দকে সজাগ থাকতে তিনি পরামর্শ দেন।

এদিকে, প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, গণ সংবর্ধনা দাবী করা হলেও অনুষ্ঠানে উল্লেখযোগ্য নেতা-কর্মী, সমর্থক উপস্থিত হননি। ফুলের মালা গলায় পড়িয়ে দিতে গিয়ে ধাক্কাধাক্কি ও বিশৃংখলা সৃষ্টি হয়।

অপরদিকে, বিএনপি’র ফেিরদগঞ্জ উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক শরীফ মোহাম্মদ ইউনুছ বক্তব্য দিতে দাঁড়ালে মঞ্চের পাশ থেকে কয়েকজন “ভুয়া ভুয়া” ধ্বনি দেন। এতে, শরীফ মোহাম্মদ ইউনুছ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। ওই সময়, হট্টগোল বাধে।

কয়েকজনকে বলতে শোনা যায় “সাংবাদিক আছে, লাইভ চলছে”। এরপর, হট্টগোল বন্ধ হয়।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে অটো চালকের মৃত্যু

ফরিদগঞ্জে

বিএনপি’র কারামুক্ত নেতাদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বিশৃংখলা, হট্টগোল

আপডেট সময় : ১০:০৭:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৪

ফরিদগঞ্জে বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের কারামুক্ত নেতাদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে।

Model Hospital

সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে ফুলের মালা পড়ানোর সময় হুড়োহুড়ি ও বিশৃংখলার সৃষ্টি হয়। উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক শরীফ মোহাম্মসদ ইউনুছ বক্তব্য রাখার সময় “ভুয়া ভুয়া” ধ্বনি দেয় কয়েকজন। ওই সময় উত্তেজনা দেখা দেয়।

সোমবার বিকাল সাড়ে চার ঘটিকায় ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয় সুবিদপুর (পঃ) ইউনিয়নে এম.এ. হান্নানের প্রতিষ্ঠিত শোল্লা আশেক আলী স্কুল এন্ড কলেজের একটি কক্ষে।

দলীয় সূত্র দাবী করেছে, ২৮-এ অক্টোবর ঢাকার পল্টনে বিএনপি মহাসমাবেশ এর আয়োজন করে। সমাবেশের ওপর পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের হামলা হয়। এতে, পল্টনের চতুর্দিকে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। ওইদিন বিকাল হতে নির্বাচনের পূর্ব পর্যন্ত ঢাকাসহগ সারা দেশে বিএনপি’র বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ঢাকা ও ফরিদগঞ্জ এর ৪০ জন রয়েছেন।

সোমবার বিকালে, গ্রেফতারকৃত সকলকে গণ সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

সংবর্ধিতরা হলেন, বিএনপি, ফরিদগঞ্জ উপজেলা আহ্বায়ক এম.এ. হান্নান, যুগ্ম আহ্বায়ক যথাক্রমে মজিবুর রহমান দুলাল, মঞ্জিল হোসেন, আবু জাফর খসরু মোল্লা, নজরুল ইসলাম নজু, মাসুদ আলম, সুবিদপুর ইউনিয়ন সাংগঠনিক সম্পাদক জাকির হোসেন, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান শাহাদাৎ হোসেন নয়ন, বিএনপি নেতা আজাদ পাটওয়ারী, খোকন, মোহাম্মদ শরীফ, মাজবুব আলম, মামুন মিজি, শহীদুল ইসলাম, স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক আক্তার হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক নাজিম উদ্দিন সুমন, উপজেলা তাঁতী দলের আহ্বায়ক জামাল সওদাগর, হেলাল সরকার, এমরান হোসেন বেপারী। এরা গ্রেফতার হন ঢাকার বিভিন্ন স্থান থেকে।

আহ্বায়ক, পৌর বিএনপি, আমানত গাজী, উপজেলা যুগ্ম আহ্বায়ক আবদুল খালেক পাটওয়ারী, পৌর শ্রমিক দলের সভাপতি পিংকু গাজী, উপজেলা ছাত্রদরের যুগ্ম আহ্বায়ক মহিন ভুইয়া, ১৪ নং ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি মিরাজ, রাশেদ, পৌর ওয়ার্ড সেক্রেটারি এমরান, সাবেক সদস্য সচিব উপজেলা যুবদল আবদুল মতিন, ১নং ইউনিয়ন কৃষকদল সভাপতি ওবায়দুল্লাহ খান, যুবদরের সদস্য সচিব জহিরুল ইসলাম, জিকির হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক দল হেলাল গাজী, সোহেল মিজি, হারুন বেপারী, খোরশেদ আলম, গিয়াস উদ্দিন মিজি, ১৪নং ইউনিয়ন যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক এমরান হোসেন, হাসান পাটওয়ারী, আমিসর হোসেন, ইসমাইল হোসেন। এরা গ্রেফতার হয়েছেন ফরিদগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে।

বিএনপি দাবী করেছে, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন করতে গিয়ে ঢাকা এবং ফরিদগঞ্জ থেকে ফরিদগঞ্জ উপজেলা বিএনপি’র আহ্বায়ক এম.এ. হান্নানসহ বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ গ্রেফতার হন। গ্রেফতারকৃতরা সম্প্রতি জামিনে কারামুক্ত হন। তাদের গণ সংবর্ধনা দেওয়ার আয়োজন করে ফরিদগঞ্জ উপজেলা, পৌর বিএনপি ও সকল অঙ্গ সহযোগী সংগঠন। দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ কারামুক্তদের ফুলের মালা পড়িয়ে দেন। এরপর, নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

এম. এ. হান্নান তার বক্তব্যে বলেন, জেলা বিএনপির দায়িত্ব মানিক সাহেবের। ফরিদগঞ্জের দায়িত্ব আমার। আমি প্রয়োজনে দলের পদ ছেড়ে সামাজিক কাজ করবো। তবে, দল ছেড়ে যাবো না। তিনি বলেন, দলের ভেতরে আওয়ামী লীগের দালাল আছে। তাদের সম্পর্কে দলের নেতৃবৃন্দকে সজাগ থাকতে তিনি পরামর্শ দেন।

এদিকে, প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, গণ সংবর্ধনা দাবী করা হলেও অনুষ্ঠানে উল্লেখযোগ্য নেতা-কর্মী, সমর্থক উপস্থিত হননি। ফুলের মালা গলায় পড়িয়ে দিতে গিয়ে ধাক্কাধাক্কি ও বিশৃংখলা সৃষ্টি হয়।

অপরদিকে, বিএনপি’র ফেিরদগঞ্জ উপজেলা কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক শরীফ মোহাম্মদ ইউনুছ বক্তব্য দিতে দাঁড়ালে মঞ্চের পাশ থেকে কয়েকজন “ভুয়া ভুয়া” ধ্বনি দেন। এতে, শরীফ মোহাম্মদ ইউনুছ ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। ওই সময়, হট্টগোল বাধে।

কয়েকজনকে বলতে শোনা যায় “সাংবাদিক আছে, লাইভ চলছে”। এরপর, হট্টগোল বন্ধ হয়।