ঢাকা ০৩:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শাহরাস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযানে ৬ জনকে অর্থ ও বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড

শাহরাস্তিতে উপজেলা প্রশাসনের মাদকবিরোধী অভিযানে ৬ জনকে অর্থ ও বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

Model Hospital

চলতি এপ্রিল মাসের ১৫ দিনই উপজেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (ভূমি), এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরী ভ্রাম্যমান আদালতে অভিযুক্তদের এ দন্ড দেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল মাদক বিরোধী অভিযানে শাহরাস্তি উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরীর নেতৃত্বে পৃথক দুটি মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এতে টামটা উত্তর ইউপির পরানপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার স্ত্রী শাহানাজ বেগম আফিয়াকে মাদক (গাঁজা) বিক্রির দায়ে৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১শ’ টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়।

একই দিন ওই ইউপির হোসেনপুর এলাকায় গাঁজা সেবনের দায়ে ওয়াকিল উদ্দিনের পুত্র জুয়েল মিয়াকে ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ২শ’ টাকা অর্থদণ্ড  প্রদান করা হয়।

অভিযুক্তদেরকে ভ্রাম্যমান আদালত আইন, ২০০৯ এর তফসিলভুক্ত মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর সংশ্লিষ্ট ধারায় বিনাশ্রম কারাদন্ড ও অর্থদন্ড প্রদান শেষে জব্দকৃত মাদক বিনষ্ট করা হয়।

ওইদিন বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরীর নেতৃত্বে ও চাঁদপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ পরিদর্শক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম এবং শাহরাস্তি থানা পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত টাস্কফোর্সটিম সহকারী কমিশনার ভূমির কার্যালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারী এ মাদক বিরোধী ও নিয়ন্ত্রণে এ অভিযান পরিচালনা করে।

এদিকে চলতি মাসের প্রথমদিকে শাহরাস্তি পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের নিজ মেহার মহল্লার দাইমুদ্দিনের বাড়ির দলিল মিয়ার পুত্র কবিরাজ মিলন মিয়া ৫৫ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়।

ওই সময় তাকে ৪ মাসের কারাদণ্ড ও ১শ’ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। গত ৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার  দুপুরে উপজেলার  সূচিপাড়া উত্তর ইউপির শোরসাক গ্রাম থেকে মাদক সেবনরত অবস্থায়  মৃত ফজলুল করিমের পুত্র তাওফিক হোসেন জুয়েল (২৪) নামে এক যুবককে আটক করা হয়।

পরে অভিযুক্ত দোষ স্বীকার করায় তাকে ৩ মাসের কারাদণ্ড ও ৫শ’ টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

তার নিকট রক্ষিত মাদক জব্দ শেষে  বিনষ্ট করা হয়। গত ২ এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার চিতোষী পশ্চিম ইউপির আয়নাতলী গ্রামের গোবিন্দবাড়ি থেকে খোরশিদ মিয়ার পুত্র মনির হোসেনকে মাদকসহ সেবনরত অবস্থায় আটক করা হয়।

পরে অভিযুক্ত যুবক তার দোষ স্বীকার করায় তাকে ৭দিনের কারাদণ্ড ও ১শ’ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

একই সময় ওই ইউপির উযারিয়া গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেনের পুত্র মানিক মিয়াকে মাদকসহ সেবনরত অবস্থায় আটক করা হয়।

অভিযুক্ত তার দোষস্বীকার করায় তাকে ৭ দিনের কারাদণ্ড,১শ’ টাকা অর্থদন্ড দেওয়া হয়। ওই অভিযানগুলোতে অভিযুক্ত মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীরা তাদের দোষস্বীকার করায়, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরী ভ্রাম্যমান আদালতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর সংশ্লিষ্ট ধারায় অভিযুক্তদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড প্রদান করেন।

এতে সার্বিক সহযোগিতা করেন চাঁদপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক সেন্টু রঞ্জন নাথ এবং চাঁদপুর এবং শাহরাস্তি থানা পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত টাস্কফোর্স টীম এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসের কর্মচারীবৃন্দ।

এদিকে উপজেলা প্রশাসনের তরফ থেকে মাদক বিরোধী সাঁড়াশি অভিযানকে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ সাধুবাদ জানিয়েছেন।

বিশেষ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: ইয়াসির আরাফাত এবং সহকারী কমিশনার ভূমি এক্সেকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরী এ জনপদে যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, বাজার মনিটরিং,শিক্ষা ক্ষেত্রে, অবৈধ মাটি উত্তোলন, কৃষির ফসলি জমিনের টপসওয়েল কাটারোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

এতে সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে আকাশচুম্বী উন্নতি দৃশ্যমান হওয়ায় প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন তারা ।

ট্যাগস :

শাহরাস্তিতে মাদকবিরোধী অভিযানে ৬ জনকে অর্থ ও বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড

আপডেট সময় : ১০:২০:৪৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ এপ্রিল ২০২৪

শাহরাস্তিতে উপজেলা প্রশাসনের মাদকবিরোধী অভিযানে ৬ জনকে অর্থ ও বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

Model Hospital

চলতি এপ্রিল মাসের ১৫ দিনই উপজেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার (ভূমি), এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরী ভ্রাম্যমান আদালতে অভিযুক্তদের এ দন্ড দেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মঙ্গলবার ১৬ এপ্রিল মাদক বিরোধী অভিযানে শাহরাস্তি উপজেলায় সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরীর নেতৃত্বে পৃথক দুটি মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করা হয়।

এতে টামটা উত্তর ইউপির পরানপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার স্ত্রী শাহানাজ বেগম আফিয়াকে মাদক (গাঁজা) বিক্রির দায়ে৩ মাসের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ১শ’ টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়।

একই দিন ওই ইউপির হোসেনপুর এলাকায় গাঁজা সেবনের দায়ে ওয়াকিল উদ্দিনের পুত্র জুয়েল মিয়াকে ৫ দিনের বিনাশ্রম কারাদণ্ড ও ২শ’ টাকা অর্থদণ্ড  প্রদান করা হয়।

অভিযুক্তদেরকে ভ্রাম্যমান আদালত আইন, ২০০৯ এর তফসিলভুক্ত মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর সংশ্লিষ্ট ধারায় বিনাশ্রম কারাদন্ড ও অর্থদন্ড প্রদান শেষে জব্দকৃত মাদক বিনষ্ট করা হয়।

ওইদিন বিজ্ঞ এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরীর নেতৃত্বে ও চাঁদপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ পরিদর্শক মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম এবং শাহরাস্তি থানা পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত টাস্কফোর্সটিম সহকারী কমিশনার ভূমির কার্যালয়ের কর্মকর্তা কর্মচারী এ মাদক বিরোধী ও নিয়ন্ত্রণে এ অভিযান পরিচালনা করে।

এদিকে চলতি মাসের প্রথমদিকে শাহরাস্তি পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের নিজ মেহার মহল্লার দাইমুদ্দিনের বাড়ির দলিল মিয়ার পুত্র কবিরাজ মিলন মিয়া ৫৫ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করা হয়।

ওই সময় তাকে ৪ মাসের কারাদণ্ড ও ১শ’ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়। গত ৪ এপ্রিল বৃহস্পতিবার  দুপুরে উপজেলার  সূচিপাড়া উত্তর ইউপির শোরসাক গ্রাম থেকে মাদক সেবনরত অবস্থায়  মৃত ফজলুল করিমের পুত্র তাওফিক হোসেন জুয়েল (২৪) নামে এক যুবককে আটক করা হয়।

পরে অভিযুক্ত দোষ স্বীকার করায় তাকে ৩ মাসের কারাদণ্ড ও ৫শ’ টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

তার নিকট রক্ষিত মাদক জব্দ শেষে  বিনষ্ট করা হয়। গত ২ এপ্রিল মঙ্গলবার দুপুরে উপজেলার চিতোষী পশ্চিম ইউপির আয়নাতলী গ্রামের গোবিন্দবাড়ি থেকে খোরশিদ মিয়ার পুত্র মনির হোসেনকে মাদকসহ সেবনরত অবস্থায় আটক করা হয়।

পরে অভিযুক্ত যুবক তার দোষ স্বীকার করায় তাকে ৭দিনের কারাদণ্ড ও ১শ’ টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।

একই সময় ওই ইউপির উযারিয়া গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেনের পুত্র মানিক মিয়াকে মাদকসহ সেবনরত অবস্থায় আটক করা হয়।

অভিযুক্ত তার দোষস্বীকার করায় তাকে ৭ দিনের কারাদণ্ড,১শ’ টাকা অর্থদন্ড দেওয়া হয়। ওই অভিযানগুলোতে অভিযুক্ত মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীরা তাদের দোষস্বীকার করায়, এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরী ভ্রাম্যমান আদালতে মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন, ২০১৮ এর সংশ্লিষ্ট ধারায় অভিযুক্তদের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও অর্থদণ্ড প্রদান করেন।

এতে সার্বিক সহযোগিতা করেন চাঁদপুর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক সেন্টু রঞ্জন নাথ এবং চাঁদপুর এবং শাহরাস্তি থানা পুলিশের সমন্বয়ে গঠিত টাস্কফোর্স টীম এবং সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভূমি অফিসের কর্মচারীবৃন্দ।

এদিকে উপজেলা প্রশাসনের তরফ থেকে মাদক বিরোধী সাঁড়াশি অভিযানকে সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ সাধুবাদ জানিয়েছেন।

বিশেষ করে উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিজ্ঞ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো: ইয়াসির আরাফাত এবং সহকারী কমিশনার ভূমি এক্সেকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট রেজওয়ানা চৌধুরী এ জনপদে যোগদানের পর থেকে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, বাজার মনিটরিং,শিক্ষা ক্ষেত্রে, অবৈধ মাটি উত্তোলন, কৃষির ফসলি জমিনের টপসওয়েল কাটারোধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেন।

এতে সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে আকাশচুম্বী উন্নতি দৃশ্যমান হওয়ায় প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন তারা ।