ঢাকা ১২:৫১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শাহরাস্তিতে ১২-১৭ বছর বয়সী ১ম ডোজ টিকার আওতায় ২২হাজার ১শত ৮৮ শিক্ষার্থী

নোমান হোসেন আখন্দ : শাহরাস্তি উপজেলায় ১২-১৭ বৎসর বয়সী শিক্ষার্থীরা ১ম ডোজ ফাইজার টিকা গ্রহন করেছেন।

Model Hospital

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার কোভিড-১৯ ও ওমিক্রন ঠেকাতে সারা দেশের ন্যায় শাহরাস্তি উপজেলার ৩৫ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২২ টি মাদ্রাসা ও ২ টি কারিগরী শাখার ২২ হাজার ১ শত ৮৮ জন শিক্ষার্থী ১ম ডোজ টিকা গ্রহন করেছেন। এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অনুপুস্থিতির কারনে ১ হাজার ৯ শত ৫০ জন শিক্ষার্থী টিকা নিতে পারেননি।

শাহরাস্তি উপজেলার প্রানকেন্দ্র ঐতিহ্যবাহী নিজমেহার মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে অত্যান্ত সুশৃঙ্খল পরিবেশে টিকা গ্রহন করেন এ সকল শিক্ষার্থীরা । উৎসবমুখর পরিবেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা লাইন ধরে টিকা গ্রহন করার উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যনীয়। সে সাথে স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরলস পরিশ্রম ও শিক্ষকদের নিবিড় পর্যবেক্ষন ছিল চোখে পড়ার মত।

উল্লেখ্য, শাহরাস্তি উপজেলার ১৭ বৎসর তর্দ্ধু কলেজ ও বিশ্বাবিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা চাঁদপুর জেলা সদরে কোভিড টিকা গ্রহন করেন। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা: নাসির উদ্দিন জানান, ১ম ডোজ হিসেবে বরাদ্দকৃত (ফাইজার) টিকা ২২ হাজার ১ শত ৮৮ জন টিকা পেয়েছেন। পরবর্তী বরাদ্দ পেলে ১ হাজার ৯ শত ৫০ জন কে টিকার আওতায় আনা হবে। শিক্ষার্থীদের টিকার ক্যাম্পেইন বর্তমানে বন্ধ রয়েছে, টিকা বরাদ্দ পেলেই ক্যাম্পেইন শুরু করবো।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: আহসান উল্ল্যাহ চৌধুরী জানান, বিভিন্ন স্কুল ও মাদ্রাসার কিছু কিছু শিক্ষার্থী টিকা গ্রহন করা থেকে বাদ পড়েছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স টিকা বরাদ্দ পেলে বাদ পড়া শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে। আমরা শতভাগ শিক্ষার্থীকে টিকার আওতায় নিয়ে আসবো ইনশাআল্লাহ।

এ বিষয়ে উপজেলার টিকা কেন্দ্র ও নিজমেহার মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আজাদ হোসেন জানান, উপজেলার সকল স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা অত্যান্ত সুন্দর ও সুশৃঙ্খল পরিবেশে গ্রহন করছেন। শিক্ষার্থীদের টিকা গ্রহনের জন্য সুরক্ষিত কর্ক্ষ স্থাপন করা হয়েছে, স্বাস্থ্যকর্মী ও শিক্ষকরা অত্যান্ত দক্ষতার সহিত কাজ করেছেন। এ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের সুন্দর ও সাবলীল ভাবে টিকা গ্রহনের বিষয়টি পুরো উপজেলায় সুনাম কুড়িয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

শাহরাস্তিতে নিজের পায়ুপথে ৬ ইঞ্চি ডাব প্রবেশ করিয়ে বিপাকে যুবক

শাহরাস্তিতে ১২-১৭ বছর বয়সী ১ম ডোজ টিকার আওতায় ২২হাজার ১শত ৮৮ শিক্ষার্থী

আপডেট সময় : ০৩:৪৬:০৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২

নোমান হোসেন আখন্দ : শাহরাস্তি উপজেলায় ১২-১৭ বৎসর বয়সী শিক্ষার্থীরা ১ম ডোজ ফাইজার টিকা গ্রহন করেছেন।

Model Hospital

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বর্তমান সরকার কোভিড-১৯ ও ওমিক্রন ঠেকাতে সারা দেশের ন্যায় শাহরাস্তি উপজেলার ৩৫ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ২২ টি মাদ্রাসা ও ২ টি কারিগরী শাখার ২২ হাজার ১ শত ৮৮ জন শিক্ষার্থী ১ম ডোজ টিকা গ্রহন করেছেন। এতে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের অনুপুস্থিতির কারনে ১ হাজার ৯ শত ৫০ জন শিক্ষার্থী টিকা নিতে পারেননি।

শাহরাস্তি উপজেলার প্রানকেন্দ্র ঐতিহ্যবাহী নিজমেহার মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ে অত্যান্ত সুশৃঙ্খল পরিবেশে টিকা গ্রহন করেন এ সকল শিক্ষার্থীরা । উৎসবমুখর পরিবেশে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা লাইন ধরে টিকা গ্রহন করার উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যনীয়। সে সাথে স্বাস্থ্যকর্মীদের নিরলস পরিশ্রম ও শিক্ষকদের নিবিড় পর্যবেক্ষন ছিল চোখে পড়ার মত।

উল্লেখ্য, শাহরাস্তি উপজেলার ১৭ বৎসর তর্দ্ধু কলেজ ও বিশ্বাবিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা চাঁদপুর জেলা সদরে কোভিড টিকা গ্রহন করেন। এ বিষয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডা: নাসির উদ্দিন জানান, ১ম ডোজ হিসেবে বরাদ্দকৃত (ফাইজার) টিকা ২২ হাজার ১ শত ৮৮ জন টিকা পেয়েছেন। পরবর্তী বরাদ্দ পেলে ১ হাজার ৯ শত ৫০ জন কে টিকার আওতায় আনা হবে। শিক্ষার্থীদের টিকার ক্যাম্পেইন বর্তমানে বন্ধ রয়েছে, টিকা বরাদ্দ পেলেই ক্যাম্পেইন শুরু করবো।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: আহসান উল্ল্যাহ চৌধুরী জানান, বিভিন্ন স্কুল ও মাদ্রাসার কিছু কিছু শিক্ষার্থী টিকা গ্রহন করা থেকে বাদ পড়েছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স টিকা বরাদ্দ পেলে বাদ পড়া শিক্ষার্থীদের টিকার আওতায় নিয়ে আসা হবে। আমরা শতভাগ শিক্ষার্থীকে টিকার আওতায় নিয়ে আসবো ইনশাআল্লাহ।

এ বিষয়ে উপজেলার টিকা কেন্দ্র ও নিজমেহার মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: আজাদ হোসেন জানান, উপজেলার সকল স্কুল ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীরা অত্যান্ত সুন্দর ও সুশৃঙ্খল পরিবেশে গ্রহন করছেন। শিক্ষার্থীদের টিকা গ্রহনের জন্য সুরক্ষিত কর্ক্ষ স্থাপন করা হয়েছে, স্বাস্থ্যকর্মী ও শিক্ষকরা অত্যান্ত দক্ষতার সহিত কাজ করেছেন। এ প্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের সুন্দর ও সাবলীল ভাবে টিকা গ্রহনের বিষয়টি পুরো উপজেলায় সুনাম কুড়িয়েছে।