ঢাকা ০৫:২২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শাহরাস্তিতে ড্রেজার তান্ডবে ফসলি জমির কৃষকরা দিশেহারা

প্রিয় চাঁদপুর রিপোর্ট : শাহরাস্তিতে প্রশাসনের নানামুখী পদক্ষেপ সত্বেও একশ্রেণীর অসাধু বালু ব্যবসায়ী ড্রেজারে বালি উত্তোলন অব্যাহতভাবে  চালিয়ে যাচ্ছে।
রবিবার উপজেলার টামটা দক্ষিণ ইউনিয়নের গ্রীন রোডের মাথায় দুলালের বিক্ ফিল্ড ও ডাকাতিয়া নদী, ইরিগ্রেশন প্রকল্প সাথে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা অভিযোগ তুলে।
ওই সংবাদের ভিত্তিতে সাংবাদিকরা বিষয়টি দেখতে সেখানে ছুটে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও এলাকাবাসী সূত্র জানা গেছে ওই মাঠের টামটা পশ্চিমপাড়া নোয়াবাড়ি নিবাসী আব্দুল বারেকের পুত্র সাদ্দাম হোসেন (৩২) সে এলাকার ফসলি জমিতে ড্রেজারে মাটি উত্তোলন করে নৈরাজ্য চালিয়ে আসছে।
এতে স্থানীয়রা বাধা সৃষ্টি করলে সে ড্রেজার স্থাপিত ভূমিটি তার ও সহোদরদের দাবি করে  শেখান থেকে নিয়ম-নীতিহীনভাবে বালি উত্তোলন করে স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্নভাবে বিক্রি করে আসছে। এতে তাদের পার্শ্ববর্তী জমি কৃষকরা ওই ড্রেজারের তাণ্ডবে তাদের ভূমি অরক্ষিত হয়ে পড়ায় তাকে বারবার বাঁধা সৃষ্টি করছে। ড্রেজার স্থাপনকারী সাদ্দাম বিষয়টি আমলে না নিয়ে সে তার মত করে বালু উত্তোলন অব্যাহত রেখেছে।
রবিবার সংবাদ কর্মীরা ছুটে গেলে ড্রেজার মালিক ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা পালিয়ে যায়।
এ বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জমি মালিক ও স্থানীয় বাসিন্দারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছে।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

শহীদ মিনারে শিশু-কিশোরা, শহীদদের ফুলেল শ্রদ্ধায় হৃদয়ে জাগরন সৃষ্টি

শাহরাস্তিতে ড্রেজার তান্ডবে ফসলি জমির কৃষকরা দিশেহারা

আপডেট সময় : ০৪:৩৭:১৩ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২
প্রিয় চাঁদপুর রিপোর্ট : শাহরাস্তিতে প্রশাসনের নানামুখী পদক্ষেপ সত্বেও একশ্রেণীর অসাধু বালু ব্যবসায়ী ড্রেজারে বালি উত্তোলন অব্যাহতভাবে  চালিয়ে যাচ্ছে।
রবিবার উপজেলার টামটা দক্ষিণ ইউনিয়নের গ্রীন রোডের মাথায় দুলালের বিক্ ফিল্ড ও ডাকাতিয়া নদী, ইরিগ্রেশন প্রকল্প সাথে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়রা অভিযোগ তুলে।
ওই সংবাদের ভিত্তিতে সাংবাদিকরা বিষয়টি দেখতে সেখানে ছুটে যায়। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক ও এলাকাবাসী সূত্র জানা গেছে ওই মাঠের টামটা পশ্চিমপাড়া নোয়াবাড়ি নিবাসী আব্দুল বারেকের পুত্র সাদ্দাম হোসেন (৩২) সে এলাকার ফসলি জমিতে ড্রেজারে মাটি উত্তোলন করে নৈরাজ্য চালিয়ে আসছে।
এতে স্থানীয়রা বাধা সৃষ্টি করলে সে ড্রেজার স্থাপিত ভূমিটি তার ও সহোদরদের দাবি করে  শেখান থেকে নিয়ম-নীতিহীনভাবে বালি উত্তোলন করে স্থানীয় পর্যায়ে বিভিন্নভাবে বিক্রি করে আসছে। এতে তাদের পার্শ্ববর্তী জমি কৃষকরা ওই ড্রেজারের তাণ্ডবে তাদের ভূমি অরক্ষিত হয়ে পড়ায় তাকে বারবার বাঁধা সৃষ্টি করছে। ড্রেজার স্থাপনকারী সাদ্দাম বিষয়টি আমলে না নিয়ে সে তার মত করে বালু উত্তোলন অব্যাহত রেখেছে।
রবিবার সংবাদ কর্মীরা ছুটে গেলে ড্রেজার মালিক ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা পালিয়ে যায়।
এ বিষয়ে ক্ষতিগ্রস্ত জমি মালিক ও স্থানীয় বাসিন্দারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছে।