ঢাকা ০৯:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কচুয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদারের বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যদের অনাস্থা

কচুয়া উপজেলার ৩নং বিতারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছেন ইউনিয়ন পরিষদের ১১ জন সদস্য। গত রোববার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিতভাবে তারা অনাস্থা প্রস্তাব জমা দেন এবং তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।
এই অনাস্থা প্রস্তাবের অনুলিপি স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক ও উপজেলা চেয়ারম্যান,প্যানেল চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান কাছে দেওয়া হয়েছে।
লিখিত অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যানের স্বেচ্ছাচারিতা, বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতি, ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য নামে বরাদ্দকৃত অর্থ,টিআর, কাবিখা, কাবিটা, এলজিডি ১ % লুটপাট অব্যাহত থাকায় আরও কিছু অনিয়মের অভিযোগ এনে ১১ জন ইউপি সদস্য স্বাক্ষর করে অনাস্থার লিখিত প্রস্তাব দিয়েছে।
অনাস্থা প্রস্তাব প্রসঙ্গে বিতারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদার কাছে বিষয়টি মুঠোফোনের মাধ্যমে বক্তব্য জানতে চাইলেও ফোন রিসিভ না করা বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
কচুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল হাসান বলেন, আমি ছুটিতে রয়েছি, বিতারা ইউনিয়নের মেম্বারদের লিখিত অভিযোগের একটি কপি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে দেখেছি ।
ইউপি সদস্যরা লিখিত অভিযোগ অফিসে জমা দিয়ে থাকে তাহলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
ট্যাগস :

কচুয়ায় ইউপি চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদারের বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যদের অনাস্থা

আপডেট সময় : ১০:৫৬:৫৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ৩ জুলাই ২০২৩
কচুয়া উপজেলার ৩নং বিতারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব এনেছেন ইউনিয়ন পরিষদের ১১ জন সদস্য। গত রোববার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবর লিখিতভাবে তারা অনাস্থা প্রস্তাব জমা দেন এবং তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।
এই অনাস্থা প্রস্তাবের অনুলিপি স্থানীয় সংসদ সদস্য, জেলা প্রশাসক ও উপজেলা চেয়ারম্যান,প্যানেল চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান কাছে দেওয়া হয়েছে।
লিখিত অভিযোগে ইউপি চেয়ারম্যানের স্বেচ্ছাচারিতা, বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতি, ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য নামে বরাদ্দকৃত অর্থ,টিআর, কাবিখা, কাবিটা, এলজিডি ১ % লুটপাট অব্যাহত থাকায় আরও কিছু অনিয়মের অভিযোগ এনে ১১ জন ইউপি সদস্য স্বাক্ষর করে অনাস্থার লিখিত প্রস্তাব দিয়েছে।
অনাস্থা প্রস্তাব প্রসঙ্গে বিতারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদার কাছে বিষয়টি মুঠোফোনের মাধ্যমে বক্তব্য জানতে চাইলেও ফোন রিসিভ না করা বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।
কচুয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ নাজমুল হাসান বলেন, আমি ছুটিতে রয়েছি, বিতারা ইউনিয়নের মেম্বারদের লিখিত অভিযোগের একটি কপি সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে দেখেছি ।
ইউপি সদস্যরা লিখিত অভিযোগ অফিসে জমা দিয়ে থাকে তাহলে তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।