ঢাকা ০৭:৫১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আত্মকর্মস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে চাঁদপুরে উদ্বোধন হয়েছে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

  • মাসুদ হোসেন
  • আপডেট সময় : ০৭:৫৮:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩
  • 676
চাঁদপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের আত্মকর্মস্থান সৃষ্টি হবে বলে মন্তব্য করেছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। তিনি বলেন, আজকে চাঁদপুরের জন্য একটি বিশেষ দিন। কারন এরকম একটি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এখানে উদ্বোধন হওয়ায়। আমরা শিক্ষাজীবনে শুধু জ্ঞান নয়, সে জ্ঞান থেকে প্রয়োগ করবার দক্ষতা থাকতে হবে। আর সেই দক্ষতা যদি অর্জন করি, তাহলে আমাদের আয় রোজগার বাড়বে এবং দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাবে ও দেশ উন্নত হবে। ২০০৯ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করলেন তখন আমাদের বৈদেশিক আয় রেমিট্যান্স ছিল ৯.৬ বিলিয়ন এর মতো। আর এখন সেটি দাঁড়িয়েছে ২২ বিলিয়ন এ।
তিনি আরো বলেন, ২০০৯ সালে কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার ছিল শতকরা একভাগেরও কম। আর আজকে সেই ভর্তির হার সতেরো ভাগের বেশি। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ২০০৯ সালের লক্ষ্যমাত্রা মোতাবেক আমরা সেখানে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা তাঁর দৃঢ় দৃষ্টি, বিচক্ষণতা ও তাঁর সাহস দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি যখন যে পরিকল্পনা করেন সে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে থাকেন। তিনি দেশকে উন্নত করতে কথা দিয়েছিলেন ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ করবে তা কিন্তু হয়ছে। এবং আজকে তিনি স্বপ্ন দেখিয়েছেন আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ সুখি শান্তিময় একটি স্মার্ট বাংলাদেশ হবে। আমি বিশ্বাস করি আজকে শিক্ষা ব্যবস্থায়, দক্ষতায় আমরা যে কার্যক্রমগুলো শুরু করেছি তার ফলশ্রুতিতে আমরা অবশ্যই
আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ হতে পারবো ইনশাআল্লাহ। বাংলাদেশের মতো একটি ছোট দেশে এত পরিমাণ রেমিট্যান্স আয় করছে তা কি করে সম্ভব তা হলো দক্ষতার উপর।
চাঁদপুরের মানুষ এই কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে ভাষা ও দক্ষতা নিয়ে বিদেশে গেলে আয় করতে সমস্যা হবে না। অনেকে বলেন ফ্রি ভিসা দিয়ে বিদেশে পাঠান। আসলে ফ্রি ভিসা বলতে বিদেশে কিছু নেই। তারা আপনার সাথে প্রতারণা করছে, আপনার সন্তানকে অনিরাপদ ও জীবনের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। আপনি যখন বিদেশে অবৈধভাবে যাবেন, সেই দেশের নিরাপত্তা বাহিনী সারাক্ষণ যখন আপনার পেছনে ঘুরে আপনাকে আটক করবে। অনেক ক্ষেত্রে তাদেরকে বিদেশে নিয়ে গিয়ে ছেড়ে দিলে বাসস্থানসহ খাবারের ব্যবস্থাও থাকে না। তাই সরকারের বৈধ পদ্ধতিতে যাবেন, আপনি অনেক কম খরচে যেতে পারবেন। জমি জমা বিক্রি করে যেতে হবে না। আপনার প্রবাস জীবন বৈধ হবে, নিরাপদ হবে, আপনার আয় রোজগার নিশ্চিত হবে।
আপনি যে চাকরিতে যাবেন সেই চাকরিদাতা আপনাকে সময়মত আপনাকে বেতন দিবে। আর যদি তথাকথিত ফ্রি ভিসায় যান, তাহলে দেখবেন, চাকরি নাই, সেখানে নিরাপত্তা নাই, কোথায় নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে তাও বলতে পারবেন না। কাজেই এই অবৈধভাবে কেউ দয়া করে আপনারা পা বাড়াবেন না। এবং প্রত্যেকে আপনার প্রতিবেশি, আত্মীয় যেই হোক তাদেরকে বলবেন এই কথাগুলো যে সরকার ব্যাংক করে দিয়েছে সে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে যাওয়ারও সুযোগ হয়েছে। নারীদের অভিবাসনও আগের তুলনায় এখন অনেক বেশি নিরাপদ। তারা দক্ষ হয়ে বিদেশে গেছেই বলে ভালো কাজ পেয়েছে। তাদের জীবনমান উন্নয়ন হয়েছে। তারা তাদের পরিবারকে যেমন উন্নত জীবন দান করতে কাজ করছে, তেমনি দেশের উন্নয়নেও অবদান রাখছে। তবে হাতে কলমের দক্ষতার পাশাপাশি ভাষার দক্ষতা নিয়ে যেতে হবে। ভাষা জানলে আপনাকে কেউ বিপদে ফেলতে পারবে না। আপনার অধিকার কেউ ক্ষুন্ন করতে পারবে না।
শনিবার (১৫ জুলাই) সকালে সাড়ে ১০টায় চাঁদপুর সদর উপজেলার আশিকাটি চাঁদখার বাজারস্থ  প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন এর সভাপতিত্বে চাঁদপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি।
উদ্বোধকের বক্তব্যে তিনি বলেন, কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আপনাদের জন্যই করা হয়েছে। কারন আপনারা যাতে দক্ষ হয়ে বিদেশ যান। গত বছর চাঁদপুর থেকে বিদেশে গিয়েছে ৪৫ হাজার পাঁচ’শ জন। সেই ক্ষেত্রে চাঁদপুরের অবস্থান ৫ম। আর কুমিল্লার অবস্থান প্রথম। দেশের উন্নয়নে যে আপনাদের ভূমিকা রাখছেন তাই বলবো আপনারা আরো এগিয়ে যান। দক্ষ হয়ে বিদেশে গেলে কোন প্রবাসীই বিপদে পড়েন না। তাই আপনাদের উদ্দেশ্যে আমি বলবো, আপনারা কিংবা আপনাদের সন্তানদের এই টিটিসি থেকে প্রশিক্ষণ দিয়ে বিদেশে পাঠাবেন। তাহলে তারা আর কোন বিপদে পড়বে না। পরিবারের জীবনমান উন্নয়নসহ দেশের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারবে। কোন ঝুঁকির মধ্যেও থাকবে না তারা। তিনি চাঁদপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের অধ্যক্ষের নিকট অনুরোধ করে বলেন, প্রথম ব্যাচ এর শিক্ষার্থীরা যেন ভর্তির সময় দুইটি করে ফলজ ও ঔষধি গাছ নিয়ে এসে রোপন করেন এই ক্যাম্পাসে। তাহলে আগামী পাঁচ বছর এই এরিয়াটি হবে প্রাকৃতিক পরিবেশে সাজানো দৃষ্টিনন্দন ক্যাম্পাস। কারিগরি শিক্ষা গ্রহনের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীরা উন্নত শিখরে পৌঁছানো সম্ভব। আর কর্মময় জীবনে অনেকেই কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে সাফল্য অর্জন করেছে।
এম আর ইসলাম বাবুর প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, পুলিশ সুপার মোঃ মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার), চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, চাঁদপুর গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রকিবুর রহমান।
এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বশির আহমেদ, চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) হেদায়েত উল্যাহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ইয়াসির আরাফাত, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রোমান, ভাইস চেয়ারম্যান জিএস তছলিম, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক এ্যাড. রনজিত রায় চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলী এরশাদ মিয়াজী, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি এএইচএম আহসান উল্যাহ সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান সুমন

আত্মকর্মস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে চাঁদপুরে উদ্বোধন হয়েছে কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

আপডেট সময় : ০৭:৫৮:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩
চাঁদপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের মাধ্যমে এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের আত্মকর্মস্থান সৃষ্টি হবে বলে মন্তব্য করেছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। তিনি বলেন, আজকে চাঁদপুরের জন্য একটি বিশেষ দিন। কারন এরকম একটি কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র এখানে উদ্বোধন হওয়ায়। আমরা শিক্ষাজীবনে শুধু জ্ঞান নয়, সে জ্ঞান থেকে প্রয়োগ করবার দক্ষতা থাকতে হবে। আর সেই দক্ষতা যদি অর্জন করি, তাহলে আমাদের আয় রোজগার বাড়বে এবং দেশের অর্থনীতি এগিয়ে যাবে ও দেশ উন্নত হবে। ২০০৯ সালে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যখন দ্বিতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করলেন তখন আমাদের বৈদেশিক আয় রেমিট্যান্স ছিল ৯.৬ বিলিয়ন এর মতো। আর এখন সেটি দাঁড়িয়েছে ২২ বিলিয়ন এ।
তিনি আরো বলেন, ২০০৯ সালে কারিগরি শিক্ষায় ভর্তির হার ছিল শতকরা একভাগেরও কম। আর আজকে সেই ভর্তির হার সতেরো ভাগের বেশি। তবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ২০০৯ সালের লক্ষ্যমাত্রা মোতাবেক আমরা সেখানে পৌঁছাতে সক্ষম হয়েছি। বঙ্গবন্ধু কন্যা তাঁর দৃঢ় দৃষ্টি, বিচক্ষণতা ও তাঁর সাহস দিয়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন। তিনি যখন যে পরিকল্পনা করেন সে পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে থাকেন। তিনি দেশকে উন্নত করতে কথা দিয়েছিলেন ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ করবে তা কিন্তু হয়ছে। এবং আজকে তিনি স্বপ্ন দেখিয়েছেন আমরা ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত সমৃদ্ধ সুখি শান্তিময় একটি স্মার্ট বাংলাদেশ হবে। আমি বিশ্বাস করি আজকে শিক্ষা ব্যবস্থায়, দক্ষতায় আমরা যে কার্যক্রমগুলো শুরু করেছি তার ফলশ্রুতিতে আমরা অবশ্যই
আগামী ২০৪১ সালের মধ্যে স্মার্ট বাংলাদেশ হতে পারবো ইনশাআল্লাহ। বাংলাদেশের মতো একটি ছোট দেশে এত পরিমাণ রেমিট্যান্স আয় করছে তা কি করে সম্ভব তা হলো দক্ষতার উপর।
চাঁদপুরের মানুষ এই কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র থেকে প্রশিক্ষণ নিয়ে ভাষা ও দক্ষতা নিয়ে বিদেশে গেলে আয় করতে সমস্যা হবে না। অনেকে বলেন ফ্রি ভিসা দিয়ে বিদেশে পাঠান। আসলে ফ্রি ভিসা বলতে বিদেশে কিছু নেই। তারা আপনার সাথে প্রতারণা করছে, আপনার সন্তানকে অনিরাপদ ও জীবনের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিচ্ছে। আপনি যখন বিদেশে অবৈধভাবে যাবেন, সেই দেশের নিরাপত্তা বাহিনী সারাক্ষণ যখন আপনার পেছনে ঘুরে আপনাকে আটক করবে। অনেক ক্ষেত্রে তাদেরকে বিদেশে নিয়ে গিয়ে ছেড়ে দিলে বাসস্থানসহ খাবারের ব্যবস্থাও থাকে না। তাই সরকারের বৈধ পদ্ধতিতে যাবেন, আপনি অনেক কম খরচে যেতে পারবেন। জমি জমা বিক্রি করে যেতে হবে না। আপনার প্রবাস জীবন বৈধ হবে, নিরাপদ হবে, আপনার আয় রোজগার নিশ্চিত হবে।
আপনি যে চাকরিতে যাবেন সেই চাকরিদাতা আপনাকে সময়মত আপনাকে বেতন দিবে। আর যদি তথাকথিত ফ্রি ভিসায় যান, তাহলে দেখবেন, চাকরি নাই, সেখানে নিরাপত্তা নাই, কোথায় নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে তাও বলতে পারবেন না। কাজেই এই অবৈধভাবে কেউ দয়া করে আপনারা পা বাড়াবেন না। এবং প্রত্যেকে আপনার প্রতিবেশি, আত্মীয় যেই হোক তাদেরকে বলবেন এই কথাগুলো যে সরকার ব্যাংক করে দিয়েছে সে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে যাওয়ারও সুযোগ হয়েছে। নারীদের অভিবাসনও আগের তুলনায় এখন অনেক বেশি নিরাপদ। তারা দক্ষ হয়ে বিদেশে গেছেই বলে ভালো কাজ পেয়েছে। তাদের জীবনমান উন্নয়ন হয়েছে। তারা তাদের পরিবারকে যেমন উন্নত জীবন দান করতে কাজ করছে, তেমনি দেশের উন্নয়নেও অবদান রাখছে। তবে হাতে কলমের দক্ষতার পাশাপাশি ভাষার দক্ষতা নিয়ে যেতে হবে। ভাষা জানলে আপনাকে কেউ বিপদে ফেলতে পারবে না। আপনার অধিকার কেউ ক্ষুন্ন করতে পারবে না।
শনিবার (১৫ জুলাই) সকালে সাড়ে ১০টায় চাঁদপুর সদর উপজেলার আশিকাটি চাঁদখার বাজারস্থ  প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব ড. আহমেদ মুনিরুছ সালেহীন এর সভাপতিত্বে চাঁদপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের শুভ উদ্বোধন করেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ এমপি।
উদ্বোধকের বক্তব্যে তিনি বলেন, কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র আপনাদের জন্যই করা হয়েছে। কারন আপনারা যাতে দক্ষ হয়ে বিদেশ যান। গত বছর চাঁদপুর থেকে বিদেশে গিয়েছে ৪৫ হাজার পাঁচ’শ জন। সেই ক্ষেত্রে চাঁদপুরের অবস্থান ৫ম। আর কুমিল্লার অবস্থান প্রথম। দেশের উন্নয়নে যে আপনাদের ভূমিকা রাখছেন তাই বলবো আপনারা আরো এগিয়ে যান। দক্ষ হয়ে বিদেশে গেলে কোন প্রবাসীই বিপদে পড়েন না। তাই আপনাদের উদ্দেশ্যে আমি বলবো, আপনারা কিংবা আপনাদের সন্তানদের এই টিটিসি থেকে প্রশিক্ষণ দিয়ে বিদেশে পাঠাবেন। তাহলে তারা আর কোন বিপদে পড়বে না। পরিবারের জীবনমান উন্নয়নসহ দেশের উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারবে। কোন ঝুঁকির মধ্যেও থাকবে না তারা। তিনি চাঁদপুর কারিগরি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের অধ্যক্ষের নিকট অনুরোধ করে বলেন, প্রথম ব্যাচ এর শিক্ষার্থীরা যেন ভর্তির সময় দুইটি করে ফলজ ও ঔষধি গাছ নিয়ে এসে রোপন করেন এই ক্যাম্পাসে। তাহলে আগামী পাঁচ বছর এই এরিয়াটি হবে প্রাকৃতিক পরিবেশে সাজানো দৃষ্টিনন্দন ক্যাম্পাস। কারিগরি শিক্ষা গ্রহনের মাধ্যমে ছাত্র-ছাত্রীরা উন্নত শিখরে পৌঁছানো সম্ভব। আর কর্মময় জীবনে অনেকেই কারিগরি শিক্ষার মাধ্যমে সাফল্য অর্জন করেছে।
এম আর ইসলাম বাবুর প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন চাঁদপুর জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, পুলিশ সুপার মোঃ মিলন মাহমুদ বিপিএম (বার), চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান, চাঁদপুর গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ রকিবুর রহমান।
এসময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) বশির আহমেদ, চাঁদপুর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) হেদায়েত উল্যাহ, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) ইয়াসির আরাফাত, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রোমান, ভাইস চেয়ারম্যান জিএস তছলিম, সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আইয়ুব আলী বেপারী, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আবিদা সুলতানা, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের উপ দপ্তর সম্পাদক এ্যাড. রনজিত রায় চৌধুরী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলী এরশাদ মিয়াজী, চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি এএইচএম আহসান উল্যাহ সহ বিভিন্ন প্রশাসনিক কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ।