ঢাকা ১২:৩৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

কচুয়ায় অগ্নিকান্ডে বসতঘর পুড়ে ভস্মীভূত

চাঁদপুরের কচুয়ায় অগ্নিকান্ডে ১টি বসতঘর ও ১টি রান্নাঘর পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে।

Model Hospital

মঙ্গলবার ( ১৬ জানুয়ারী) উপজেলা কচুয়া-সাচার-গৌরিপুর সড়কের পাশে দোয়াটি গ্রামে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান প্রায় ৩ লক্ষ টাকা দাবী করেন ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের মৃত লুৎফুর রহমানের ছেলে কামরুল হকের বসত ঘরে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। অগ্নিকান্ডের সময় বাড়িতে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের কেউ ছিল না। পথচারী লোকজন আগুনের লেলিহান শিখা দেখতে পেয়ে কচুয়া ফায়ার স্টেশনে খবর দেয়।

এসময় ফায়ার সার্ভিসের আসার আগেই বসতঘর, রান্নাঘরসহ ঘরের মালামাল পুড়ে ভস্মীভূত হয়ে যায়।

ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার কামরুল বলেন, আমি এবং বাবা মাঠের কৃষি জমিতে কাজ করতে যাই, আমার স্ত্রী পাশের বাড়ীতে বাচ্চাদের আরবী পড়াতে যায়। হঠাৎ বাড়ীতে ডাক-চিকিৎকার শুনে এসে দেখি বসত ঘরে আগুন  জ্বছে। দেখতে দেখতে বসতঘর ও রান্নাঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে ঘরে থাকা মালামালের ক্ষতির পরিমান প্রায় ৩ লক্ষ টাকা। আমরা এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. হাবিব মজুমদার জয় অগ্নিকান্ডের খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং তাৎক্ষনিক ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে খাবার ও শীত বস্ত্র প্রদান করেন।

কচুয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মোঃ মাহতাব মন্ডল জানান, অগ্নিকান্ডে খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি।

প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে আগুনের সূত্রপাত বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে অটো চালকের মৃত্যু

কচুয়ায় অগ্নিকান্ডে বসতঘর পুড়ে ভস্মীভূত

আপডেট সময় : ০৯:১৬:৩৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২৪

চাঁদপুরের কচুয়ায় অগ্নিকান্ডে ১টি বসতঘর ও ১টি রান্নাঘর পুড়ে ভস্মীভূত হয়েছে।

Model Hospital

মঙ্গলবার ( ১৬ জানুয়ারী) উপজেলা কচুয়া-সাচার-গৌরিপুর সড়কের পাশে দোয়াটি গ্রামে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমান প্রায় ৩ লক্ষ টাকা দাবী করেন ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার।

ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ওই গ্রামের মৃত লুৎফুর রহমানের ছেলে কামরুল হকের বসত ঘরে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। অগ্নিকান্ডের সময় বাড়িতে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের কেউ ছিল না। পথচারী লোকজন আগুনের লেলিহান শিখা দেখতে পেয়ে কচুয়া ফায়ার স্টেশনে খবর দেয়।

এসময় ফায়ার সার্ভিসের আসার আগেই বসতঘর, রান্নাঘরসহ ঘরের মালামাল পুড়ে ভস্মীভূত হয়ে যায়।

ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার কামরুল বলেন, আমি এবং বাবা মাঠের কৃষি জমিতে কাজ করতে যাই, আমার স্ত্রী পাশের বাড়ীতে বাচ্চাদের আরবী পড়াতে যায়। হঠাৎ বাড়ীতে ডাক-চিকিৎকার শুনে এসে দেখি বসত ঘরে আগুন  জ্বছে। দেখতে দেখতে বসতঘর ও রান্নাঘরটি পুড়ে ছাই হয়ে যায়। এতে ঘরে থাকা মালামালের ক্ষতির পরিমান প্রায় ৩ লক্ষ টাকা। আমরা এখন খোলা আকাশের নিচে বসবাস ছাড়া আর কোনো উপায় নেই।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. হাবিব মজুমদার জয় অগ্নিকান্ডের খবর শুনে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং তাৎক্ষনিক ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের মাঝে খাবার ও শীত বস্ত্র প্রদান করেন।

কচুয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশন কর্মকর্তা মোঃ মাহতাব মন্ডল জানান, অগ্নিকান্ডে খবর পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনি।

প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে আগুনের সূত্রপাত বৈদ্যুতিক শর্ট-সার্কিট থেকে।