ঢাকা ১০:২৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শাহরাস্তিতে প্রশাসনের অভিযানে ফলের আড়তে ৭০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড

শাহরাস্তিতে উপজেলা প্রশাসনের অভিযানে ফলের  আড়তে ৭০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড প্রদান করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।
সংশ্লিষ্ট  সূত্র জানায়, শুক্রবার পবিত্র মাহে রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় মাত্রায় রাখতে বাজার মনিটরিং এর অংশ হিসেবে শাহরাস্তি পৌর শহরের ঠাকুরবাজার, দোয়াভাঙ্গা ও কালিয়াপাড়া এলাকায় উপজেলা প্রশাসনের তরফ থেকে একটি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়।
এ সময় দুইটি তরমুজের আড়ত এবং দুইটি ফলের আড়তের কৃষি বিপণন লাইসেন্স, পাকা রশিদ, মূল্য তালিকা, বিক্রয় রশিদ এবং মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, কৃষি বিপণন লাইসেন্স না থাকা, পাকা রশিদ দেখাতে না পারা, বিক্রয় রশিদের কার্বন কপি না থাকা ইত্যাদি অসঙ্গতি পাওয়ায় যায়।
ওই সময় ঠাকুরবাজারের একটি তরমুজ আড়তকে ১০ হাজার টাকা, দোয়াভাঙ্গার মদিনা এন্টারপ্রাইজ ফলের আড়তকে ৩০ হাজার টাকা, ফলের আড়তকে ৩০ হাজার টাকা, কালিয়াপাড়ার ভোলা চরফ্যাশন বাণিজ্যলায় তরমুজ আড়ততে ২০ হাজার টাকা এবং ভাই ভাই ফল ভান্ডার তরমুজ আড়তকে ১০হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।
ওই সময় এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিজ্ঞ নির্বাহী  ম্যাজিস্ট্রেট মো: ইয়াসির আরাফাত।
অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেন, শাহরাস্তি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোঃ আলমগীর হোসেন এবং সঙ্গীও ফোর্স।
এ প্রসঙ্গে শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান, সরকার ঘোষিত দ্রব্যমূল্যর দামের তালিকা ও ন্যায্য দামের বাইরে যেকোনো অনিয়ম প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে অটো চালকের মৃত্যু

শাহরাস্তিতে প্রশাসনের অভিযানে ফলের আড়তে ৭০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড

আপডেট সময় : ১২:১৮:২৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৭ মার্চ ২০২৪
শাহরাস্তিতে উপজেলা প্রশাসনের অভিযানে ফলের  আড়তে ৭০ হাজার টাকার অর্থদণ্ড প্রদান করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।
সংশ্লিষ্ট  সূত্র জানায়, শুক্রবার পবিত্র মাহে রমজানে দ্রব্যমূল্য সহনীয় মাত্রায় রাখতে বাজার মনিটরিং এর অংশ হিসেবে শাহরাস্তি পৌর শহরের ঠাকুরবাজার, দোয়াভাঙ্গা ও কালিয়াপাড়া এলাকায় উপজেলা প্রশাসনের তরফ থেকে একটি ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়।
এ সময় দুইটি তরমুজের আড়ত এবং দুইটি ফলের আড়তের কৃষি বিপণন লাইসেন্স, পাকা রশিদ, মূল্য তালিকা, বিক্রয় রশিদ এবং মূল্যতালিকা প্রদর্শন না করা, কৃষি বিপণন লাইসেন্স না থাকা, পাকা রশিদ দেখাতে না পারা, বিক্রয় রশিদের কার্বন কপি না থাকা ইত্যাদি অসঙ্গতি পাওয়ায় যায়।
ওই সময় ঠাকুরবাজারের একটি তরমুজ আড়তকে ১০ হাজার টাকা, দোয়াভাঙ্গার মদিনা এন্টারপ্রাইজ ফলের আড়তকে ৩০ হাজার টাকা, ফলের আড়তকে ৩০ হাজার টাকা, কালিয়াপাড়ার ভোলা চরফ্যাশন বাণিজ্যলায় তরমুজ আড়ততে ২০ হাজার টাকা এবং ভাই ভাই ফল ভান্ডার তরমুজ আড়তকে ১০হাজার টাকা অর্থদণ্ড প্রদান করা হয়।
ওই সময় এ ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও বিজ্ঞ নির্বাহী  ম্যাজিস্ট্রেট মো: ইয়াসির আরাফাত।
অভিযানে সার্বিক সহযোগিতা করেন, শাহরাস্তি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি মোঃ আলমগীর হোসেন এবং সঙ্গীও ফোর্স।
এ প্রসঙ্গে শাহরাস্তি উপজেলা নির্বাহী অফিসার জানান, সরকার ঘোষিত দ্রব্যমূল্যর দামের তালিকা ও ন্যায্য দামের বাইরে যেকোনো অনিয়ম প্রশাসনের দৃষ্টিগোচর হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।