ঢাকা ১২:১৩ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তীব্র গরমের পর স্বস্তির বৃষ্টিতে শীতল চাঁদপুরের জনজীবন

  • মাসুদ হোসেন
  • আপডেট সময় : ১১:৪১:২৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মে ২০২৪
  • 150
কাঠফাটা রোদ আর টানা কয়েক দিনের ভ্যাপসা গরমের পর চাঁদপুরে নেমেছে স্বস্তির বৃষ্টি।
রোববার রাত ৯টার পর থেকেই আকাশ ছিল মেঘাচ্ছন্ন। হালকা বাতাসের ঠান্ডার পরশ জনজীবনের শান্তি নিয়ে আসে। তবে জেলার কোথাও কোথাও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়।
সোমবার (৬ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আকাশ জুড়ে মেঘের খেলা শেষে চাঁদপুরের বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয় বৃষ্টি।
বৃষ্টির সঙ্গে রয়েছে মেঘের গর্জন ও ঝড়ো বাতাস। তবে বৃষ্টির কারণে ব্যস্ত শহরবাসীকে কিছুটা অসুবিধায়ও পড়তে হয়েছে।
বৃষ্টিতে ভিজে অনেককেই নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধান করতে দেখা যায়। অসহ্য গরমের পর বহুল প্রত্যাশিত এই বৃষ্টি মানুষের মধ্যে স্বস্তি এনে দিয়েছে।
অনেকেই আবার স্বস্তির বৃষ্টি পেয়ে একটু গা ভিজিয়ে নিয়েছেন। বৃষ্টির কারণে গরমও কমে এসেছে এই জেলায়।
প্রচণ্ড গরমে জনজীবনে যখন নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছিল। ঠিক তখনই এক পশলা বৃষ্টি যেন মানুষের মধ্যে স্বস্তির নিশ্বাস এনে দিয়েছে। বৃষ্টির পর চাঁদপুরের আবহাওয়া ছিল অত্যন্ত শীতল।
আবহাওয়া অফিসের দেয়া তথ্যমতে, এদিন বেলা ১২ টা হতে দুপুর ৩টা পর্যন্ত ৪৮ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এর আগে তীব্র তাপদাহ থেকে রক্ষা পেতে জেলার বিভিন্ন স্থানে ইস্তিসকার নামাজ আদায় করেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।
দীর্ঘ প্রতিক্ষা শেষে অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টি নেমে আসে চাঁদপুর জেলা জুড়ে।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে দু’গ্রুপের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে অটো চালকের মৃত্যু

তীব্র গরমের পর স্বস্তির বৃষ্টিতে শীতল চাঁদপুরের জনজীবন

আপডেট সময় : ১১:৪১:২৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৭ মে ২০২৪
কাঠফাটা রোদ আর টানা কয়েক দিনের ভ্যাপসা গরমের পর চাঁদপুরে নেমেছে স্বস্তির বৃষ্টি।
রোববার রাত ৯টার পর থেকেই আকাশ ছিল মেঘাচ্ছন্ন। হালকা বাতাসের ঠান্ডার পরশ জনজীবনের শান্তি নিয়ে আসে। তবে জেলার কোথাও কোথাও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হয়েছে বলে জানা যায়।
সোমবার (৬ মে) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আকাশ জুড়ে মেঘের খেলা শেষে চাঁদপুরের বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয় বৃষ্টি।
বৃষ্টির সঙ্গে রয়েছে মেঘের গর্জন ও ঝড়ো বাতাস। তবে বৃষ্টির কারণে ব্যস্ত শহরবাসীকে কিছুটা অসুবিধায়ও পড়তে হয়েছে।
বৃষ্টিতে ভিজে অনেককেই নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধান করতে দেখা যায়। অসহ্য গরমের পর বহুল প্রত্যাশিত এই বৃষ্টি মানুষের মধ্যে স্বস্তি এনে দিয়েছে।
অনেকেই আবার স্বস্তির বৃষ্টি পেয়ে একটু গা ভিজিয়ে নিয়েছেন। বৃষ্টির কারণে গরমও কমে এসেছে এই জেলায়।
প্রচণ্ড গরমে জনজীবনে যখন নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছিল। ঠিক তখনই এক পশলা বৃষ্টি যেন মানুষের মধ্যে স্বস্তির নিশ্বাস এনে দিয়েছে। বৃষ্টির পর চাঁদপুরের আবহাওয়া ছিল অত্যন্ত শীতল।
আবহাওয়া অফিসের দেয়া তথ্যমতে, এদিন বেলা ১২ টা হতে দুপুর ৩টা পর্যন্ত ৪৮ মিলি মিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। এর আগে তীব্র তাপদাহ থেকে রক্ষা পেতে জেলার বিভিন্ন স্থানে ইস্তিসকার নামাজ আদায় করেন ধর্মপ্রাণ মুসল্লিরা।
দীর্ঘ প্রতিক্ষা শেষে অবশেষে স্বস্তির বৃষ্টি নেমে আসে চাঁদপুর জেলা জুড়ে।