ঢাকা ০৪:৫৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মতলব উত্তরে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে কিশোর কিশোরীর আত্মহত্যা

মতলব উত্তর ব্যুরো : চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় ফুফাতো ভাই নিলয় (১৫) ও মামাতো বোন ফাহিমা (১২) একযোগে আত্মহত্যা করেছে। গত ২৬ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে তারা এই পথ বেছে নিয়েছে।

Model Hospital

পুলিশ জানায়, তারা বিষ পান করার পর অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রথমে মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সেখান থেকে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়ার পথে তাদের মৃত্যু হয়। আজ ২৭ ফেব্রুয়ারী পোস্ট মর্টেম এর জন্য তাদের মৃতদেহ চাঁদপুর মর্গে প্রেরণ করে থানা পুলিশ।

তাদের পারিবারিক সুত্র জানায়, নিলয়ের পিতা মৃত্যুবরণ করার কারণে সে মামা মোহন ফরাজির বাড়িতে থাকতো। মোহন ফরাজি চারটি বিয়ে করেন। মেয়ে ফাহিমা তৃতীয় সংসারের ইয়ারুন নেছার মেয়ে। ইয়ারুনের সাথে মোহনের তালাক হওয়ায় ফাহিমা তার বাবার সংসারেই থাকতো। তবে তার নানার বাড়ি পাশের গ্রাম জঙ্গল ইসলামাবাদ গ্রামেও যাওয়া আসা ছিল।

মোহনের চতুর্থ স্ত্রী নাছিমা বলেন, আমি গতকাল (২৬ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যায় ঘরে এসে দেখি ফাহিমা উদ্ভট শব্দ করছে। তাকে জিজ্ঞেস করলে সে কিছুই বলেনি। তার কিছুক্ষণ পরে আবার নিলয়কেও একই অবস্থায় দেখি। পরে তাদেরকে দ্রুত হাসপাতালে নেই। পরে জানতে পারি তারা কেরির মারার ট্যাবলেট (বিষ) পান করেছে। কিন্তু কেন তারা বিষ পান করল তা বুজতে পারছি না।

প্রতিবেশী আঃ মতিন সহ কয়েকজন জানান, তাদের মধ্যে প্রেমে সম্পর্ক ছিল। হয়তো এই সম্পর্কের জেড় ধরেই আত্মহত্যা করেছে। নিলয় এবার দশম শ্রেণির ছাত্র এবং ফাহিমা চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী।

মতলব উত্তর থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল বলেন, তাদের লাশ এনে পোস্ট মর্টেমে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসলে সত্যতা জানা যাবে। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

কি হবে আর ছবি তুলে!

মতলব উত্তরে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে কিশোর কিশোরীর আত্মহত্যা

আপডেট সময় : ০২:২৭:৩৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২২

মতলব উত্তর ব্যুরো : চাঁদপুরের মতলব উত্তর উপজেলায় ফুফাতো ভাই নিলয় (১৫) ও মামাতো বোন ফাহিমা (১২) একযোগে আত্মহত্যা করেছে। গত ২৬ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যায় উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের কাশিমনগর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। জানা গেছে প্রেমে ব্যর্থ হয়ে তারা এই পথ বেছে নিয়েছে।

Model Hospital

পুলিশ জানায়, তারা বিষ পান করার পর অসুস্থ হয়ে পড়লে প্রথমে মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স পরে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সেখান থেকে তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা নেওয়ার পথে তাদের মৃত্যু হয়। আজ ২৭ ফেব্রুয়ারী পোস্ট মর্টেম এর জন্য তাদের মৃতদেহ চাঁদপুর মর্গে প্রেরণ করে থানা পুলিশ।

তাদের পারিবারিক সুত্র জানায়, নিলয়ের পিতা মৃত্যুবরণ করার কারণে সে মামা মোহন ফরাজির বাড়িতে থাকতো। মোহন ফরাজি চারটি বিয়ে করেন। মেয়ে ফাহিমা তৃতীয় সংসারের ইয়ারুন নেছার মেয়ে। ইয়ারুনের সাথে মোহনের তালাক হওয়ায় ফাহিমা তার বাবার সংসারেই থাকতো। তবে তার নানার বাড়ি পাশের গ্রাম জঙ্গল ইসলামাবাদ গ্রামেও যাওয়া আসা ছিল।

মোহনের চতুর্থ স্ত্রী নাছিমা বলেন, আমি গতকাল (২৬ ফেব্রুয়ারী) সন্ধ্যায় ঘরে এসে দেখি ফাহিমা উদ্ভট শব্দ করছে। তাকে জিজ্ঞেস করলে সে কিছুই বলেনি। তার কিছুক্ষণ পরে আবার নিলয়কেও একই অবস্থায় দেখি। পরে তাদেরকে দ্রুত হাসপাতালে নেই। পরে জানতে পারি তারা কেরির মারার ট্যাবলেট (বিষ) পান করেছে। কিন্তু কেন তারা বিষ পান করল তা বুজতে পারছি না।

প্রতিবেশী আঃ মতিন সহ কয়েকজন জানান, তাদের মধ্যে প্রেমে সম্পর্ক ছিল। হয়তো এই সম্পর্কের জেড় ধরেই আত্মহত্যা করেছে। নিলয় এবার দশম শ্রেণির ছাত্র এবং ফাহিমা চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী।

মতলব উত্তর থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান কামাল বলেন, তাদের লাশ এনে পোস্ট মর্টেমে পাঠানো হয়েছে। রিপোর্ট আসলে সত্যতা জানা যাবে। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।