ঢাকা ০৮:৪০ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪, ৩১ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

‘গোল্ডেন বল-বুট’ নিয়ে খোলা পিকআপে শহর ঘুরলেন সাবিনা

সাফ শিরোপাজয়ী নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুনকে গতকাল শুক্রবার সাতক্ষীরায় ফুলেল শুভেচ্ছা দেওয়া হয়েছে। তাঁকে নিয়ে বর্ণিল শোভাযাত্রা করা হয়। এ সময় সর্বস্তরের মানুষের উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। গতকাল সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে একটি কালো প্রাইভেট কারে করে সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসের সামনে পৌঁছান ফুটবলকন্যা সাবিনা খাতুন।

Model Hospital

এরপর একটি খোলা পিকআপে ওঠেন তিনি। বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনাকে এ সময় দুই হাত নেড়ে অভিবাদন জানায় রাস্তার দুই ধারে দাঁড়ানো শত শত মানুষ। সাতক্ষীরা-যশোর সড়কে দেখা যায় জনতার ব্যাপক ভিড়। সাবিনা খাতুন পিকআপে দাঁড়িয়ে হাত নেড়ে জনতার অভিবাদনের জবাব দেন।

সাতক্ষীরা সার্কিট হাউস মোড় থেকে শহর ঘুরে নিউ মার্কেট, সঙ্গীতা মোড় হয়ে, টাউন স্পোর্টিং ক্লাব, পুরনো সাতক্ষীরা, কলেজ মোড় হয়ে নিউ মার্কেট মোড়ে এসে পিকআপটি থামে। গোটা শহর ঘুরে সাবিনা সাতক্ষীরার মানুষসহ গোটা দেশবাসীকে অভিনন্দন জানান। জাতীয় পতাকাবাহী পিকআপটি সাবিনাকে নিয়ে শহর প্রদক্ষিণকালে শিশু, কিশোর, যুব-বৃদ্ধ—সবার উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। শহর প্রদক্ষিণ শেষে সাতক্ষীরা নিউ মার্কেট মোড় থেকে ফুটবলকন্যা সাবিনা খাতুন ফিরে যান নিজ বাড়িতে। পুরো পথে হাজারো মানুষ তাঁকে হাত নেড়ে অভিবাদন জানায়।

এর আগে ভোর ৫টার দিকে সাবিনা খাতুন রাজধানী ঢাকা থেকে রওনা হয়ে সাতক্ষীরায় তাঁর নিজ বাড়িতে পৌঁছান। এ সময় সাবিনা খাতুন তাঁর প্রয়াত বাবা সৈয়দ আলী ও প্রয়াত গুরু আকবর আলীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কিছু সময় কাটান। শহর প্রদক্ষিণের আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সাবিনা খাতুন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের এ বিজয় দেশবাসীর প্রতি উৎসর্গ করেছি। বাবা বেঁচে থাকলে তিনি আজ সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন। ’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার প্রয়াত শিক্ষাগুরু আকবর আলীর কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ। সাতক্ষীরাসহ দেশবাসীর ভালোবাসায় বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল বিজয় উল্লাস প্রকাশ করতে পারছে। এ জন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনসহ (বাফুফে) সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাবলীল সহযোগিতা আমাদের উদ্দীপ্ত করেছে। বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নিয়ে থাকেন। তিনি আমাদের সব সময় প্রেরণা দিচ্ছেন। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। আগামী দিনে আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রেরণা ও দেশবাসীর ভালোবাসায় এগিয়ে যাব—ইনশাআল্লাহ। ’

এ সময় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে দলের আরেক ফুটবলার সাতক্ষীরার মাসুরা বাড়িতে না আসায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনা পিছিয়ে আজ শনিবার সকালে নির্ধারণ করা হয়।

ট্যাগস :

কনের পরিবারের ইচ্ছেপূরণে হেলিকপ্টারে চড়ে বিয়ে করতে এলেন লালমনিরহাটের মামুন

‘গোল্ডেন বল-বুট’ নিয়ে খোলা পিকআপে শহর ঘুরলেন সাবিনা

আপডেট সময় : ০৩:৪৫:৪৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

সাফ শিরোপাজয়ী নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনা খাতুনকে গতকাল শুক্রবার সাতক্ষীরায় ফুলেল শুভেচ্ছা দেওয়া হয়েছে। তাঁকে নিয়ে বর্ণিল শোভাযাত্রা করা হয়। এ সময় সর্বস্তরের মানুষের উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। গতকাল সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে একটি কালো প্রাইভেট কারে করে সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসের সামনে পৌঁছান ফুটবলকন্যা সাবিনা খাতুন।

Model Hospital

এরপর একটি খোলা পিকআপে ওঠেন তিনি। বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের অধিনায়ক সাবিনাকে এ সময় দুই হাত নেড়ে অভিবাদন জানায় রাস্তার দুই ধারে দাঁড়ানো শত শত মানুষ। সাতক্ষীরা-যশোর সড়কে দেখা যায় জনতার ব্যাপক ভিড়। সাবিনা খাতুন পিকআপে দাঁড়িয়ে হাত নেড়ে জনতার অভিবাদনের জবাব দেন।

সাতক্ষীরা সার্কিট হাউস মোড় থেকে শহর ঘুরে নিউ মার্কেট, সঙ্গীতা মোড় হয়ে, টাউন স্পোর্টিং ক্লাব, পুরনো সাতক্ষীরা, কলেজ মোড় হয়ে নিউ মার্কেট মোড়ে এসে পিকআপটি থামে। গোটা শহর ঘুরে সাবিনা সাতক্ষীরার মানুষসহ গোটা দেশবাসীকে অভিনন্দন জানান। জাতীয় পতাকাবাহী পিকআপটি সাবিনাকে নিয়ে শহর প্রদক্ষিণকালে শিশু, কিশোর, যুব-বৃদ্ধ—সবার উচ্ছ্বাস ছিল চোখে পড়ার মতো। শহর প্রদক্ষিণ শেষে সাতক্ষীরা নিউ মার্কেট মোড় থেকে ফুটবলকন্যা সাবিনা খাতুন ফিরে যান নিজ বাড়িতে। পুরো পথে হাজারো মানুষ তাঁকে হাত নেড়ে অভিবাদন জানায়।

এর আগে ভোর ৫টার দিকে সাবিনা খাতুন রাজধানী ঢাকা থেকে রওনা হয়ে সাতক্ষীরায় তাঁর নিজ বাড়িতে পৌঁছান। এ সময় সাবিনা খাতুন তাঁর প্রয়াত বাবা সৈয়দ আলী ও প্রয়াত গুরু আকবর আলীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। তিনি পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কিছু সময় কাটান। শহর প্রদক্ষিণের আগে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন সাবিনা খাতুন। তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলের এ বিজয় দেশবাসীর প্রতি উৎসর্গ করেছি। বাবা বেঁচে থাকলে তিনি আজ সবচেয়ে বেশি খুশি হতেন। ’ তিনি আরো বলেন, ‘আমার প্রয়াত শিক্ষাগুরু আকবর আলীর কাছে আমি চিরকৃতজ্ঞ। সাতক্ষীরাসহ দেশবাসীর ভালোবাসায় বাংলাদেশ নারী ফুটবল দল বিজয় উল্লাস প্রকাশ করতে পারছে। এ জন্য বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনসহ (বাফুফে) সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সাবলীল সহযোগিতা আমাদের উদ্দীপ্ত করেছে। বিশেষ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নিয়ে থাকেন। তিনি আমাদের সব সময় প্রেরণা দিচ্ছেন। আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ। আগামী দিনে আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রেরণা ও দেশবাসীর ভালোবাসায় এগিয়ে যাব—ইনশাআল্লাহ। ’

এ সময় সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসন ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে দলের আরেক ফুটবলার সাতক্ষীরার মাসুরা বাড়িতে না আসায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক সংবর্ধনা পিছিয়ে আজ শনিবার সকালে নির্ধারণ করা হয়।