ঢাকা ১২:৪২ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ৪ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মানবিকতার নজির গড়লেন নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফেরদাউস আলম সরকার

নিজস্ব প্রতিবেদক : মানবতার অনন্য নজির গড়লেন ষাটনল ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মো. ফেরদাউস আলম সরকার। ২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার  সকাল ১০ ঘটিকায় রিনা নামে একজন মহিলা চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল ইউনিয়নের আবু মার্কেট সংলগ্ন টাওয়ারের কাছে মাতাল অবস্থায় দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন। মাতাল অবস্থায় দুলতে দুলতে আবু মার্কেট সংলগ্ন বেরীবাঁধের উপর জৈনিক আনোয়ারের দোকানের সামনে এসে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।
উপস্থিত লোকজন দেখে মহিলাটিকে প্রাথমিক সেবা দিয়ে নিয়ে তার বাড়িতে নিয়ে যায় । ক্ষণিক সময় অতিবাহিত হওয়ার পর মহিলাটি কিছুটা সুস্থ হয়। পরে মহিলা থেকে তথ্য নিয়ে জানা যায় তিনি মতলব উত্তর উপজেলার মিন্টু নামে এক ছেলের সাথে প্রেম করতেন। ৬ মাস যাবৎ সম্পর্কের জেড়ে গতকাল তারা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে রুপগঞ্জের নিজ বাসা থেকে মতলব উত্তরের উদ্দেশ্য রওয়ানা দেন। ভবেরচর এসে মিন্টু রিনাকে চারটি টেবলেট খাওয়ান সেই থেকেই অচেতন রিনা আক্তার।
রিনা আক্তার আরও জানার তার সাথে ছিল নগদ একলক্ষ ষাট হাজার টাকা, দেড় ভরি স্বর্ণ, একটি স্মার্ট ফোন ও একটি ছোট মোবাইল। এগুলো সব নিয়ে তাকে অচেতন করে উদাও হয়েছে তার প্রেমিক। রিনা আক্তার এর বাড়ি রুপগঞ্জ উপজেলার কুলাদি গ্রামে। তার একটি মেয়ে আছে নাম তার স্মৃতি সে দুই সন্তামের জননী। রিনা আক্তার এর স্বামী নেই কাজ করতেন মানুষের বাড়িতে। ৪০ বছর বয়সী রিনা আক্তার ধীরে ধীরে অচেতন থেকে স্বাভাবিক হচ্ছেন এবং মিন্টুর সন্ধান চাচ্ছেন। মিন্টুর বোন এবং বোন জামাই রুপগঞ্জে রিনার পাশেই বসবাস করেন এবং তার পরিচিত।
এদিকে ষাটনল ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো.ফেরদৌস আলম সরকার মানবিক দিক বিবেচনা করে অচেতন রিনা আক্তারের বিষয়টি জানেন এবং তার পরিচয় নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছেন। এদিকে রিনা আক্তারকে মতলব উত্তর থানা পুলিশের কাছে নিয়ে গেলে তারা গ্রহন করেনি এবং করনীয় কি সেজন্য কোন পদক্ষেপ নেয়নি বরং থানা পুলিশ জানিয়ে দিয়েছে এটি উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের কাজ। অতপর নিয়ে যাওয়া হয় অচেতন রিনাকে উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরে, সেখানে সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা না থাকায় রিনাকে নিয়ে আসা হয় ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদে।
বর্তমানে রিনা আক্তার ষাটনল পরিষদে গ্রাম পুলিশের পাহারায় আছে।  তার প্রাথমিক চিকিৎসা ও খাবার সহ যাবতীয় বিষয়ে দেখাশুনা করছেন অত্র ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম সরকার। এছাড়া রিনার তথ্যমতে রুপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করেও কোন সহযোগিতা মিলেনি।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

স্কুলের শ্রেণিকক্ষে ‘আপত্তিকর’ অবস্থায় ছাত্রীসহ প্রধান শিক্ষক আটক

মানবিকতার নজির গড়লেন নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফেরদাউস আলম সরকার

আপডেট সময় : ০৮:৫৯:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৩ ডিসেম্বর ২০২১
নিজস্ব প্রতিবেদক : মানবতার অনন্য নজির গড়লেন ষাটনল ইউনিয়নের নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মো. ফেরদাউস আলম সরকার। ২ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার  সকাল ১০ ঘটিকায় রিনা নামে একজন মহিলা চাঁদপুর জেলার মতলব উত্তর উপজেলার ষাটনল ইউনিয়নের আবু মার্কেট সংলগ্ন টাওয়ারের কাছে মাতাল অবস্থায় দেখতে পায় স্থানীয় লোকজন। মাতাল অবস্থায় দুলতে দুলতে আবু মার্কেট সংলগ্ন বেরীবাঁধের উপর জৈনিক আনোয়ারের দোকানের সামনে এসে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।
উপস্থিত লোকজন দেখে মহিলাটিকে প্রাথমিক সেবা দিয়ে নিয়ে তার বাড়িতে নিয়ে যায় । ক্ষণিক সময় অতিবাহিত হওয়ার পর মহিলাটি কিছুটা সুস্থ হয়। পরে মহিলা থেকে তথ্য নিয়ে জানা যায় তিনি মতলব উত্তর উপজেলার মিন্টু নামে এক ছেলের সাথে প্রেম করতেন। ৬ মাস যাবৎ সম্পর্কের জেড়ে গতকাল তারা পালিয়ে গিয়ে বিয়ে করার উদ্দেশ্যে রুপগঞ্জের নিজ বাসা থেকে মতলব উত্তরের উদ্দেশ্য রওয়ানা দেন। ভবেরচর এসে মিন্টু রিনাকে চারটি টেবলেট খাওয়ান সেই থেকেই অচেতন রিনা আক্তার।
রিনা আক্তার আরও জানার তার সাথে ছিল নগদ একলক্ষ ষাট হাজার টাকা, দেড় ভরি স্বর্ণ, একটি স্মার্ট ফোন ও একটি ছোট মোবাইল। এগুলো সব নিয়ে তাকে অচেতন করে উদাও হয়েছে তার প্রেমিক। রিনা আক্তার এর বাড়ি রুপগঞ্জ উপজেলার কুলাদি গ্রামে। তার একটি মেয়ে আছে নাম তার স্মৃতি সে দুই সন্তামের জননী। রিনা আক্তার এর স্বামী নেই কাজ করতেন মানুষের বাড়িতে। ৪০ বছর বয়সী রিনা আক্তার ধীরে ধীরে অচেতন থেকে স্বাভাবিক হচ্ছেন এবং মিন্টুর সন্ধান চাচ্ছেন। মিন্টুর বোন এবং বোন জামাই রুপগঞ্জে রিনার পাশেই বসবাস করেন এবং তার পরিচিত।
এদিকে ষাটনল ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান মো.ফেরদৌস আলম সরকার মানবিক দিক বিবেচনা করে অচেতন রিনা আক্তারের বিষয়টি জানেন এবং তার পরিচয় নিশ্চিত করার জন্য কাজ করছেন। এদিকে রিনা আক্তারকে মতলব উত্তর থানা পুলিশের কাছে নিয়ে গেলে তারা গ্রহন করেনি এবং করনীয় কি সেজন্য কোন পদক্ষেপ নেয়নি বরং থানা পুলিশ জানিয়ে দিয়েছে এটি উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরের কাজ। অতপর নিয়ে যাওয়া হয় অচেতন রিনাকে উপজেলা সমাজ সেবা অধিদপ্তরে, সেখানে সমাজসেবা অধিদপ্তরের কর্মকর্তা না থাকায় রিনাকে নিয়ে আসা হয় ষাটনল ইউনিয়ন পরিষদে।
বর্তমানে রিনা আক্তার ষাটনল পরিষদে গ্রাম পুলিশের পাহারায় আছে।  তার প্রাথমিক চিকিৎসা ও খাবার সহ যাবতীয় বিষয়ে দেখাশুনা করছেন অত্র ইউনিয়নের নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান ফেরদৌস আলম সরকার। এছাড়া রিনার তথ্যমতে রুপগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করেও কোন সহযোগিতা মিলেনি।