ঢাকা ০৫:৫৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ০২ মার্চ ২০২৪, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

আমার রক্তের সাথে মিশে আছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ : যুবলীগ নেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠনক ও সাবেক চাঁদপুর জেলা কৃষক লীগের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক ভূইয়ার সুযোগ্য সন্তান যুবলীগ নেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়া।

Model Hospital

তিনি ১৯৮৮ সালে চাঁদপুর পৌরসভা ৩নং ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৮৯ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক, ১৯৯১ – ১৯৯৫ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্র লীগের যুগ্ম সম্পাদক, ১৯৯৫-১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য, ১৯৯৭-২০০০ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক, ২০০০-২০০৪ সালে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী যুবলীগের সদস্য, ২০০৪-২০১৩ সালে আওয়ামী যুবলীগের

চাঁদপুর জেলা যুগ্ম সাধারন সম্পাদক, বর্তমানে ২০১৩-এখন পর্যন্ত আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আসছে চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। সর্বত্র আলোচনা সমালোচনার ঝড় চাঁদপুর সদর উপজেলার পরিষদ নির্বাচন নিয়ে? কে হচ্ছে চেয়ারম্যান প্রার্থী!

চাঁদপুর সদর উপজেলার মোট ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছ, ১ টি প্রথম শ্রেনীর পৌরসভা রয়েছে। সবখানে মোটামুটি যোগ্য যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়ার কথা শোনা যাচ্ছে সবস্থানে!

এই নেতার চারপুরুষ সকলেই আওয়ামীলীগ। এই নেতা ওয়ার্ড ছাত্রলীগ থেকে, স্কুল ছাত্রলীগ, কলেজ ছাত্রলীগ, তারপর চাঁদপুর জেলা যুবলীগ। বাংলাদেশ আওয়ামী-যুবলীগ চাঁদপুর জেলা শাখার ত্যাগী এবং কর্মী বান্ধব নেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল আজও রাজপথ তার দখলে। প্রাণপ্রিয় দল আওয়ামী যুবলীগের জন্য আজ সংগ্রাম করে যাচ্ছে রাজপথে। ছাত্রজীবন থেকে শুরু হচ্ছে – ’৯০’র স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন সক্রিয় ভূমিকা পালন করে আসছে এবং বিএনপি ও জামায়াতে হামলা / মামলা শিকার হতে হয়েছে।

উল্লেখ যে, দেশ স্বাধীনের পর পর চাঁদপুর সদরের এক- তৃতীয়াংশের আওয়ামী লীগের নেতা ছিলেন যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়ার পিতা মরহুম আব্দুল মালেক ভূইয়া। সেই ত্যাগী মানুষদের আজ কদর নেই! এ যুবনেতা আজও দলের বিপক্ষে কথা বলে না এবং দল যা বলে সেইটা সমর্থন করেন। দীর্ঘ ১৫ বছরের বেশি সময় ধরে চাঁদপুর জেলা যুবলীগের (প্রায়) দায়িত্ব পালন করে আসছে। এ নেতা জনপ্রিয়তা সবার শীর্ষে (বর্তমান)। তিনি সকল নেতাকর্মীদের পাশে থাকছেন সারাক্ষণ। যার যা সমস্যা হয়ে সেখানেই ছুটে যায় এবং সমাধান করে।

এ কারনে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, তাঁতিলীগ, স্বেচ্ছাসবকলীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনের সাথে ভালো সম্পর্ক রয়েছে। এক কথায় জনপ্রিয় যুবনেতা! তিনি চাঁদপুর জেলা যুবলীগ অহংকার! সকল নেতাকর্মী ও সমর্থকদের দাবি এই সত্য, যোগ্য ও আর্দশবান যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়াকে চাঁদপুর সদর উপজেলার পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দেখা চান চাঁদপুর সদর বাসী। অদ্যবধি আওয়ামী রাজনীতির সকল কর্মকাণ্ডে সক্রিয় থেকে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা তথা জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল এবং উন্নত সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলাদেশ বাস্তবায়নের লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন।

চাঁদপুর -৩ আসনের সংসদ সদস্য ও গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। এ ব্যাপারে মন্ত্রী সুদৃষ্টি কামনায়- চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী যোগ্য সৎ, মেধাবী, হাজারো নেতাকর্মীর অভিভাবক বিপ্লবী যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়া।

মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়া বলেন, আমার রক্তের সাথে মিশে আছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর আর্দশ। যার রক্তে শুধু আওয়ামীগীল আর আওয়ামীলীগ। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সাথে কখন বেঈমানী করিনি। দলের দুর্দিনে ও মানুষের পাশে থেকে জনগনের জন্য কিছু করার চেষ্টা করছি। অর্থ, শ্রম, ঘাম দিয়ে দিনরাত দলের জন্য কাজ করছি।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

রমজানের আগেই ‘দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ কমিশন’ দাবি নতুনধারার

আমার রক্তের সাথে মিশে আছে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ : যুবলীগ নেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল

আপডেট সময় : ০৮:০৩:৫৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠনক ও সাবেক চাঁদপুর জেলা কৃষক লীগের আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক ভূইয়ার সুযোগ্য সন্তান যুবলীগ নেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়া।

Model Hospital

তিনি ১৯৮৮ সালে চাঁদপুর পৌরসভা ৩নং ওয়ার্ডের ছাত্রলীগের সভাপতি, ১৯৮৯ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক, ১৯৯১ – ১৯৯৫ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্র লীগের যুগ্ম সম্পাদক, ১৯৯৫-১৯৯৭ সালে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য, ১৯৯৭-২০০০ সালে চাঁদপুর জেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক, ২০০০-২০০৪ সালে চাঁদপুর জেলা আওয়ামী যুবলীগের সদস্য, ২০০৪-২০১৩ সালে আওয়ামী যুবলীগের

চাঁদপুর জেলা যুগ্ম সাধারন সম্পাদক, বর্তমানে ২০১৩-এখন পর্যন্ত আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন।

আসছে চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচন। সর্বত্র আলোচনা সমালোচনার ঝড় চাঁদপুর সদর উপজেলার পরিষদ নির্বাচন নিয়ে? কে হচ্ছে চেয়ারম্যান প্রার্থী!

চাঁদপুর সদর উপজেলার মোট ১৪টি ইউনিয়ন পরিষদ রয়েছ, ১ টি প্রথম শ্রেনীর পৌরসভা রয়েছে। সবখানে মোটামুটি যোগ্য যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়ার কথা শোনা যাচ্ছে সবস্থানে!

এই নেতার চারপুরুষ সকলেই আওয়ামীলীগ। এই নেতা ওয়ার্ড ছাত্রলীগ থেকে, স্কুল ছাত্রলীগ, কলেজ ছাত্রলীগ, তারপর চাঁদপুর জেলা যুবলীগ। বাংলাদেশ আওয়ামী-যুবলীগ চাঁদপুর জেলা শাখার ত্যাগী এবং কর্মী বান্ধব নেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল আজও রাজপথ তার দখলে। প্রাণপ্রিয় দল আওয়ামী যুবলীগের জন্য আজ সংগ্রাম করে যাচ্ছে রাজপথে। ছাত্রজীবন থেকে শুরু হচ্ছে – ’৯০’র স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন সক্রিয় ভূমিকা পালন করে আসছে এবং বিএনপি ও জামায়াতে হামলা / মামলা শিকার হতে হয়েছে।

উল্লেখ যে, দেশ স্বাধীনের পর পর চাঁদপুর সদরের এক- তৃতীয়াংশের আওয়ামী লীগের নেতা ছিলেন যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়ার পিতা মরহুম আব্দুল মালেক ভূইয়া। সেই ত্যাগী মানুষদের আজ কদর নেই! এ যুবনেতা আজও দলের বিপক্ষে কথা বলে না এবং দল যা বলে সেইটা সমর্থন করেন। দীর্ঘ ১৫ বছরের বেশি সময় ধরে চাঁদপুর জেলা যুবলীগের (প্রায়) দায়িত্ব পালন করে আসছে। এ নেতা জনপ্রিয়তা সবার শীর্ষে (বর্তমান)। তিনি সকল নেতাকর্মীদের পাশে থাকছেন সারাক্ষণ। যার যা সমস্যা হয়ে সেখানেই ছুটে যায় এবং সমাধান করে।

এ কারনে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, কৃষকলীগ, তাঁতিলীগ, স্বেচ্ছাসবকলীগসহ সকল অঙ্গসংগঠনের সাথে ভালো সম্পর্ক রয়েছে। এক কথায় জনপ্রিয় যুবনেতা! তিনি চাঁদপুর জেলা যুবলীগ অহংকার! সকল নেতাকর্মী ও সমর্থকদের দাবি এই সত্য, যোগ্য ও আর্দশবান যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়াকে চাঁদপুর সদর উপজেলার পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে দেখা চান চাঁদপুর সদর বাসী। অদ্যবধি আওয়ামী রাজনীতির সকল কর্মকাণ্ডে সক্রিয় থেকে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা তথা জননেত্রী শেখ হাসিনার ডিজিটাল এবং উন্নত সমৃদ্ধশালী সোনার বাংলাদেশ বাস্তবায়নের লক্ষে কাজ করে যাচ্ছেন।

চাঁদপুর -৩ আসনের সংসদ সদস্য ও গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজ কল্যাণ মন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি। এ ব্যাপারে মন্ত্রী সুদৃষ্টি কামনায়- চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী যোগ্য সৎ, মেধাবী, হাজারো নেতাকর্মীর অভিভাবক বিপ্লবী যুবনেতা মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়া।

মাহফুজুর রহমান টুটুল ভূইয়া বলেন, আমার রক্তের সাথে মিশে আছে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী বঙ্গবন্ধুর আর্দশ। যার রক্তে শুধু আওয়ামীগীল আর আওয়ামীলীগ। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সাথে কখন বেঈমানী করিনি। দলের দুর্দিনে ও মানুষের পাশে থেকে জনগনের জন্য কিছু করার চেষ্টা করছি। অর্থ, শ্রম, ঘাম দিয়ে দিনরাত দলের জন্য কাজ করছি।