ঢাকা ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুরে জাটকা রক্ষায় উপজেলা মৎস্য অফিসের ব্যাপক কার্যত্রম গ্রহণ

সজীব খান : চাঁদপুরে জাটকা রক্ষার্থে উপজেলা মৎস্য অফিস ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। মার্চ এপ্রিল এ দুই মাস নদীতে মাছ ধরা বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সে নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নের জন্য চাঁদপুর সদর উপজেলা মৎস্য অফিস ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। জাটকা সংরক্ষণ ও বাস্তবায়নের জন্য জেলা প্রশাসনের তত্ত্ববধানে মৎস্য অফিস কাজ করছে।
চাঁদপুর সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আতাউর রহমান  জানান, ইলিশ আমাদের জাতীয় সম্পদ, এ সম্পদ রক্ষার্থে দুই মাস নদীতে মাছ ধরার বিষয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সরকার  ইলিশ সম্পদ রক্ষার জন্য কঠোর আইনী পদক্ষেপ নিয়েছেন।
ইতিপূর্বে জাটকা সংরক্ষণের জন্য জেলে পল্লীতে গিয়ে প্রচার-প্রচারণা করা হয়েছে, পোস্টার,ব্যানার, মাইকিং করে প্রচারণা করা হচ্ছে, জাটকা সংরক্ষণ এর সময় কোন জেলে যাতে নদীতে মাছ শিকারে না যায় সে বিষয়ে প্রচার-প্রচারণা করা হচ্ছে।
সকলের সমন্বিত প্রয়াস জাটকা সংরক্ষণ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে, জাটকা সংরক্ষণ এর জন্য ইতিপূর্বে টাস্কফোর্স কমিটির আলোচনা সভা হয়েছে, জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে,নৌ পুলিশ, কোস্টগার্ডসহ প্রশাসনের সবাই জাটকা সংরক্ষণের জন্য মাঠে রয়েছে। যার যার অবস্থান থেকে জাটকা সংরক্ষণ এর জন্য কাজ করতে হবে।
ইলিশ আমাদের রাষ্ট্রীয় সম্পদ তা রক্ষা করার জন্য  নদীর তীরবর্তী জনপ্রতিনিধিগণ ও তাদের দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করতে হবে, তবেই আমাদের জাটকা সংরক্ষণের সফলতা আসবে।
ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

চাঁদপুরে জাটকা রক্ষায় উপজেলা মৎস্য অফিসের ব্যাপক কার্যত্রম গ্রহণ

আপডেট সময় : ১০:৪২:০১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২২
সজীব খান : চাঁদপুরে জাটকা রক্ষার্থে উপজেলা মৎস্য অফিস ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। মার্চ এপ্রিল এ দুই মাস নদীতে মাছ ধরা বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সে নিষেধাজ্ঞা বাস্তবায়নের জন্য চাঁদপুর সদর উপজেলা মৎস্য অফিস ব্যাপক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। জাটকা সংরক্ষণ ও বাস্তবায়নের জন্য জেলা প্রশাসনের তত্ত্ববধানে মৎস্য অফিস কাজ করছে।
চাঁদপুর সদর উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ আতাউর রহমান  জানান, ইলিশ আমাদের জাতীয় সম্পদ, এ সম্পদ রক্ষার্থে দুই মাস নদীতে মাছ ধরার বিষয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। সরকার  ইলিশ সম্পদ রক্ষার জন্য কঠোর আইনী পদক্ষেপ নিয়েছেন।
ইতিপূর্বে জাটকা সংরক্ষণের জন্য জেলে পল্লীতে গিয়ে প্রচার-প্রচারণা করা হয়েছে, পোস্টার,ব্যানার, মাইকিং করে প্রচারণা করা হচ্ছে, জাটকা সংরক্ষণ এর সময় কোন জেলে যাতে নদীতে মাছ শিকারে না যায় সে বিষয়ে প্রচার-প্রচারণা করা হচ্ছে।
সকলের সমন্বিত প্রয়াস জাটকা সংরক্ষণ বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে, জাটকা সংরক্ষণ এর জন্য ইতিপূর্বে টাস্কফোর্স কমিটির আলোচনা সভা হয়েছে, জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে,নৌ পুলিশ, কোস্টগার্ডসহ প্রশাসনের সবাই জাটকা সংরক্ষণের জন্য মাঠে রয়েছে। যার যার অবস্থান থেকে জাটকা সংরক্ষণ এর জন্য কাজ করতে হবে।
ইলিশ আমাদের রাষ্ট্রীয় সম্পদ তা রক্ষা করার জন্য  নদীর তীরবর্তী জনপ্রতিনিধিগণ ও তাদের দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করতে হবে, তবেই আমাদের জাটকা সংরক্ষণের সফলতা আসবে।